চাঁপাইনবাবগঞ্জে পাশ করেছে ৬৭৪৮ শিক্ষার্থী, জিপিএ-৫ পেয়েছে ২২১জন

gourbangla logoপ্রকাশিত এইচএসসির ফলাফলে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলায় জিপিএ-৫ প্রাপ্তিতে ছেলেরা এগিয়ে থাকলেও পাসের হারের দিক দিয়ে ভালো করছেন মেয়েরা। রাজশাহী শিক্ষা বোর্ড থেকে জেলা ভিত্তিক প্রাপ্ত ফলাফল বিশ্লেষণে দেখা যায়, এবছর চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলায় ৯ হাজার ৩৭৮জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাস করেছে ৬ হাজার ৭৪৮জন। পাসের হার শতকরা ৭১ দশমিক ৯৬। জিপিএ ৫ পেয়েছে ২২১ জন। ফলাফলে দেখা যায়, এবছর ৫ হাজার ৬৫ জন ছেলে পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাস করেছে ৩ হাজার ৪৭২ জন। পাসের শতকরা হার ৬৮ দশমিক ৫৫ জন। জিপিএ-৫ পেয়েছে ১২৬ জন। অন্যদিকে এবছর মেয়ে পরীক্ষার্থী ছিলো ৪ হাজার ৩১০ জন, এর মধ্যে পাস করছে ৩ হাজার ২৭৬ জন। পাসের শতকরা হার ৭৬ দশমিক ০১। কলেজ ভিত্তিক ফলাফলে এবারও নবাবগঞ্জ সরকারি কলেজ শীর্ষে রয়েছে। এবার মোট পরীক্ষার্থী ছিল ৯৫৪জন, এদের মধ্যে পাস করেছে ৮৮১জন। পাসের হার ৯২.৩৫ভাগ। এর মধ্যে বাণিজ্য বিভাগে পরীক্ষার্থী ছিল ২০৪ জন, পাস করেছে ১৭২ জন জন,জিপিএ-৫ পেয়েছে ২ জন। অপর দিকে মানবিক বিভিাগে মোট পরীক্ষার্থী ছিল ২৭৭ জন, এর মধ্যে পাস করেছে ২৩৯ জন। এদের মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে ১১জন। এছাড়া বিজ্ঞান বিভাগ থেকে পরীক্ষায় অংশ নেয় ৪৯০জন। এর মধ্যে পাস করেছে ৪৭০ জন এবং জিপিএ-৫ পেয়েছে ১৪৭জন। মহিলা সরকারি কলেজ থেকে এবছর পরীক্ষা দিয়েছিল মোট ৪৭৮ জন। এর মধ্যে পাস করেছে ৩৩৩ জন। এদের মধ্যে বিজ্ঞান বিভাগ থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে ২জন। পাসের হার ৬৯.৬৯ ভাগ। শাহনেয়ামতুল্লাহ কলেজের ৪০২ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাস করেছে ২৩২ জন, শতকরা পাসের হার ৬৬ জন। মহিপুর কলেজের ৩০২ পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাস করেছে ২০৪ জন, শতকরা পাসের হার ৬৮ জন। বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দীন জাহাঙ্গীর কলেজে পাস করেছে ৩৪ জন এবছর এই কলেজ থেকে পরীক্ষায় বসেছিলো ৭৫ জন। পাসের শতকরা হার ৪৮ জন। কালবালা কলেজে এবছর পরীক্ষার্থী ছিলো ৯৪জন, এর মধ্যে পাস করেছে ৭৩ জন। এর মধ্যে জিপিএ ৫ পেয়েছেন ১জন। সিটি কলেজে এবছর পরীক্ষার্থী ছিলো ৪৩০ জন, এর মধ্যে পাস করেছে ৩০৬জন। পাসের শতকরা হার ৭১ । আমনুরা কলেজের ৬৪ পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাস করেছে ৪৪ জন, পাসের শতকরা হার ৬৭দশমিক ৬৯ জন। সামাদ কলেজের ১১০ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাস করেছে ৮২ শিক্ষার্থী, পাসের শতকরা হার ৭০ দশমিক ০৯ জন। আলবক্স কলেজের ১৩৭ পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাস করেছে ৮২ জন, দেবীনগর কলেজের ১১৩ পরীক্ষার্থীর মদ্যে পাস করেছে ৮৩ জন। পাসের শতকরা হার ৭৩ দশমিক ৪০ জন। কেজিপুর কলেজের ১৪৩ পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাস করেছে ১১২ জন। পাসের শতকরা হার ৭৮.৩২ জন। জিপিএ ৫ পেয়েছে ৩ জন।

