৪ ঘন্টা কার্যক্রম বন্ধ থাকার পর সোনামসজিদ স্থল বন্দর চালু

98

gourbangla logo৪ ঘন্টা বন্ধ থাকার পর সোনামসজিদ স্থলবন্দরে আমদানি-রপ্তানি কার্যক্রম শুরু হয়েছে। কাস্টমস ও সিএন্ডএফ এজেন্টেদের মধ্যে পণ্য ছাড় করণের বিষয়কে কেন্দ্র সোনামসজিদ স্থলবন্দরে প্রায় ৪ ঘন্টা সকল প্রকার আমদানি-রপ্তানি বন্ধ হয়ে যায়। সোনামসজিদ স্থলবন্দর সিএন্ডএফ এজেন্ট এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক শফিউর রহমান টানু জানান, কাস্টমস কর্মকর্তাদের সাথে সিএন্ডএফ এজেন্টের পণ্য ছাড়ের বিষয়কে কেন্দ্র করে দ্বন্দ্ব হওয়ার কারণে সিএন্ডএফ এজেন্টরা কলম বিরতি ঘোষণা করে। ফলে বৃধবার সকাল থেকে বন্দরে ভারতীয় পণ্য বোঝাই ট্রাক প্রবেশ বন্ধ হয়ে যায়। তিনি আরও জানান, কাস্টমস কর্তৃপক্ষদের সাথে আলাপ-আলোচনা পর বিকাল ৪টায় সমস্যার সমাধান হলে আমদানি-রপ্তানি কার্যক্রম পুনরায় শুরু হয়। হঠাৎ করে পণ্য ছাড় নিয়ে দ্বন্দ্বের বিষয়ে জানতে চাইলে সোনামসজিদ স্থল বন্দরে দায়িত্বরত সহকারী কাস্টমস কমিশনার ফখরুল আমিন চৌধুরী জানান, এ বন্দরে এলসির বাণিজ্য করেন এমন একজনের কাছ থেকে অন্যরাও একই এলসি কিনে নিয়ে পর্যায়ক্রমে ১০-১২ জন ব্যবহার করেন। ফলে প্রকৃত আমদানিকারককে চিহ্নিত করতে সমস্যায় পড়তে হয়। কাস্টমসের বিধান মোতাবেক সিএন্ডএফ এজেন্টের লাইন্সেস হস্তান্তর যোগ্য না হলেও সেটি অবৈধ ভাবে এ বন্দরে ব্যবহার করে থাকে। অথচ অধিকাংশ ক্ষেত্রে আমদানিকারকদের প্রোপার নমিনেশন থাকে না। তিনি আরও জানান, কাস্টমসের অনুমতি ছাড়া অধিকাংশ লোক কাস্টমস অফিসে প্রবেশ করে কাজের বিঘœ সৃষ্টি করে। ইতোপূর্বে লাইন্সেস প্রদানকারী কর্তৃপক্ষ নির্দেশ দেয়া শর্তেও পালন করছে না কতিপয় সিএন্ডএফ এজেন্ট। এঘটনার কারণ গত ৪ জানুয়ারী সিএন্ডএফ এজেন্টদের সাথে বন্দরের বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে আলোচনার সময় নির্ধারণ থাকলেও যথা সময়ে সিএন্ডএফ এজেন্টরা আলোচনায় বসেনি। এদিকে সিএন্ডএফ এজেন্ট এসোসিয়েশনের সভাপতি হারুণ অর-রশিদ ও সাধারণ সম্পাদক শফিউর রহমান টানুসহ কয়েকজনের সাথে যোগাযোগ করলে তারা জানান, গত ৪ জানুয়ারী কাস্টমস কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনায় বসতে বিলম্ব হওয়ায় সহকারী কমিশনার ফখরুল আমিন চৌধুরী সিএন্ডএফ এজেন্ট এসোসিয়েশনের সদস্যদের সাথে অসৌজন্যমূলক আচারণ করেন এবং আলোচনা সভা বন্ধ করে দেন। ফলে উদ্ভুত পরিস্থিতিতে সিএন্ডএফ এজেন্ট এসোসিয়েশন কলম বিরতি ঘোষণা করায় বুধবার সকাল থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত আমদানি-রপ্তানি বন্ধ রাখা হয়। পরে কাস্টমস কর্তৃপক্ষের সাথে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করে সমস্যার সমাধান হলে বিকাল ৪টা থেকে স্থলবন্দরে পূনরায় কার্যক্রম শুরু হয়।