ইরানের সঙ্গে সৌদির বাণিজ্যিক সম্পর্ক ছিন্ন

41

Saudi Foreign Minister Adel al-Jubeir attends a news conference after the South American-Arab Countries summit, in Riyadh November 11, 2015. REUTERS/Faisal Al Nasser

সৌদি আরব বলছে তারা ইরানের সাথে সব ধরনের বাণিজ্যিক সম্পর্ক ছিন্ন করছে। শিয়া নেতাকে মৃত্যুদ- দেওয়া নিয়ে দুই দেশের মধ্যে উত্তেজনা যে চরমে উঠেছে তারই প্রেক্ষিতে এখন বিমান যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করার কথাও বলেছে সৌদি আরব। রোববার ইরানের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করার ঘোষণা দিয়েছিল সৌদি আরব। সৌদি আরবের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আদেল আল জুবায়ের বার্তা সংস্থা রয়টার্সের সাথে এক সাক্ষাৎকারে বাণিজ্যিক সম্পর্ক ছেদ করার কথা বলেন। তবে তিনি আরো উল্লেখ করেন সৌদি আরবের মক্কা ও মদিনার পবিত্র স্থানে ইরানের নাগরিকরা যেতে পারবেন। শনিবার রাতে তেহরানে সৌদি দূতাবাসে হামলার জের ধরে তেহরানের সঙ্গে সব ধরনের যোগাযোগ বন্ধ করেছে সৌদি সরকার। ওই হামলার জন্য ইরান সরকারকে দায়ী করেছে রিয়াদ। শিয়া নেতা শেখ নিমর আল নিমরের শিরñেদের প্রতিবাদে শনিবার রাতে তেহরানের সৌদি দূতাবোসে অগ্নিসংযোগ করে বিক্ষুব্ধ জনতা।
পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলছেন ইরানের সাথে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করার কারণ বছরের পর বছর ধরে তাদের আগ্রাসী নীতি। বিশেষ করে গত কয়েক মাসের তাদের আচরণের জন্য আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি বাণিজ্যিক সম্পর্ক সহ সব সম্পর্ক ছিন্ন করার। এদিকে শিয়া নেতার মৃত্যুদ- কার্যকর করার ঘটনার জেরে সৌদি আরব ইরানের সাথে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করার পর সোমবার আরও তিনটি দেশ বাহরাইন, সুদান এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতও ইরানের সাথে কূটনৈতিক সম্পর্কচ্ছেদের কথা ঘোষণা করেছে। সন্ত্রাসী তৎপরতার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে সৌদি আরবে শনিবার ৪৭ ব্যক্তির মৃত্যুদ- কার্যকর করা হয়। এদের মধ্যে একজন ছিলেন শিয়া নেতা শেখ নিমর আল-নিমর। সৌদি পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবেদ আল জুবায়ের রয়টার্সকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেছেন, এই অঞ্চলে উত্তেজনা বৃদ্ধি পাওয়ার জন্য ইরানই দায়ী। এসময় তিনি শিয়া নেতা নিমরের মৃত্যুদ-ের পক্ষেও সাফাই দেন। তিনি আরো বলেছেন, ইরান ‘একটি স্বাভাবিক দেশের মত’ আচরণ করলেই কেবল তাদের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক স্বাভাবিক করবে রিয়াদ। তবে সম্পর্ক ছিন্ন করলেও ইরানি তীর্থযাত্রীরা হজ ও উমরাহ করার জন্য সৌদি আসতে পারবে বলে তিনি জানিয়েছেন।
এদিকে ইরানে সৌদি দূতাবাসের ওপর হামলার ঘটনায় জাতিসংঘে ইরানের দূত জাতিসংঘের কাছে লেখা এক চিঠিতে বলেছেন তেহরানে দূতাবাস ভাঙচুর করার ব্যাপারে যারা জড়িত তাদের ধরার চেষ্টা করছে তার দেশ। খবর পাওয়া যাচ্ছে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরি দুই দেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রীদের সাথে কথা বলেছেন এই উত্তপ্ত পরিস্থিতি থেকে সরে আসার জন্য।