স্বনামধন্য অর্থনীতিবিদ ড. খলীকুজ্জমান চাঁপাইনবাবগঞ্জে আসছেন আজ

259

স্বনামধন্য অর্থনীতিবিদ কিউকে আহমদ ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান ড. কাজী খলীকুজ্জমান আহমদ আজ সোমবার চাঁপাইনবাবগঞ্জে আসছেন। আগামীকাল মঙ্গলবার জেলাশহরের চাঁপাইনবাবগঞ্জ ক্লাব মিলনায়তনে অনুষ্ঠিতব্য ‘মূল্যবোধ, নৈতিকতা, পরার্থপরতা ও দেশপ্রেমে তরুণ সমাজকে উদ্বুদ্ধকরণ সম্মেলন-২০২২’ এ যোগ দিতে চাঁপাইনবাবগঞ্জ আসছেন তিনি।
সফরসঙ্গী হিসেবে থাকবেন তার স্ত্রী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষক ড. জাহেদা আহমদ, পল্লী কর্ম-সহায়ক ফাউন্ডেশন (পিকেএসএফে)’র পরিচালনা পর্ষদের সদস্য ড. মো. আবদুল মুঈদ ও অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক ড. মো. জসীম উদ্দিন এবং কিউকে আহমদ ফাউন্ডেশনের কোষাধ্যক্ষ তরফদার মো. আরিফুর রহমান।
উন্নয়ন চিন্তাবিদ ও পরিবেশকর্মী ড. খলীকুজ্জমানের জন্ম ১৯৪৩ সালের ১২ মার্চ, মৌলভীবাজারে। বাবা মুমতাজুল মুহাদ্দিসিন মাওলানা মো. মুফাজ্জল হুসাইন ১৯৪৬ থেকে ১৯৫২ সাল পর্যন্ত আসামের এমএলএ এবং পরবর্তীতে কলেজের অধ্যাপক ছিলেন। মা বেগম ছহিফা খাতুন ছিলেন শিক্ষানুরাগী। চার ভাই ও এক বোনের মধ্যে তিনি ছিলেন বড় সন্তান।
দারিদ্র্য বিমোচনে অবদানের জন্য ২০০৯ সালে বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক একুশে পদকে ভূষিত ড. কাজী খলীকুজ্জমানের প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষাজীবন শুরু হয়েছিল মৌলভীবাজার জেলার রাজনগর পোর্টিয়াস উচ্চ বিদ্যালয়ে। এই বিদ্যালয়ে ৮ম শ্রেণিতে ভর্তি হওয়ার মধ্য দিয়েই মূলত তার পড়াশোনা শুরু। এর আগে তিনি পারিবারিকভাবেই প্রাথমিক শিক্ষা গ্রহণ করেছিলেন, যেখানে শিক্ষক ছিলেন তার বাবা। ১৯৫৬ সালে পোর্টিয়াস উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পাস করেন। ১৯৫৮ সালে সিলেটের এমসি কলেজ থেকে এইচএসসি পাস করেন। তিনি এই পরীক্ষায় মেধা তালিকায় স্থান লাভ করেছিলেন। এরপর তিনি ভর্তি হন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগে। ১৯৬২ সালে সেখান থেকেই অর্থনীতিতে এমএ পাস করেন। পরে তিনি লন্ডন স্কুল অব ইকোনমিকস থেকে জাতীয় মেধা ফেলোশিপ লাভ করেন এবং সেখান থেকে অর্থনীতি বিষয়ে এমফিল ও পিএইচডি ডিগ্রি লাভ করেন।
ঢাকা স্কুল অব ইকোনমিকসের প্রতিষ্ঠাতা ড. কাজী খলীকুজ্জমান ২০০২ থেকে ২০১০ সাল পর্যন্ত টানা তিনবার বাংলাদেশের অর্থনীতিবিদদের সর্বোচ্চ পরিষদ বাংলাদেশ অর্থনীতি সমিতির নির্বাচিত সভাপতি ছিলেন।
ড. কাজী খলীকুজ্জমান আহমদের স্ত্রী ড. জাহেদা আহমদ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের সাবেক অধ্যাপক। তিনি লন্ডন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পিএইচডি ডিগ্রি লাভ করেন। তিনি দীর্ঘকাল অধুনা বিলুপ্ত সাপ্তাহিক সময় পত্রিকার সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেছেন। পারিবারিক জীবনে আহমদ দম্পতি দুই পুত্র সন্তানের জনক-জননী। বড় ছেলে রুশদী আহমদ, দ্বিতীয় ছেলে কাজী উরফী আহমদ।
