পাকিস্তানের বাচা খান বিশ্ববিদ্যালয়ে জঙ্গি হামলা

81

02-pakistan university

পাকিস্তানের খাইবার পাখতুনখোয়া প্রদেশে বাচা খান বিশ্ববিদ্যালয়ে বন্দুকবাজদের হামলায় অধ্যাপকসহ নিহত হয়েছে ২১ জন। আহত হয়েছেন অন্তত ৫০ জন। বুধবার খাইবার পাখতুনখোয়া প্রদেশের চারসাদ্দা শহরে অবস্থিত ওই বিশ্ববিদ্যালয়ে এ হামলার ঘটনা ঘটে বলে জানানো হয়েছে স্থানীয় সংবাদমাধ্যমের খবরে। নিহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে উদ্ধারকারী দলের এক কর্মকর্তা স্থানীয় একটি সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন, তিনি ৫০ থেকে ৬০ জনকে পড়ে থাকতে দেখেছেন। এর আগে উদ্ধার হওয়া এক শিক্ষার্থীও একই দাবি করেছিল। পড়ে থাকাদের সবার মাথায় গুলি লেগেছে বলে জানিয়েছেন ওই উদ্ধার কর্মকর্তা। বিশ্ববিদ্যালয়ের হোস্টেল ও ক্লাসরুমে চলছে হামলা। পেশোয়ারের সেনা স্কুলের পর এবার খাইবার পাকতুনখোয়ার বিশ্ববিদ্যালয়। ফের জঙ্গি নিশানায় পাকিস্তানের শিক্ষাঙ্গন। সকালে বাচা খান বিশ্ববিদ্যালয়ে ঢুকে বন্দুকবাজদের তান্ডব। ক্লাসরুম- হোস্টেলে ঢুকে নির্বিচারে গুলি চালাতে থাকে তাঁরা। পণবন্দি করে রাখা হয়েছে শতাধিক ছাত্র শিক্ষককে। একটি অনুষ্ঠান উপলক্ষে বুধবার ক্যাম্পাসে প্রায় ৩ হাজার পড়ুয়া ও ৬০০ অতিথি হাজির ছিলেন। রয়েছেন বিদেশি অতিথিরাও। ছাত্র-শিক্ষকদের নিশানা করে চলে গুলি বৃষ্টি। পাক মিডিয়া সূত্রে খবর জঙ্গিদের গুলিতে মৃত্যু হয়েছে বেশ কয়েকজন পড়ুয়া এবং অধ্যাপকের। খবর পেয়েই গোটা এলাকা ঘিরে ফেলেছে নিরাপত্তা কর্মীরা। চলছে গুলির লড়াই। একের পর এক বিস্ফোরণের শব্দ ভেসে আসছে ক্যাম্পাসের ভিতর থেকে। ২০১৪ সালের ডিসেম্বর মাসে পেশোয়ারের সেনা স্কুলে হামলা চালিয়ে ১৩৪ পডুয়াকে খুন করে তালিবানরা। পুলিশের ডিআইজি সাঈদ ওয়াজির বলেছেন, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিরাপত্তা বাহিনীর পাশাপাশি এসএসজি সদস্যরাও কাজ করছেন। বেশিরভাগ শিক্ষার্থীকে উদ্ধার করা গেলেও অজানা সংখ্যক হামলাকারী ক্যাম্পাসের ভেতরে অবস্থান করছে।