হেমন্তে

65

gourbangla logoকালের আবর্তে ক্ষণিকের তরে ঋতুরঙ্গশালায়,
শিশির ভেজা উষ্ণ হৃদয়ে সে যেন দোল দিয়ে যায়।
শারদ কবে বিদায় হয়েছে আজি ধরা দিয়েছে সে,
নিঃশব্দে চিনে গেছি তারে কুয়াশার গোধূলী আলোকে।
পথে পথে সে রেখে গেছে কত ঝরা শেফালির মালা,
জননীকে সে মুগ্ধ করেছে সাজাইয়ে বরণ ডালা।
কাশের গুচ্ছ নুয়ে গেছে তাই নদীকে করেছে দীনি,
ন¤্র নেত্রে দেখো দেখো চেয়ে আমরা সকলেই চিনি।
মাঠে মাঠে কত পরাগরেণু, ভরা ব্রীহির মঞ্জরী,
সন্ধেবেলা জোনাক জ্বেলে করেছে সবার মন চুরি।
নির্ঘুম রাতে জ্যোছনা ঝরে বাঁধা যায় না মন তোরে,
চারিদিকে সে ভরিয়ে দিয়েছে সোনার ধানে প্রান্তরে।
ঢেঁকির তালে ভানার গানে মুখরিত হয় আঙিনা,
নবান্ন তাই বাংলা মায়ের মমতাতেই যায় কেনা।
রিক্ততার বিষন্নতায় জলদ পানে তাকায় কে,
প্রিয়া হারাবার বেদনাতেই সাক্ষী রাখে গগনকে।
হেমন্ত নেমেছে পৃথিবীর বনে উচ্ছ্বাস নেই কোনো,
লক্ষèী প্রতীমা রয়েছো তুমি চিরকালই থেকো যেন।
কবির মনন বাড়িয়া গিয়াছে কাব্য লেখার তালে,
হেমন্ত হে তুমি আমি রবো-মহাকালের সব ভালে।