আজ বিশ্ব পানি দিবস

78

5yf8sgআজ (২২ মার্চ) বিশ্ব পানি দিবস। প্রতি বছরের মতো এবারও বিশুদ্ধ পানি নিয়ে অনেক বক্তৃতা হবে; সভা সেমিনার হবে; নদী বাঁচানোর তাগিদ আসবে, কিন্তু কাজের কাজ কতটুকুও হবে? আমাদের পানির আধার নদীগুলো মরে যাচ্ছে। দূষণ দখলের কবল থেকে নদীগুলো আর বাঁচানো যাচ্ছে না। অথচ এ নদীগুলোই দেশের প্রাণ। প্রতিদিনই দূষণ বাড়ছে; বাড়ছে দখলদারদের সংখ্যাও। রাজধানী ঢাকার পরিবেষ্টিত নদীগুলোও দূষণের হাত থেকে রক্ষার শত চেষ্টা বিফলে যাচ্ছে। বাংলাদেশে পানীয় জল-সমস্যার কারণ বিবিধ। কিন্তু প্রায় সব কারণই মানুষের তৈরি। কারন গুলো কি?
১. বাংলাদেশের জনবিস্ফোরণ এই সমস্যার অন্যতম কারণ। বছর-প্রতি বাংলাদেশের জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার ২.০৭%, বছর-প্রতি এই বিপুল হারে জনসংখ্যা বৃদ্ধি পেতে থাকলেও জলসম্পদ কিন্তু একই থাকছে। ফলে অদূর ভবিষ্যতে প্রচুর মানুষ জলাভাবে পড়বে।
২. সাধারণ মানুষের দায়িত্বহীনটাও জল-সমস্যার অন্যতম কারণ। এই ভোগবাদী সমাজে সকলেই কেবল নিজের স্বার্থ দেখে। আগামী প্রজন্মের দিকে নজর না রেখে নিজের স্বাচ্ছন্দ্যের জন্য জলের ব্যাপারে হয় অমিতব্যয়ী। ফলে জলসম্পদ আজ খাদের কিনাওে এস পৌঁচেছে।
৩. দ্রুত নগরায়ন ঘটানোও এর এক অন্যতম কারণ। কোন নগরে একসাথে বহু লোক বসবাস করায় সেই অঞ্চলের সীমিত জলের ভাঁড়ারে টান পড়ে। ফলে জল-সমস্যা দেখা দেয়।
৪. আরও এক অন্যতম কারণ, আমাদের দেশের বেশ কিছু অংশে ভূপৃষ্ঠ জলরাশি ব্যবহার না করে ভূগর্ভের জল ব্যবহার করে পাম্পের সাহায্যে উপরে এনে জমিতে ব্যবহার করা।
প্রশ্ন হলো পানীয় জল-সমস্যার সমাধানের উপায় কি?
১. বৃষ্টির পানির ব্যবহগার বাড়াতে হবে। বৃষ্টির জল সংগ্রহ। আমরা একটা খুব সহজ উপায়ে বৃষ্টির জলকে সংগ্রহ, সঞ্চয় ও পরিশুদ্ধ করে পানীয় জল হিসেবে ব্যবহার করতে পারি। ছাদে জমা বৃষ্টির জল পাইপের মাধ্যমে একটি ট্যাঙ্কে পাঠানো যেতে পারে। ছাদে পড়ে থাকা শুকনো পাতা, ধুলো, ইত্যাদি যাতে মাটির নিচের জলাধারে না ঢোকে, তার জন্য একটি জালি পাইপের মুখে বসাতে হবে। এই জলকে খাওয়ার উপযোগী করে তুলতে পরিশোধন করতে হবে। এক চামচ বি¬চিং পাউডার দিয়ে ২০০ লিটার জল বা একটা ০.