শেষ ওভারের রোমাঞ্চে আফগানদের জয়

117

07-AFGAN

শেষ ওভারের নাটকীয়তায় দুর্দান্ত এক জয় তুলে নিয়েছে আফগানিস্তান। দুই ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথমটিতে জিম্বাবুয়েকে ৫ রানে হারিয়েছে আসগার স্তানিকজাইয়ের দল।
শারজাহ ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে ৭ উইকেটে ১৮৭ রান করে আফগানিস্তান। জবাবে ধীরে ধীরে লক্ষ্যে এগোতে থাকা জিম্বাবুয়ের শেষ ওভারে দরকার ছিল ২১ রান।
শেষ ওভার করতে আসা দৌলত জাদরান একটি ‘ওয়াইড’ ও দুটি ‘নো বল’ দেন। আর সে সুযোগ কাজে লাগিয়ে আট নম্বরে ব্যাট করতে নামা লুক জংগুই একটি করে চার-ছক্কায় লড়াই জমিয়ে তোলেন। শেষ বলে দরকার ছিল ছক্কার, এখানে বিজয়ী জাদরান, জংগুইকে গুলবাদিন নাইবের ক্যাচ বানিয়ে দলকে দারুণ এক জয় এনে দেন।
৩২ রান খরচায় ৩ উইকেট নিয়ে জাদরানই আফগানদের সেরা বোলার।
শুরুতে উদ্বোধনী জুটিতে মোহাম্মদ শাহজাদ ও উসমান ঘানির নৈপুণ্যে আফগানিস্তানের ইনিংসের সূচনাটা হয় দারুণ, ৬.২ ওভারে ৬৩ রান করে তারা।
১৭ বলে ২টি চার ও ৩টি ছক্কায় ৩৩ রান করেন শাহজাদ। আর ঘানি ৩৮ বলে ৫টি চার ও ১টি ছক্কায় ৪২ রান করেন।
এরপর নিয়মিত বিরতিতে চারটি উইকেট হারালেও মোহাম্মদ নবি ও গুলবদিন নাইবের ঝড়ো ব্যাটিংয়ে বড় ইনিংস গড়ে আফগানরা।
নবি ১১ বলে ১টি চার ও ৩টি ছক্কায় ২৬ রান করেন। আর নাইব ২০ বলে ৩৭ রান করতে ২টি চার ও ৩টি ছক্কা মারেন। নয় নম্বরে নামা রশিদ খানের অবদানও কম নয়; ৫ বলে ১টি করে চার ও ছক্কায় ১৪ রান করে অপরাজিত।
স্পিনার গ্রায়েম ক্রেমার ১৭ রান খরচায় ৩ উইকেট নেন।
বড় লক্ষ্যে খেলতে নেমে শুরুতেই উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান পিটার মুরকে হারায় জিম্বাবুয়ে। এরপর হ্যামিল্টন মাসাকাদজা ও চামু চিবাবা প্রয়োজনীয় রানের গতি ধরে রাখলেও তারা ইনিংস বড় করতে পারেনি।
মাসাকাদজা ২৪ বলে ৩টি চার ও ২টি ছক্কায় ৩৩ রান করেন। আর চিবাবা ১০ বলে করেন ১৮ রান।
তবে মূলত একাই দলকে জয়ের পথে রাখেন ম্যালকম ওয়ালার। ৩৭ বলে ২টি করে চার ও ছক্কায় ৪৯ রান করে রোমাঞ্চকর জয়ের সম্ভাবনাও জাগান। কিন্তু শেষ পর্যন্ত পারেনি জিম্বাবুয়ে। ৭ উইকেটে ১৮২ রানে থেমে যায় স্বাগতিকদের ইনিংস।
ওয়ানডে সিরিজ জয়ের পর টি-টোয়েন্টি সিরিজেও তাই শুভসূচনা করলো আফগানিস্তান। একই মাঠে সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ টি-টোয়েন্টি হবে আগামী রোববার।