ভোলাহাট প্রতিনিধি:
ভোলাহাটে এবার এইচএসসি পরীক্ষায় পাশের হার ৬৬.১৩ এবং কারিগরি কলেজে ৯৭.৯৩। জানা গেছে, উপজেলার মোট ৫টি কলেজ ও ৪টি কারিগরি কলেজে এবারের এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষায় মোট ৭শত ৪জন পরীক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নিয়ে পাশ করে ৫শত ২৭জন। জিপিএ-৫ পেয়েছে ২৭জন। সর্বোচ্চ ফলাফল করেছে ভোলাহাট মোহবুল্লাহ মহাবিদ্যালয়, পাশের হার ৭৫শতাংশ এবং ঝাউবোনা কারিগরি মডেল টেকনিক্যাল এন্ড বিএম ইনষ্টিটিউশনের পাশের হার শত ভাগ। কলেজ সূত্রে জানা যায়, ভোলাহাট মোহবুল্লাহ মহাবিদ্যালয় থেকে মোট ১৭৬জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ১৩৫জন এবং জিপিএ-৫ পেয়েছে ৪জন, ভোলাহাট মহিলা ডিগ্রী কলেজ থেকে মোট ১শত ১৩জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ৮০জন পাশ করেছে এবং জিপিএ-৫ পেয়েছে ২জন, ভোলাহাট কলেজ ২১জনের মধ্যে ১৫জন এবং জিপিএ-৫ পেয়েছে ১জন, জামবাড়ীয়া কলেজে মোট পরীক্ষার্থী ৫৪জনের মধ্যে পাশ করেছে ৩১জন। অপরদিকে কারিগরি কলেজের মধ্যে ঝাউবোনা কারিগরি মডেল টেকনিক্যাল এন্ড বিএম ইনষ্টিটিউশনের মোট ৪৬জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ৪৬জন পাশ করেছে এবং জিপিএ-৫ পেয়েছে ১৪জন, ড.শামশুর রহমান কারিগরি কলেজে মোট পরীক্ষার্থী ৫৭জনের মধ্যে ৫৬জন পাশ করেছে, খালেআলমপুর কারিগরি কলেজে মোট পরীক্ষার্থী ৪২জন পাশ করেছে ৪০জন জিপিএ-৫ পেয়েছে ৬জন।
নাচোলে এইচএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পেয়েছে ১৯জন
নাচোল প্রতিনিধি ঃ
নাচোলে এবছর এইচএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পেছে ১৯জন। গতকাল প্রকাশিত ফলাফলে উপজেলার ৮টি কলেজ থেকে মোট ৮শ’৭৮ জন পরীক্ষার্থী অংশ গ্রহণ করে । এতে ৬শ’৮৪জন পরীক্ষার্থী কৃতকার্য হয়। জিপিএ-৫ প্রাপ্ত ১৯ জনের মধ্যে নাচোল ডিগ্রী কলেজ ১জন, মহিলা ডিগ্রী কলেজ ৫জন,রাজবাড়ী কলেজ ১২জন এবং সোনাইচন্ডি কলেজ থেকে ১জন ।
গোমস্তাপুরে এবার এইচএসসিতে জিপিএ-৫ পেয়েছে মাত্র ৬ জন
গোমস্তাপুর প্রতিনিধি ঃ
চাঁপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুরে এবার এইচএসসিতে মাত্র ৬ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে। এর মধ্যে রহনপুর ইউসুফ আলী কলেজ ও চৌডালা জহুর আহমেদ মিঞা কলেজ থেকে ৩ জন করে, রহনপুর মহিলা কলেজ, আলিনগর স্কুল ও কলেজ এবং বাঙ্গাবাড়ী ও স্কুল কলেজ থেকে ১ জন করে জিপিএ পেয়েছে। উপজেলার ৯টি কলেজের মধ্যে ৪ টি কলেজ থেকে কেউ জিপিএ-৫ পায়নি। এছাড়া আলিম পরীক্ষায় প্রসাদপুর ফাজিল মাদ্রাসা থেকে ২ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে। এদিকে এবার উপজেলায় এইচএসএসির ফলাফলে বিপর্যয় হয়েছে বলে জানিয়েছে শিক্ষা সংশ্লিষ্টরা।