৫ গ্রাম ক্লোরিন ট্যাবলেট দিয়ে ২০ লিটার জল পরিশুদ্ধ করা যায়। তবে সতর্কতা হিসেবে বৃষ্টির প্রথম ১০-১৫ মিনিটের জল সংগ্রহ না করাই উচিত। তাতে নানা দূষণের সম্ভাবনা থাকে, ২. সেচের কাজে ভূগর্ভের জল ব্যবহার কম করা, যেখানে সম্ভব সেখানে ভূগর্ভের পানীয় জল সেচের কাজে না লাগিয়ে, খাল কেটে নিকটস্থ বিল, নদী বা জলাশয় থেকে জল এনে সেচের কাজে লাগানো যেতে পারে। সরকারকেই এই ব্যাপারে উদ্যোগ নিতে হবে, ৩. বৃষ্টির জলকে ভূগর্ভে পাঠানো,Í লোহা-কংক্রিট এ ভরা এই শহরে বৃষ্টির জল মাটির ছোঁয়া পায় না। সেই জল ড্রেনের মাধ্যমে নদী হয়ে সাগরে চলে যায়। ফলে এই জল ভূপৃষ্ঠেই থেকে যায়, ভূগর্ভে আর যায় না। তাই কৃত্রিম ভাবে বৃষ্টিখাত তৈরি করে সেখানে কুয়ো তৈরি করে দ্রুত বৃষ্টির জলের কিছু অংশ ভূগর্ভে চালান করে প্রাকৃতিক ভাবে সংরক্ষণ করতে পারি। যদিও কাজ জটিল , পরিবেশ রক্ষার স্বার্থে তা করা জরুরী, ৪. পানির আধার গুলো (নদী) দুষিত না করা। নদী গুলোকে দুষণ মুক্ত করতে হবে। নদীর পানির ব্যবহার বাড়াতে হবে।
এদেশে পানি নিয়ে আলোচনা আর গবেষণা হয় খুব কম। এ ভয়ঙ্কর সমস্যাটির দিকে এখনই আলোকপাত না করলে ভবিষ্যতে এর ফল হবে মারাত্মক। বৃষ্টির জল সংরক্ষণ এর জন্য আমাদেও পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতের ৭ টি রাজ্যে ইতোমধ্যে আইন প্রণয়ন করা হয়েছে। সেখানে বৃষ্টির পানি সংরক্ষনে মানুষ সচেষ্ট হয়ে উঠেছে। আমাদেরও দেশেও এ জাতিয় আইন করা যেতে পারে। জল-সমস্যার মুক্তির সহজ পথকে দেশের মানুষের মন থেকে গ্রহণ করতে হবে। নইলে আমরা “জলের দরে” এই প্রবচনটাকেও আর ব্যবহার করতে পারব না।
পৃথিবীর চারভাগের মধ্যে তিনভাগ জল। কিন্তু এই বিশাল পরিমাণ জলের মধ্যে মাত্র ২ শতাংশ জল পান করার যোগ্য। আবার এই পানীয় জলের একটা বড় অংশই রয়েছে বরফ হিসেবে। এই অ-লবণাক্ত পানীয় জলের বাকি অংশ রয়েছে ভূপৃষ্ঠে ও ভূগর্ভে। আমরা প্রধানত পানীয় জল হিসেবে এই ভূগর্ভস্থ জল ব্যবহার করি। এই জলের ৮৩% জল ব্যবহার হয় কৃষিকার্যে ও বাকি ১৭% শিল্প , গৃহস্থালি ও পানীয় জল হিসেবে। তাই পৃথিবীর জলসম্পদ যা অফুরন্ত উৎস হিসেবে গণ্য হত তা আজ বিরল সম্পদে পরিণত হচ্ছে। আগামী ২০২৫ সালের মধ্যে গোটা পৃথিবীর দুই তৃতীয়াংশ মানুষ পানীয় জলের অভাবের মুখোমুখি হবে। বিশ্ব মানব কুলের তখন কি হবে?
