১০টি দেশ ও অঞ্চলে জীবাণু অস্ত্র তৈরি করছে যুক্তরাষ্ট্র!

4

আবারও জীবাণু অস্ত্র তৈরির অভিযোগ উঠেছে যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে। রাশিয়ার পর এবার এমন অভিযোগ তুলেছে উত্তর কোরিয়া। এর আগে গেল মার্চ মাসে রাশিয়া যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে ইউক্রেনে জীবাণু অস্ত্র তৈরির অভিযোগ আনলে তা নাকচ করে দিয়েছিল জাতিসংঘ। গতকাল রোববার উত্তর কোরিয়ার সরকারি বার্তা সংস্থা কোরিয়ান সেন্ট্রাল নিউজ এজেন্সির (কেসিএনএ) বরাতে সংবাদমাধ্যম চ্যানেল নিউজ এশিয়া জানায়, আন্তর্জাতিক চুক্তিকে উপেক্ষা করে ইউক্রেনসহ ১০টি দেশ ও অঞ্চলে অনেকগুলো জীবাণু ল্যাব স্থাপন করেছে ওয়াশিংটন। এর আগে গত মার্চে মস্কো অভিযোগ করে বলেছিল, ইউক্রেনে জীবাণু অস্ত্র তৈরির বিষয়ে গবেষণার জন্য তহবিল সরবরাহ করছে যুক্তরাষ্ট্র। তবে ওয়াশিংটন ও কিয়েভ এ অভিযোগ অস্বীকার করে।

এ ছাড়া জাতিসংঘের নিরস্ত্রীকরণ বিষয়ক আন্ডার সেক্রেটারি জেনারেল ইজুমি নাকামিৎসু তখন বলেন, ‘ইউক্রেনে কোনো জীবাণু অস্ত্রের কর্মসূচির বিষয়ে জাতিসংঘ অবগত নয়।’ নাকামিৎসু আরও জানান, রাশিয়া ও ইউক্রেন দুই দেশই জীবাণু অস্ত্র কনভেনশনের সদস্য। আর সে কারণে আন্তর্জাতিক চুক্তি অনুযায়ী দেশগুলো জীবাণু অস্ত্র ব্যবহার থেকে বিরত থাকার কথা। ১৯৭৫ সালে এই চুক্তি স্বাক্ষর হয়েছিল। এর আগে রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ইগর কোনাশেনকভের বরাতে রুশ সংবাদমাধ্যম আরটি দাবি করে, মার্কিন অর্থায়নে ইউক্রেনে নির্মিত বায়ো-ল্যাবরেটরিতে বাদুড়ের শরীর থেকে করোনাভাইরাসের নমুনা নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হচ্ছিল। ফেব্রুয়ারিতে ইউক্রেন সংকটের মূল কারণ হিসেবে মার্কিন নীতিকে দায়ী করেছিল মস্কোর মিত্র হিসেবে পরিচিত উত্তর কোরিয়া। একইসঙ্গে দেশটি ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলে রুশপন্থী স্বঘোষিত দুটি বিচ্ছিন্ন অঞ্চলকে স্বীকৃতিও দেয়। এর জেরে উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করে ইউক্রেন।