৫ বছরে ১৭ গুণ বেড়েছে গৌতম আদানির সম্পত্তি

3

বর্তমানে বিশ্বের তৃতীয় ধনীতম ব্যক্তি গৌতম আদানি। গত পাঁচ বছরে তার মোট সম্পদ প্রায় ১৭ গুণ বেড়েছে। তবে শুধু তিনিই নন। তার সংস্থার শেয়ার কেনা বিনিয়োগকারীরাও গত ৫ বছরে দারুণ রিটার্ন পেয়েছেন।ব্লুমবার্গ বিলিয়নেয়ার্স ইনডেক্স অনুযায়ী, গত ৯ সেপ্টেম্বর ২০১৭ পর্যন্ত গৌতম আদানির মোট সম্পদ ছিল ৮.৩৯ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। বর্তমানে তিনি মোট ১৪৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলার সম্পদের মালিক। অর্থাৎ মাত্র পাঁচ বছরে আদানির সম্পদ প্রায় ১৭ গুণ বেড়েছে। এই পাঁচ বছরে, আদানি এন্টারপ্রাইজ ২৩ গুণেরও বেশি রিটার্ন দিয়েছে। আদানি পাওয়ারও পিছিয়ে নেই। আদানি পাওয়ার প্রায় ১২ গুণ মুনাফা দিয়েছে। আসুন, একনজরে দেখে নেয়া যাক আদানি গ্রুপের কোম্পানিগুলোর শেয়ার বাজারের পারফরম্যান্স।
আদানি এন্টারপ্রাইজ : ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭-তে আদানি এন্টারপ্রাইজের শেয়ারের দাম ছিল মাত্র ১৩৬.৬০ ভারতীয় টাকা। এদিকে গত মঙ্গলবার অর্থাৎ, ৩০ আগস্ট ২০২২, সেই শেয়ার বেড়ে ৩১৯২.৬০ টাকায় ক্লোজ হয়েছে। এই পাঁচ বছরে আদানি এন্টারপ্রাইজের শেয়ারের দাম ২৩ গুণেরও বেশি বেড়েছে। হিসাব অনুযায়ী, ২০১৭ সালে যাঁরা এই শেয়ারে এক লাখ টাকা রেখেছিলেন, আজ সেটা বেড়ে ২৩ লাখ টাকারও বেশি হয়ে গিয়েছে।
আদানি পাওয়ার: ৫ বছর আগে আদানি পাওয়ারের (১ সেপ্টেম্বর ২০১৭) শেয়ার ৩২.৩৫ টাকা করে ছিল। ৩০ অগস্ট মঙ্গলবার এটি ৪১৩.৯৫ টাকায় ক্লোজ হয়েছে। গত ৫ বছরে, এই স্টকটি প্রায় ১২ গুণ বেড়েছে।
আদানি গ্রিন: ২২ জুন ২০১৮-এ আদানি গ্রিনের এক-একটি শেয়ারের দাম ছিল মাত্র ২৯.৪৫ টাকা করে। মঙ্গলবার এটি ২৪৪৭.১০ টাকায় ক্লোজ হয়েছে। অর্থাৎ ৪ বছর আগে যিনি এই স্টকে এক লাখ টাকা বিনিয়োগ করেছিলেন, আজ তিনি ৮৩ লক্ষ টাকা ফেরত পাবেন।
আদানি পোর্ট: আদানি পোর্টের শেয়ারের দাম ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭-এ ৩৯৪.৯০ টাকা করে ছিল। এদিকে ৩০ অগস্ট তা ৮৪০ টাকায় ক্লোজ হয়েছে। এই সময়ের মধ্যে এটি ১১২ শতাংশেরও বেশি বেড়ে গিয়েছে।
আদানি টোটাল গ্যাস: ১৫ জানুয়ারি, ২০২১-এ আদানি টোটাল গ্যাসের শেয়ারের দাম ৩৫৯.৯৫ টাকায় ক্লোজ হয়েছিল। মঙ্গলবার তা বেড়ে ৩৭৫০ টাকা হয়ে গিয়েছে। অর্থাৎ, ২ বছরেরও কম সময়ে, এটি বিনিয়োগকারীদের প্রায় ১০ গুণ রিটার্ন দিয়েছে।
আদানি ট্রান্সমিশন: আদানি ট্রান্সমিশনের শেয়ার গত পাঁচ বছরে ৩০১৫.৯০ শতাংশ বেড়েছে। ১ সেপ্টেম্বর, ২০১৭-এ ১২৭.৭০ টাকায় ক্লোজ হয়েছিল। এদিকে সেই একই স্টক ৩০ অগস্ট, ২০২২-এ ৩৯৭৯ টাকায় ক্লোজ হয়েছে। অর্থাৎ, মাত্র পাঁচ বছরেই, এটি বিনিয়োগকারীদের টাকা ৩১ গুণ বাড়িয়ে দিয়েছে।
আদানি উইলমার: আদানি গ্রুপের সাত নম্বর কোম্পানি আদানি উইলমার। এটি এই বছরের ফেব্রুয়ারিতেই তালিকাভুক্ত হয়েছিল। কিন্তু এর মধ্যেই এটি বিনিয়োগকারীদের ধনী করে তুলছে। মাত্র সাত মাসেরও কম সময়ে, আদানি উইলমার প্রায় ৮২ শতাংশ রিটার্ন দিয়েছে। ২২৭ টাকার শেয়ারটি বেড়ে ৬৯৩ টাকা হয়ে গিয়েছে। ৫২ সপ্তাহের সর্বোচ্চ শেয়ার দর ছিল ৮৭৮ টাকা।সূত্র : হিন্দুস্তান টাইমস