বাংলাদেশ, বিশেষ করে রাজধানী ঢাকায় পানির সংকট অত্যন্ত প্রবল। আবর্জনা, কলকারখানার বর্জ্য, মলমূত্র নদীনালায় পড়ে পানীয় জলকে দূষিত করছে অনবরত। বুড়িগঙ্গা ও শীতলক্ষার চারপাশে দেখা যায় আবর্জনার স্তুপের পাশাপাশি ও অসংখ্য শৌচাগার। নদীর তীরে বসবাসকারী মানুষরা গৃহস্থালির বর্জ্য নদীতে ফেলে ভরিয়ে ফেলছেন। এই সব আবর্জনা পচে অবস্থাকে আরো সঙ্গিন করে তুলছে। এমনকি রাজধানীর লেকগুলিও দূষণের হাত থেকে রক্ষা পাচ্ছে না। ওয়াসার পানিতেও ভীষণ দূষণ। পানি সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান ওয়াসার ওপরও নির্ভর করতে পারছে না মানুষ। পাইপ দিয়ে দুর্গন্ধময় নোংরা পানি ও বর্জ্য আসছে। অনেক ক্ষেত্রে পাইপে ছিদ্র হয়েও এরকমটি ঘটে থাকে। গ্রীষ্মকালে অবস্থাটা চরমে ওঠে। এই পানি পান বা ব্যবহার করে কলেরা, ডায়রিয়া, টাইফয়েড, জন্ডিস, চর্মরোগ ইত্যাদি অসুখ বিসুখে আক্রান্ত হচ্ছে মানুষ। হাসপাতালগুলিও সামলাতে পারে না রোগীর চাপ। ঢাকা ওয়াসার পানি দূষিত হওয়ার অনেক কারণের মধ্যে ৪টি প্রধান কারণ বলা যেতে পারে। তা হলো, (১) ভূগর্ভস্থ পানি ছাড়া নদী থেকে সরবরাহ করা পানি সঠিক উপায়ে শোধন না করা, পানির জলাধারগুলো রক্ষণাবেক্ষণ না করা তদুপরি শোধনাগারে পানি শোধনের সময় সঠিক পরিমাণে শোধন কেমিক্যাল না দেয়া, (২) পর্যাপ্ত দূরত্ব রক্ষা না করে সমান্তরালে পানির লাইন ও পয়ঃনিষ্কাশন লাইন স্থাপন, নাগরিক সচেতনতার অভাব এবং ওভারহেড ট্যাঙ্ক নিয়মিত পরিষ্কার না করা। ঢাকা শহরের বহু পানি ও পয়ঃনিষ্কাশন লাইন যুগ-প্রাচীন। সেই কবে স্থাপন করা হয়েছে। এরপর জোড়াতালি ছাড়া কার্যত কিছু করা হয়নি। তদুপরি অনেক ক্ষেত্রে লাইনগুলো গায়ে গায়ে লাগানো। ফলে কোনো কারণে দুটি লাইনের কোনো একটি অংশ ফেটে বা ভেঙে গেলে খাবার পানির সঙ্গে ময়লা আবর্জনা মিশে যায়, (৩) অনেক সময় রাস্তার পাশের বাসিন্দা পানি বা সুয়্যারেজ লাইন নেয়ার জন্য লোক নিয়োগ করেন। অনেক ক্ষেত্রে তারা থাকে অদক্ষ। ফলে কোদাল চালাতে গিয়েও পাইপ ফেটে যায়। খাবার পানির সঙ্গে ময়লা মিশ্রিত হওয়ার ক্ষেত্র প্রস্তুত হয়, (৪) ওভারহেড ট্যাঙ্ক নিয়মিত পরিষ্কার না করাও পানি দূষিত হয়ে পড়ার জন্য কম দায়ী নয়। এর ফলে ট্যাঙ্কে শুধু শেওলা জমা হয় না, ইঁদুর-বিড়াল পড়ে ও পচে-গলে পানি দূষিত ও দুর্গন্ধযুক্ত করে। অথচ কি গরম কি শীত! সারাক্ষণই মনে হয় গলাটা যদি একটু ভেজানো যেত। কিন্তু সেখানেই বিপত্তি। যেখানে সেখানের পানি দিয়ে তো আর তৃষ্ণা মেটানো যায় না। কেননা, পানি বিশুদ্ধ না হলে রয়েছে নানা রোগে আক্রান্ত হওয়ার ভয়। আর গরমে পানিবাহিত রোগের প্রাদুর্ভাব যে সবচেয়ে বেশি তা সবারই জানা। নিজের স্বাস্থ্য রক্ষার খাতিরে দূষিত পানি পান না করে পানির বিশুদ্ধতা রক্ষা করার সর্বাত্মক চেষ্টা করা দরকার সবার। এ ব্যাপারে ঢাকা ওয়াসার করণীয় সবচেয়ে বেশি।