গবেষণাধর্মী এবং অন্যান্য বিষয়ে অর্থনীতিবিদ ড. কাজী খলীকুজ্জমানের ৩৫টির ওপর প্রকাশনা রয়েছে। এছাড়া প্রবন্ধ রয়েছে আড়াই শতাধিক। গুণী এই মানুষটি কাজের স্বীকৃতিস্বরূপ জীবনে অনেক সম্মাননা ও পুরস্কার অর্জন করেছেন। এর মধ্যে ২০১৯ সালে সমাজসেবায় স্বাধীনতা পুরস্কার এবং পরিবেশ পদক, ২০১২ সালে বাংলাদেশ অর্থনীতি সমিতির স্বর্ণপদক এবং ২০০৫ সালে মার্কেন্টাইল ব্যাংক পুরস্কার উল্লেখযোগ্য। এছাড়া ২০০৭ সালে শান্তিতে নোবেল পুরস্কার বিজয়ী ইন্টারগভর্নমেন্ট প্যানেল অব ক্লাইমেট চেঞ্জের সদস্য ছিলেন।
পিকেএসএফ চেয়ারম্যান ড. খলীকুজ্জমান আজ সোমবার সন্ধ্যা সোয়া ৭টায় চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌঁছবেন এবং রাত পৌনে ৮টায় পিকেএসএফ’র সহযোগী সংস্থা প্রয়াস মানবিক উন্নয়ন সোসাইটির প্রধান কার্যালয়ে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সাথে মতবিনিময় করবেন।
কিউকে আহমদ ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ড. কাজী খলীকুজ্জমান আগামীকাল মঙ্গলবার সকাল ৯টায় ‘মূল্যবোধ, নৈতিকতা, পরার্থপরতা ও দেশপ্রেমে তরুণ সমাজকে উদ্বুদ্ধকরণ’ শীর্ষক সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে যোগ দেবেন। বাংলাদেশ ব্যাংকের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও সামাজিক দায়বদ্ধতা তহবিলের অর্থায়নে এবং প্রয়াস মানবিক উন্নয়ন সোসাইটির ব্যবস্থাপনায় সম্মেলনটি বাস্তবায়ন করছে কিউকে আহমদ ফাউন্ডেশন।
সকাল ৯টায় সম্মেলনে অংশগ্রহণের জন্য শুরু হবে নিবন্ধন। এরপর কুইজ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হবে। সম্মেলনে প্রতিবেদন ও দেয়ালিকা পরিদর্শনও করবেন অতিথিবৃন্দ। স্বাগত বক্তব্য দেবেন প্রয়াসের নির্বাহী পরিচালক হাসিব হোসেন। জেলা প্রশাসক এ কে এম গালিভ খাঁনের সভাপতিত্বে সম্মেলনে বিশেষ অতিথি থাকবেনÑ পিকেএসএফের পরিচালনা পর্ষদের সদস্য ড. মো. আবদুল মুঈদ ও অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক ড. মো. জসীম উদ্দিন, নবাবগঞ্জ সরকারি কলেজের অবসরপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ প্রফেসর সুলতানা রাজিয়া, চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা শিক্ষা অফিসার মো. আবদুর রশিদ এবং কিউকে আহমদ ফাউন্ডেশনের কোষাধ্যক্ষ তরফদার মো. আরিফুর রহমান। সম্মেলনে পিপিটি প্রেজেন্টেশনের পর অনুভূতি জ্ঞাপন করবেনÑ শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা।
সম্মেলন শেষ করে উন্নয়ন চিন্তাবিদ ড. কাজী খলীকুজ্জমান বিকেলে নাচোল উপজেলার আলপনা গ্রাম পরিদর্শনে যাবেন। পরে নেজামপুর ইউনিয়নে প্রবীণ জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়ন কর্মসূচির আওতায় ‘সোনালী টি স্টল’ পরিদর্শন করার কথা রয়েছে তার।
সন্ধ্যায় সদর উপজেলার গোবরাতলা ইউনিয়নে পেস প্রকল্পের আওতাধীন বিভিন্ন কার্যক্রম ঘুরে দেখে প্রয়াস ফোক থিয়েটার ইনস্টিটিউটের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন তিনি। পরে ড. খলীকুজ্জমান রেডিও মহানন্দার লাইভ অনুষ্ঠান ‘কাছে থেকো বন্ধু’তে সস্ত্রীক যুক্ত হবেন।