অপেক্ষায় পপি

04-

জনপ্রিয় নায়িকা পপি দীর্ঘদিন ধরে বড় পর্দায় নেই। তবে কিছুদিন আগে তিনি একটি বিস্কুট উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানের শুভেচ্ছাদূত হিসেবে বিজ্ঞাপনের মডেল হয়ে কাজ করেছেন। মুহাম্মাদ মোস্তফা কামাল রাজের পরিচালনায় বিজ্ঞাপনটি বর্তমানে বিভিন্ন চ্যানেলে প্রচার চলছে। তবে সেটাও বেশি সময় ধরে টিভিতে প্রচার হচ্ছে না বলে খোশ মেজাজে নেই তিনি।
এ প্রসঙ্গে পপি বলেন, বেশ আয়োজন নিয়ে কিছুদিন আগে এফডিসিতে এ বিজ্ঞাপনের শুটিং শেষ করলাম। তবে টিভিতে খুব অল্পই প্রচার করা হচ্ছে বিজ্ঞাপনটি। বিভিন্ন চ্যানেলে আরও ভালোভাবে এর প্রচার আশা করেছিলাম। এদিকে দীর্ঘদিন ধরে অভিনয় থেকে দূরে রয়েছেন পপি। তবে তিনি ভালো কাজের অপেক্ষায় রয়েছেন বলে জানান। একজন সিনিয়র অভিনয়শিল্পী হিসেবে তিনি এ প্রসঙ্গে বলেন, এ সময়ে এসে সস্তা কাহিনীর ছবিতে কাজ করতে চাই না আমি। কয়েক বছর ধরেই চেষ্টা করেছি ভিন্নধর্মী ছবিতে কাজ করার। নতুন ছবির প্রস্তাব পেলেও মনের মতো গল্প বা কাহিনী পাচ্ছি না। তাই বলতে গেলে অপেক্ষায় রয়েছি। এরমধ্যে ‘সোনাবন্ধু’ ছবির কাজ শেষ করেছি। আশা করি ছবিটি সকলের ভালো লাগবে। ত্রিভুজ প্রেমের গল্প নিয়ে মাহবুবা শাহরীনের ‘হতাই’ উপন্যাস অবলম্বনে ‘সোনাবন্ধু’ ছবির কাজ শেষ পর্যায়ে রয়েছে বলে জানা যায়। এ ছবিতে তার সহশিল্পী হিসেবে কাজ করছেন ডিএ তায়েব ও পরীমনি। তপন বসাকের প্রযোজনা ও শুভ টেলিফিল্মসের ব্যানারে নির্মিত ‘সোনাবন্ধু’ চলচ্চিত্রটি পরিচালনা করেছেন জাহাঙ্গীর আলম সুমন। একজন অভিনেত্রী রাত-দিন যেমন শুটিংয়ে ব্যস্ত থাকবেন ঠিক তেমনি ভালো চরিত্রের জন্য অপেক্ষাও করবেন বলে জানালেন পপি। এ বিষয়ে তিনি আরও বলেন, অভিনয়শিল্পী কখনোই অভিনয় থেকে দূরে থাকতে পারেন না। আমিও চাই না। তাই ভালো কিছুর জন্য অপেক্ষা করছি। দর্শককে ঠকাতে চাই না। তিনবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার বিজয়ী এ অভিনেত্রী ঈদের জন্য বিশেষ নাটকে কাজ করবেন কিনা জানতে চাইলে বলেন, জনপ্রিয়তার ¯্রােতে গা ভাসিয়ে দিতে কখনোই চাইনি। ছোট পর্দায় অনেক ভালো মানের নাটক ও টেলিছবি নির্মিত হয়। সিনেমার শিডিউলের ফাঁকে বেশ কিছু নাটক ও টেলিছবিতে এর আগেও অভিনয় করেছি। এখন পর্যন্ত এবারের ঈদের জন্য কোনো টিভি নাটক বা টেলিছবিতে অভিনয় করা হয়নি। তবে কিছু কাজের কথা চলছে, ব্যাটে-বলে মিললে করতেও পারি। পপি অভিনীত কিছু ছবি মুক্তির অপেক্ষায় রয়েছে। এগুলো হলো ‘পৌষ মাসের পিরিতি’, ‘শর্টকাটে বড়লোক’, ‘লীলামন্থন’, ‘দুই ভাইয়ের যুদ্ধ’ ও ‘জীবন যন্ত্রণা’। এ ছবিগুলো মুক্তির অপেক্ষায় রয়েছেন পপি। তবে চলচ্চিত্রের বর্তমান অবস্থা সুখকর না। তাই পপির মতে, এখন ছবির সংখ্যা বাড়লেও ভালো কাজ তেমন চোখে পড়ছে না। গল্পের ধাঁচে নতুনত্ব নেই। নতুন অনেক প্রযুক্তি এসেছে কিন্তু আমরা বদলাতে পারিনি। আমাদেরও বদলাতে হবে। গান, লোকেশন, হলের পরিবেশ এবং ছবির মানসম্পন্ন গল্প বেশি প্রয়োজন। তাই বর্তমানে ছবির সংখ্যা কমিয়ে ভালো কাজই সামনে করার ইচ্ছে আছে আমার। বাংলা ছবির দর্শককে আবার হলমুখী করতে চান পপি। তাই বর্তমানে সেই হিসাব কষেই নতুন ছবিতে হাত দেবেন বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।