চাঁপাইনবাবগঞ্জের কোরবানির হাট, দেশীয় পশুর কদর বেশি দামও চড়া

ffচাঁপাইনবাবগঞ্জের কোরবানির পশু হাটগুলো জমে উঠতে শুরু করেছে। চাঁপাইনবাবগঞ্জ শহরের সবচেয়ে বড় ও প্রচীন পশুর হাট বটতলা হাটে গত শুক্রবার গিয়ে দেখা যায়, কোরবানির পশুতে হাট পরিপূর্ণ। এমনকি আশপাশের সড়কেও গিয়ে ঠেকেছে পশুর হাটের কার্যক্রম। হাট ঘুরে দেখা যায়, দেশি গরুর আধিক্যই বেশি, তবে দাম তুলনামুলক এবছর অনেক বেশি হলেও ক্রেতাদের পছন্দও দেশি গরু। অন্যদিকে হাটে ভালো দাম পেয়ে খুশি দেশি গরুর মালিকরা। শুধু বটতলা হাট নয় জেলার প্রতিটি হাটেই পছন্দের কোরবানির পশু কিনতে ক্রেতাদের ভিড় ছিল লক্ষনীয়। দাম যায় হোক শেষ পর্যন্ত পছন্দের পশুটি কিনে বাড়ি ফিরছেন অনেক ক্রেতা, আবার অনেকেই দাম বেশির কারনে আগামী হাট পর্যন্ত অপেক্ষা করার চিন্তা নিয়ে বাড়ি ফিরছেন। শুক্রবার চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌর এলাকার বটতলা হাটে গিয়ে দেখা যায়,পছন্দের পশুটি কিনতে এদিন অনেকেই এসেছিলেন হাটে, কেউ একাই এসেছেন, কেউ এসেছেন দলবেঁধে। যেন তিল ধারনের ঠাঁই ছিল না চাঁপাইনবাবগঞ্জের ঐতিহ্যবাহী এ হাটটিতে। আর ক্রেতা বিক্রেতাদের এই উপস্থিতি যেন ঈদ উৎসবেরই অংশ। তাদের সাথে কথা বলে জানা যায়, এবছর গরু ও খাসির (ছাগলের) দাম গত বছরের চেয়ে প্রায় দিগুণ। পশুর উচ্চ মূল্যের কারণে সাধারণ ক্রেতারা কিছুটা হতাশ। আলিনগর এলাকার জাফর আলী জানান, গতবছর থেকে বেড়ে যাওয়া গরুর দাম এবছর আরো বেড়েছে, গতবার একটা মাঝারি গরু ৩৫-৪০ হাজার টাকায় কিনেছেন এবছর সেই গরু কেনার জন্য তারা ৫০ হাজার টাকা বাজেট করে হাটে এসেছেন। তিনি বলেন, দেখছি এই হাটে কিনতে পারলে ভালো- না হয়, পরের হাটের জন্য অপেক্ষা করব। হাটে গরু কিনতে আসা, সংবাদ পত্র এজেন্ট আব্দুল কাদেরের সাথে কথা হয়, তিনি জানালেন,৫৫-৬০ হাজারের এর মধ্যে তারা গরু কেনার জন্য বাজেট নিয়ে হাটে এসেছেন। কয়েক ঘন্টা ধরে ঘুরছি সন্ধ্যা হতে চললো, এখনও মানান মত গরু পায়নি। স্বরুপনগর গ্রামের, রুহুল আমিন ৪১ হাজার টাকায় একটা গরু কিনে বাড়ি ফিরছেন, তিনি জানালেন এবার গরুর দাম অনেকটা বেশি হলেও যাক ভালো লাগছে, বাজেটের মধ্যেই পছন্দের গরুটা কিনতে পেরেছি। এদিকে হাটে ভারতীয় গরু না নামায় দেশি গরুর মালিকরা বেশ ভালোই দাম পাচ্ছেন, নামোসংকরবাটির মজিবুর রহমান নামে একজন জানান, এবছর বাড়িতে ২টি গরু লালনপালন করেছিলাম, তার মধ্যে একটা বাড়ি থেকেই বিক্রি হয়ে গেছে ৫৫ হাজার টাকায়, আর একটা আজ হাটে নিয়ে এসেছি। এবছর গরুর দামে তিনি খুশি, তিনি বলেন গরুর খাবারের দাম অনেক বেশি, তারপরও কিছুটা লাভের মুখ দেখব। বটতলা হাট ঘুরে দেখা যায়, রাজধানী ঢাকা, চট্টগ্রামসহ বিভিন্ন স্থানে পাঠানোর কোরবানির পশু কিনছেন অনেকেই। হাফিজ নামে একজন জানান, তিনি ঢাকার গাবতলীতে গরু পাঠানোর কাজ করেন। তিনি জানান, গরুর চাহিদা আছে তাই হাটে হাটে ঘুরে গরু কিনছি। তিনি যোগ করেন, এবছর ভারতীয় গরু খুবই কম আসছে। বটতলা হাট ঘুরে দেখা যায়, ছোট সাইজের গরু ৩৫-৪০ হাজার, মাঝারী সাইজের গরু ৬০-৭০ হাজার, আর বড় সাইজের গরু ৭৫ থেকে দেড় লাখ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। অন্যদিকে খাশি বিক্রি হচ্ছে সর্বনিম্ন ৮ হাজার থেকে, তবে একটি মাঝারী সাইজের খাসি নিতে চাইলে ১৪ হাজার থেকে ১৬ হাজার টাকা গুনতে হবে। এছাড়াও বড় সাইজের খাসি বিক্রি হচ্ছে ৩০-৩৫ হাজার টাকায়, কোন কোন বিক্রেতা দাম হাকছেন ৫০ হাজার টাকাও । এদিকে হাট গুলোতে জাল টাকা সনাক্ত করনের জন্য ব্যাংকের কর্মকর্তাদের চেয়ার টেবিল পেতে কাজ করতে দেখা গেছে, তবে তাদের সেবা নিচ্ছেন খুব কম সংখ্যক মানুষ। এছাড়াও সদর উপজেলা প্রাণিসম্পদ কার্যালয়ের পশু চিকিৎসকদেরও দায়িত্ব পালন করতে দেখা যায়। এছাড়াও কেনাবেচা নিবিঘœ করতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের তৎপরতাও ছিল লক্ষনীয়।