স্কুলছাত্রী কনিকা হত্যা ক্ষোভে ফুঁসছে গোটা মহিপুর, ঘাতকের ফাঁসির দাবিতে সড়ক অবরোধ ও মানববন্ধন

114

chapainawabganj news pic 28-05-16 abdur rob nahid (Small)

চাঁপাইনবাবগঞ্জের মহিপুরে স্কুলছাত্রী কনিকা রানী ঘোষ হত্যাকান্ডের ঘটনার পরের দিন, শনিবার ঘাতক মালেকের ফাঁসির দাবিতে রাজপথে নেমেছিলো কনিকার সহপাঠীসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা। শুধু শিক্ষার্থীরা নয়, এই হত্যাকান্ডের ঘটনায় যেন ক্ষোভে ফুঁসছে মহিপুরের মানুষ। এসেছিলেন তারা সবাই এক হয়ে বিচার চাইতে, প্রতিবাদ জানাতে। কারো কাছে ছিলো ঘাতক মালেকের ফাঁসির ছবি, কেউ লিখে এনেছিলেন নিজের খাতার পাতা ছিঁড়ে, কনিকার খুনির ফাঁসি চাই।
সকাল ১০ টা থেকে বেলা সাড়ে ১১ টা পর্যন্ত চাঁপাইনবাবগঞ্জ-রহনপুর সড়ক অবরোধ করে মহিপুর বাজারে এ কর্মসূচি পালিত হয়। কর্মসূচি চলাকালে চাঁপাইনবাবগঞ্জ-রহনপুর সড়কের দুদিকে অসংখ্য যানবাহন আটকে পড়ে।

আদালতে ঘাতক মালেকের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী

এই সময় সমাবেশে বক্তব্য দেন গোবরাতলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আরাফুল ইসলাম আজিজি, নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান আসজাদুর রহমান মান্নু, মহিপুর এসএএম দ্বি-মুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শফিকুল আলম, গোবরাতলা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মজিবুর রহমান, বেহুলা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক তালেবুর রহমান প্রমূখ। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন, মহিপুর কলেজের অধ্যক্ষ একরামুল হক, জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আমিনুল ইসলাম, মহিপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নুরুসসালাম। বক্তরা ঘটনার সঙ্গে জড়িত মাদকাসক্ত বখাটে যুবক আব্দুল মালেকের ফাঁসির দাবি জানিয়ে বলেন, এমন নৃশংস ঘটনা এর আগে এলাকায় ঘটেনি। সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে পথে-ঘাটে মেয়েদের উত্যক্তকারী ও মাদকসেবী বখাটেদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে, আমাদের এলাকাকে মাদকমুক্ত করতে হবে। এই সময় তারা মাদকদ্রব্যের সহজলভ্যতার জন্য এমন ঘটনা ঘটেছে। শুধু মহিপুরে নয় প্রতিবাদ কর্মসূচী পালিত হয়েছে চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌর এলাকার নয়াগোলায়। নয়াগোলা উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী-শিক্ষকরা সকাল সাড়ে ৮ টার দিকে বিদ্যালয়ের সামনের সড়কে মানববন্ধন করে। এসয় বক্তব্য দেন বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি মুহম্মদ মাহতাব উদ্দিন, প্রধান শিক্ষক মোফাখখরুল ইসলাম প্রমূখ।
এদিকে হামলাকারী আবদুল মালেকের বিরুদ্ধে শুক্রবার রাতে হত্যা মামলা দায়ের করেছেন নিহত কনিকা রাণীর মা অঞ্জলী রানী ।
সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাযহারুল ইসলাম জানান, চাঁপাইনবাবগঞ্জের বিচারিক হাকিম জুয়েল অধিকারীর কাছে আব্দুল মালেক স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দিয়েছেন। তাঁকে আদালতের মাধ্যমে জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে।