১ জুন পর্যন্ত চাঁপাইনবাবগঞ্জে অপরিপক্ক আম বাজারজাত নিষিদ্ধ

404

chapainawabganj mango 15 (Mobile)
আগামী ১ জুনের আগে চাঁপাইনবাবগঞ্জে অপরিপক্ক আম বাজারজাত করা যাবেনা। এ সময়ের মধ্যে কেউ কার্বাইড কিংবা অন্য কোন কেমিক্যাল ব্যবহার করে অপরিপক্ক আম পাকানোর চেষ্টা  করে তাহলে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে। রবিবার বিকেলে বিভিন্ন কেমিক্যালের মাধ্যমে ফল পাকানো বন্ধকরনে জেলা পরিবিক্ষণ কমিটির এক সভায় এ সিদ্ধান্ত হয়। জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর কবীর’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় উপস্থিত ছিলেন, চাঁপাইনবাবঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক সাইফুল ইসলাম, উদ্ভিদ সংরক্ষণ বিশেষজ্ঞ মঞ্জুরুল হুদা, সদর উপজেলার কৃষি অফিসার ড. এম আজিজুর রহমান, দৈনিক গৌড় বাংলার সম্পাদক হাসিব হোসেনসহ বিভিন্ন উপজেলার কৃষি বিভাগের কর্মকর্তা, আম চাষী ও ব্যবসায়ী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। রবিবার বিকেলে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে এই সভা অনুষ্ঠিত হয়।
গৌড় বাংলাকে জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর কবীর বলেন, সভায় আগামী ১ জুনের আগে অপরিপক্ক আম পাড়া, কেমিক্যাল দিয়ে পাকানো ও বাজারজাতকরন থেকে বিরত থাকার জন্য ব্যবসায়ীদের প্রতি আহবান জানানো হয়েছে। তিনি বলেন, এ জেলা আমের জন্য বিখ্যাত, এ জেলার আমের সুনাম যেন বজায় থাকে সে বিষয়ে আম ব্যবসায়ীসহ সংস্লিষ্ঠ সকলকে সচেতন থাকতে হবে। তিনি আরো বলেন, ইতোমধ্যে ভোলাহাট, কানসাটসহ বিভিন্ন স্থানে আম বাগান মালিক ও ব্যবসায়িদের নিয়ে এ বিষয়ে সভা করা হয়েছে। এছাড়া সচেতনতামূলক লিফলেট বিতরণ করা হয়েছে। আগামী ১ জুনের আগে অপরিপক্ক আম ক্যামিক্যাল দিয়ে পাকানো যাবে না বলে জানান তিনি ।
সভায় ব্যবসায়ীরা বলেন, গতবছর অযথা ফরমালিনের কথা বলে আমাদের ট্রাকের পর ট্রাক আম নষ্ট করা হয়েছিল। যদিও আমরা কোন ফরমালিন ব্যবহার করিনি। এ বিষয়ে এবার আগাম পদক্ষেপ নিতে জেলা প্রশাসকের কাজে অনুরোধ জানান তারা ।
চাঁপাইনবাবগঞ্জে গোমস্তাপুর উপজেলার আম চাষী ও আম ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি রুহুল আমিন বলেন, যারা প্রকৃত আম ব্যাবসায়ী তারা কখনো আমে ফরমালিন ব্যবহার করে না। কিন্তু গতবছর  ফরমালিনের নামে আমাদের ব্যবসার যে ক্ষতি করা হয়েছিল, এবছর যাতে সে করম কিছু না হয় সে বিষয়ে প্রশাসন আগে থেকেই সজাগ থাকবে বলে আমি বিশ্বাস করি।
বাগান থেকে আম পাড়ার পর সেই আমের বিষয়ে স্থানীয় প্রশাসনের মাধ্যমে বিএসটিআই এর ছাড় পত্রের অনুরোধ জানান ভোলাহাট আম ফাউন্ডেশনের সাধারণ সম্পাদক মোজাম্মেল হক। এ  সময় তিনি বলেন, যদি আমের গুণগত মান পরীক্ষা করে বিভিন্ন গন্তব্যে গাড়ি ছাড়ার আগেই ছাড়পত্র দেয়া সম্ভব হয়, তবে ব্যবসায়ীরা আম পাঠানোর সময় গত বছর যে সমস্যাগুলোর মুখোমুখি হয়েছিল তা অনেকটায় দূর হবে।
সভায় অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মাকসুদা বেগম সিদ্দীকা বলেন এবছর চাঁপাইনবাবগঞ্জের আম পরিবহনের সময় যেন রাস্তায় ধ্বংস করা না হয় সে বিষয়ে আমরা পদক্ষেপ নিব।
সভায় জানানো হয়, চাঁপাইনবাবগঞ্জে কোন ফরমালিনের ডিলার নেই। তাই ফরমালিনসহ কোন কেমিক্যাল কেউ বাজারজাত করলে তাকে পুলিশের হাতে তুলে দিতে সকলের প্রতি আহ্বান জানানো হয়।