১৫ ও ২১ আগস্ট শহীদদের স্মরণে আলোচনা সভা

12

১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস ও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭তম শাহাদতবার্ষিকী এবং ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা দিবস উপলক্ষে বুধবার চাঁপাইনবাবগঞ্জে আলোচনা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। বেলা ১১টায় নবাবগঞ্জ ক্লাবের হলরুমে জেলা মহিলা আওয়ামী লীগ এ কর্মসূচির আয়োজন করে।
আলোচনা সভায় প্রধন অতিথির বক্তব্য দেন- বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যকরী কমিটির সদস্য ও বিএমডিএ চেয়ারম্যান সাবেক এমপি বেগম আক্তার জাহান। এ সময় তিনি বলেন- হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি, স্বাধীনতার স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে কতিপয় বিপথগামী সেনাসদস্য সপরিবারে নির্মমভাবে হত্যা করে। স্বাধীনতাবিরোধী শক্তি চেয়েছিল আওয়ামী লীগকে মুছে ফেলতে। কিন্তু আল্লাহর রহমতে সেদিন বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা ও শেখ রেহেনা বিদেশে থাকায় বেঁচে যান। এরপর আজকের প্রধানমন্ত্রী যার হাত ধরে পদ্মা সেতুর মতো এত বড় প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হয়েছে যিনি আজ বিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেল, বাংলাদেশের মানুষের টানে দেশে ফিরে আওয়ামী লীগের হাল ধরেন। তাকেও ঘাতকরা মেরে ফেলতে চেয়েছিল। আর তাই তো সেদিন ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা চালানো হয়। কিন্তু আল্লাহর রহমতে তিনি প্রাণে বেঁচে যান। এখনো ষড়যন্ত্র হচ্ছে। এ বিষয়ে মহিলা আওয়ামী লীগের নেত্রী ও কর্মীদের সজাগ থাকতে হবে। আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনগুলোর সাথে কাজ করতে হবে।
জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাকিনা খাতুন পারুলের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেনÑ জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও সাবেক এমপি মু. জিয়াউর রহমান, সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক এমপি আব্দুল ওদুদ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও শিবগঞ্জ আসনের এমপি ডা. সামিল উদ্দিন আহমেদ শিমুল, জেলা আওয়ামী লীগ সদস্য ও সংরক্ষিত সংসদ সদস্য ফেরদৌসী ইসলাম জেসি।
জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হালিমা খাতুনের সঞ্চালনায় আরো বক্তব্য দেনÑ শিবগঞ্জ উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান শিউলী বেগম, জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ডা. সাঈফ জামান আনন্দসহ জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের বিভিন্ন ইউনিটের নেতৃবৃন্দ।
আলোচনা শেষে বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত আত্মজীবনী বইটি মহিলা আওয়ামী লীগ কর্মীদের মধ্যে বিতরণ করেন প্রধান অতিথি।
পরে ১৫ আগস্ট ও ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় নিহত বঙ্গবন্ধুসহ সকল শহীদের রুহের মাগফিরাত কামনা করে দোয়া করা হয়।