চাঁপাইনবাবগঞ্জে আম উৎপাদনে ক্ষতিকর রাসায়নিক দ্রব্য ব্যবহার নিরুৎসাহিতকরণ শীর্ষক কর্মশালা অনুষ্ঠিত

105

Chapainawabganj picture 28-05-2016 (Small)

চাঁপাইনবাবগঞ্জে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উদ্যোগে গতকাল শনিবার আম উৎপাদনে ক্ষতিকর রাসায়নিক দ্রব্য ব্যবহার নিরুৎসাহিতকরণে উদ্বুদ্ধকরণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়।
বেলা পৌনে ১টায় জেলা শিল্পকলা একাডমী মিলনায়তনে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্মদ তৌফিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি’র বক্তব্য রাখেন কৃষি মন্ত্রণালয়ের (সম্প্রসারণ উইং) অতিরিক্ত সচিব মো. মোশারফ হোসেন। বিশেষ অতিথি’র বক্তব্য রাখেন কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর খামারবাড়ীর মহাপরিচালক মো. হামিদুর রহমান, অতিরিক্ত উপ-পরিচালক রসায়নবিদ আতাউর রহমান। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন, জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মো. সাজদার রহমান। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, রাজশাহী অঞ্চলের অতিরিক্ত পরিচালক মোহাম্মদ ফজলুর রহমান, আঞ্চলিক উদ্যানতত্ত্ব গবেষণা কেন্দ্র মুখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. হামিম রেজা, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মির্জা শাকিলা দিল হাছিন, আমচাষী কাজী সেতাউর রহমান, কামরুন নাহার, মোজাম্মেল হক চুটু প্রমুখ।
প্রধান অতিথি তাঁর বক্তব্যে বলেন, আম পাকানো ও সংরক্ষণে ক্ষতিকর রাসায়নিক দ্রব্য ব্যবহার করলে আমের গুণাগুণ হ্রাস পাবে। তাছাড়া জনস্বাস্থ্য ও পরিবেশের ক্ষতির আশংকা দেখা দিতে পারে। কাজেই সঠিক উৎপাদন ব্যবস্থা ও সুষ্ঠু বাজার ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে আমের উৎপাদন ও বাণিজ্যিক মূল্য বাড়ানো সম্ভব।
কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর খামারবাড়ীর মহাপরিচালক মো. হামিদুর রহমান বলেন-গাছে আম পরিপক্ক হলেই আম পাকতে শুরু করে। কাজেই আমে কার্বাইড দিয়ে আম পাকানোর প্রয়োজন নেই। তিনি বলেন-গরম পানিতে পরিমিত সময়ে ডুবিয়ে (হটওয়াটার ট্রিটমেন্ট) ভালো ধুয়ে মুছে নিয়ে আম সংরক্ষণ করা যায়। আমাদেরকে এখন রপ্তানি যোগ্য আম উৎপাদন করতে হবে। তিনি বলেন-চাঁপাইনবাবগঞ্জে বলা হয় আমের রাজধানী, এই জেলায় যেসব সুস্বাদু আম উৎপান হয় তা বিশ্বের কোথা এমন আম পাওয়া যায় না। তাই আমাদের আম চাষী, ব্যবসায়িদের কাছে পরামর্শ, আপনারা জনস্বাস্থ্যের ক্ষতি হয় এমন কোন কেমিক্যাল ব্যবহার করবেন না।
জেলার সরকারি-বেসরকারি পর্যায়ের বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তাসহ আমচাষীগণ কর্মশালায় অংশগ্রহণ করেন।