৩৭০০ কর্মী ছাঁটাই করছে উবার

31

নভেল করোনাভাইরাস মহামারীর প্রভাব পড়েছে বিশ্বের ছোট বড় সব প্রতিষ্ঠানে। কর্মী ছাঁটাইয়ের ঘটনাও ঘটছে নিয়মিত। বুধবার সিকিউরিটি অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনে দেওয়া এক নথিতে ৩৭০০ কর্মী ছাঁটাইয়ের ঘোষণা দিয়েছে উবার। গ্রাহক সেবা এবং নিয়োগ, এই দুই বিভাগ থেকে এই কর্মী ছাঁটাই করবে প্রতিষ্ঠানটি। উবারের সর্বশেষ হিসাব অনুযায়ী প্রতিষ্ঠানের কর্মী সংখ্যা ২৬ হাজার নয়শ’। সেই হিসাবে ছাঁটাই হওয়া কর্মীর সংখ্যা ১৪ শতাংশ বলে প্রতিবেদনে জানিয়েছে সিএনবিসি। নথিতে উবার আরও বলছে, বছরের বাকী সময় নিজের মূল বেতন কমিয়ে নেবেন প্রতিষ্ঠান প্রধান দারা খোসরোশাহি। ২০১৯ সালে তার মূল বেতন ছিলো ১০ লাখ মার্কিন ডলার। তবে, গত বছর তার আরও অনেক বেশি আয় এসেছে অর্জিত বোনাস এবং শেয়ার থেকে। বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে লকডাউনের কারণে বড় ধাক্কায় পড়েছে উবার। গত মাসে দ্য ইনফরমেশনের প্রতিবেদনে বলা হয়, অ্যাপভিত্তিক গাড়ি সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানটির ট্রিপ সংখ্যা কমেছে ৮০ শতাংশ। বৃহস্পতিবার আয়ের হিসাব প্রকাশ করবে প্রতিষ্ঠানটি।

ব্যবসায় মহামারীর প্রভাব কতোটা পড়েছে বিনিয়োগকারীরা এদিনই তা বুঝতে পারবেন। বুধবার কর্মীদেরকে দেওয়া এক মেমোতে খরচ আরও কমানোর ইঙ্গিত দিয়েছেন খোসরোশাহি। “আমরা অনেকগুলো পরিস্থিতি বিবেচনা করছি, বিশ্বজুড়ে প্রতিটি দেশে বাঁধা ও পরিবর্তনশীল দুই ধরনের খরচই দেখা হচ্ছে। আমরা স্মার্ট হতে চাই, দ্রুত সামনে এগোতে চাই, যত বেশি সম্ভব অসাধারণ মানুষদেরকে সঙ্গে নিতে চাই এবং আমরা সবাইকে মর্যাদা, সমর্থন ও সম্মান দিতে চাই,” বলেন খোসরোশাহি। সামনের দুই সপ্তাহের মধ্যে উবার কর্মীদেরকে আরও বিস্তৃত এবং সর্বশেষ আপডেট দেবে বলেও জানিয়েছেন প্রতিষ্ঠান প্রধান। উপার্জন হারিয়ে ভোগান্তিতে আছেন উবার চালকরা। এই পরিস্থিতির কারণে আবারও উবার চালকদের ঠিকাদার হিসেবে শ্রেণিভুক্ত করা নিয়ে ফের প্রশ্ন উঠেছে। খসরোশাহী মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পকে এর আগে উবার চালকদের ঠিকাদার বা কর্মী হিসেবে শ্রেণিভুক্ত না করে “তৃতীয় কোনো শ্রেণিতে” বিবেচনার কথা বলেছেন।

উবার চালকদের ভুল শ্রেণিভুক্ত করছে- এমন অভিযোগে মঙ্গলবার উবার ও প্রতিদ্বন্দ্বী লিফট-এর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন ক্যালিফোর্নিয়া অঙ্গরাজ্যের অ্যাটর্নি জেনারেল হাভিয়ের বেসেরাসহ আরও তিন আইনজীবী। বর্তমানে ছাঁটাইয়ের কথা মাথায় রাখলেও সামনে বিনিয়োগের দিকেও তাকিয়ে আছে রাইড শেয়ারিং সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানটি৷ বৈদ্যুতিক স্কুটার প্রতিষ্ঠান লাইম-এ ১৭ কোটি মার্কিন ডলার বিনিয়োগ করতে আলোচনা চালাচ্ছে তারা। দ্য ইনফরমেশন-এর তথ্যমতে, লাইম-এর বর্তমান বাজারমূল্য ৫১ কোটি ডলার যা তাদের আগের বাজারমূল্য থেকে ৭৯ শতাংশ কম। ইতোমধ্যেই লাইম-এ উবারের কিছু শেয়ার রয়েছে। আর জাম্প নামে বৈদ্যুতিক স্কুটার ও বাইক এনেছে উবার নিজেও।