সার্বিকভাবে ঢাকা শহরের আসন্ন পানি সঙ্কট নিয়ে শিগগির কোনো উদ্যোগ না নিলে তা আস্তে আস্তে ভয়াবহ রূপ ধারণ করবে। কথায় আছে দেয়ালে পিঠ না ঠেকলে আমরা সচেতন হই না। ঢাকার পানি সমস্যার সাথে ওয়াসা তথা সরকারের পদক্ষেপ দেখে কিন্তু তারই প্রমাণ মেলে। কিন্তু আমরা চাই জীবন রক্ষাকারী পানীয় জলের সমস্যার সঠিক সমাধান। পানির সঙ্কট না মিটলে ঢাকাবাসীই অসুস্থ হয়ে পরবে না সমস্যায় পড়বে সরকারও।
পানির সমস্যা যে কেবল বাংলাদেশের তা অবশ্য নয়। বলতে গেলে সমস্যাটি বিশ্বব্যাপী। বলা হয়ে থাকে যে, তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ যদি কখনও বাঁধে তা হলে তাা বাঁধবে পানি নিয়ে। বিশ্ব জুড়িয়া পানি সংকটের কারণ যতটা না প্রকৃতিগত, তার চাইতে অনেকবেশি মনুষ্যসৃষ্ট। বিশ্বের ২৬০টি দীর্ঘ ও বৃহত্ নদী দুই বা ততোধিক দেশের মধ্য দিয়া প্রবাহিত। নদ-নদীর পানি ব্যবস্থাপনা ছাড়াও পরিবেশ-প্রতিবেশগত আরও নানান কারণে দুনিয়ার দেশেদেশে বিশুদ্ধ পানির সমস্যা প্রকট হয়ে দেখা দিয়েছে এরই মধ্যে। ওয়ার্ল্ড ওয়াটার কাউন্সিলের হিসাব অনুযায়ী বিশ্বের ১ শত ১০ কোটি মানুষ আজ সুপেয় পানির অধিকার হতে বঞ্চিত। পৃথিবীতে প্রতিদিন গড়ে ৩৯ হাজার শিশু মারা যায় পানিবাহিত রোগে। ডায়রিয়ায় মারা যায় ১০ লাখ ৮০ হাজার মানুষ। বলাবাহুল্য, ডায়রিয়া রোগের প্রধান কারণ দূষিত পানি। ইতোমধ্যে বিশ্বের ৮৯ শতাংশ মানুষ পরিষ্কার পানি পাচ্ছেন। বিশেষ করে চীন ও ভারতে অর্থনৈতিক অবস্থার উন্নতির সাথে সাথে পানি সরবরাহেরও উন্নতি হয়েছে। ২০১৫ সাল নাগাদ ৯২ শতাংশ মানুষের কাছে পরিষ্কার পানি পৌঁছে দেয়া যাবে বলে আশা ব্যক্ত করেছিলো জাতিসংঘ। কিন্তু সে লক্ষে এখনও পৌঁছা যায়নি। বিশ্বের জনসাধারণের একটা বিরাট অংশ অর্থাৎ ১১ শতাংশ মানুষ বিশুদ্ধ পানি পান থেকে বঞ্চিত। অন্য কথায় পৃথিবীর প্রায় ৮০ কোটি (৭৮৩ মিলিয়ন) মানুষ প্রতিদিন দূষিত পানি পান করছে। জাতিসংঘে সুপেয় পানির অধিকারকে মানবাধিকার হিসাবে স্বীকৃতি দেয়া হলেও ‘ সেখানে লক্ষ্য করা যায় যে, শুধু কাগজে কলমে আইন করে কাজ হয় না। আমার মনে হয় এটা অত্যন্ত জটিল বিষয়, যার বাস্তবায়নও সহজ নয়। এজন্য প্রয়োজন বিশেষ কলাকৌশলের।
-লেখক- মীর আব্দুল আলীম, সাংবাদিক, গবেষক ও কলামিষ্ট।