পদ্মা ও মহানন্দায় ধীরে বাড়ছে পানি : ভাঙ্গনের আশঙ্কা বাড়ছে

57

চাঁপাইনবাবগঞ্জের পদ্মা নদীতে বিপদ সীমার ১০ সেন্টিমিটার নিচে স্থির অবস্থায় আছে পানি। স্থানীয় পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্মকর্তারা বলছেন পানি বৃদ্ধির হার অনেকটায় কমে গিয়ে স্থির অবস্থায় আছে পদ্মার পানি। তবে পানি বৃদ্ধির গতি কমার সাথে সাথে বিভিন্ন এলাকায় দেখা দিয়েছে নদী ভাঙ্গন।
চাঁপাইনবাবগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী সৈয়দ সাহিদুল আলম জানান পদ্মায় ২২.৫০ মিটারকে ধরা হয় বিপদ সীমা, শনিবার সন্ধ্যা ৬ টায় নেয়া রিডিং অনুয়ায়ী পদ্মায় পানি প্রবাহিত হচ্ছে ২২.৪০ মিটারে। তিনি বলেন, আগের দিন শুক্রবার পানি প্রবাহিত হয়েছে ২২.৩২ মিটারে, শনিবার সকাল ৬ টা থেকে ১২ টা পর্যন্ত ৮ সেন্টিমিটার পানি বৃদ্ধি পেলেও দুপুর থেকে সন্ধ্যা ৬ টা পর্যন্ত আর পানি বৃদ্ধি পায়নি। তিনি আশা প্রকাশ করেন রবিবার থেকে পদ্মায় আর পানি বৃদ্ধি হবে না, হলেও বিপদ সীমার নিচেই থাকবে। 14089276_1076985532415918_7663198219889886025_n (Small)
এদিকে মহানন্দায় বিপদ সীমার ১৬ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে ২০.৮৪ মিটারে পানি প্রাবাহিত হচ্ছে। শিবগঞ্জের পাকা ইউনিয়নের চর লক্ষীপুর গ্রামে ভাঙ্গন শুরু হয়েছে। ওই ইউনিয়নে গত নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী রাসেল রহমান জানান, পাকা ইউনিয়নের অধিকাংশ এলাকায় প্লাবিত হয়েছে। তিনি বলেন বলতে গেলে আমাদের ইউনিয়নের ৮০ ভাগ এলাকা প্লাবিত হয়েছে। যে এলাকা গুলো একটু উচু আছে সেখানে শুরু হয়েছে ভাঙ্গন। এদিকে বন্যাকবলিত এলাকায় এখনো সরকারি বেসরকারি কোন ত্রাণ না পৌাঁয় বানভাসী মানুষের কষ্টে দিন কাটাচ্ছেন।
পদ্মায় পানির স্থির অবস্থার বিষয়ে বলতে গিয়ে চাঁপাইনবাবগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী সৈয়দ সাহিদুল আলম বলেন পানি একটা সম্পদ, ফারাক্কার বাঁধ দিয়ে ভারতে পানি সংরক্ষণ করা হয়, শুস্ক মৌসুমে সেই পানিতেই তাদের চাষাবাদ হয়, তারা যখন দেখছে বিপদ সীমার নিচে পানি নেমে গেছে, আস্তে আস্তে এখন ফারাক্কার গেট গুলো বন্ধ করে দিবে। ‘‘আমরা ধারণা করছি ফারাক্কার গেট কিছু বন্ধ করা হয়েছে, সেই কারনেই পানি বৃদ্ধির গতি কমেছে।’’ বন্যার আশঙ্কা অনেকটায় কেটে যেতে শুরু করেছে, তবে পানি কমার সাথে সাথে ভাঙ্গন শুরু হবে। আমরা পানি কমে গেলে আমাদের বাঁধগুলোর কি পরিমান ক্ষতি হয়েছে তা নির্ধারণ করা যাবে।