স্কুল ও মাদরাসায় বার্ষিক পরীক্ষা হচ্ছে না

37

dipu moniকরোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে চলতি বছরে মাধ্যমিকের স্কুল ও মাদরাসার শিক্ষার্থীদের বার্ষিক পরীক্ষা হচ্ছে না বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। তিনি বলেন, মাধ্যমিকের সব শিক্ষার্থী পরবর্তী ক্লাসে উত্তীর্ণ হবে।
বুধবার ভার্চুয়াল প্লাটফর্মে মাধ্যমিকের বার্ষিক পরীক্ষা সংক্রান্ত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।
শিক্ষামন্ত্রী বলেন, তবে ৩০ কার্যদিবসের মধ্যে শেষ করা যায় এমন সংক্ষিপ্ত সিলেবাস তৈরি করেছে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড (এনসিটিবি)। এই সিলেবাস অনুসরণ করে শিক্ষার্থীদের প্রতি সপ্তাহে একটি অ্যাসাইনমেন্ট সম্পন্ন করতে হবে। শিগগিরই এনসিটিবির ডিজাইন করা সিলেবাস শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পৌঁছে যাবে। তিনি বলেন, অ্যাসাইনমেন্ট নেয়া হবে শিক্ষার্থীর শিখন ফলের ঘাটতি বুঝে পরবর্তী ক্লাসে রেমিডিয়াল ক্লাস নেয়ার জন্য। অ্যাসাইনমেন্টের ওপর ভিত্তি করে প্রমোশন হবে না। অ্যাসাইনমেন্ট নেয়া হবে শিক্ষার্থীর শিখন ফল জানার জন্য, যাতে পরবর্তী ক্লাসে রেমিডিয়াল ক্লাস নিতে সুবিধা হয়। মাধ্যমিকের সব শিক্ষার্থী পরবর্তী ক্লাসে উত্তীর্ণ হবে।
শিক্ষামন্ত্রী বলেন, এই অ্যাসাইনমেন্টের মূল্যায়নে যাতে শিক্ষার্থীদের কোনো চাপ সৃষ্টি না হয় সেদিকে লক্ষ্য রাখা হচ্ছে। যাতে আগামীতে শিক্ষার্থীদের কোথায় কোথায় দুর্বলতা আছে। সেই আলোকে পরবর্তীতে তাদের অতিরিক্ত ক্লাস নেয়া হয়।
করোনাভাইরাসের কারণে গত ১৭ মার্চ থেকে দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ। কিছু ক্ষেত্রে অবশ্য অনলাইন ও টেলিভিশনে ক্লাস নেয়া হচ্ছে। এ পরিস্থিতিতে এ বছরের প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী, ইবতেদায়ী সমাপনী, জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি), জুনিয়র দাখিল সার্টিফিকেট (জেডিসি) এবং উচ্চ মাধ্যমিক (এইচএসসি) পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হচ্ছে না। টানা সাত মাস ধরে দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় স্কুলগুলোতে বার্ষিক পরীক্ষা নিয়েও অনিশ্চয়তা দেখা দেয়। অবশেষে করোনা পরিস্থিতিতে মাধ্যমিকে বার্ষিক পরীক্ষা হচ্ছে না বলে ঘোষণা দিলেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।
নবম শ্রেণিতে পছন্দমতো বিভাগ নেয়া যাবে: শিক্ষামন্ত্রী বলেন, চলতি বছর ৮ম শ্রেণির জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষা বাতিল করা হয়েছে। সবাইকে অটো পাস দেয়া হবে। এসব শিক্ষার্থীরা নবম শ্রেণিতে তাদের পছন্দ অনুযায়ী বিভাগ পরিবর্তন করতে পারবে। শিক্ষামন্ত্রী বলেন, সাধারণত শিক্ষার্থীদের ভালো ফলাফলের ভিত্তিতে বিজ্ঞান, বাণিজ্য ও মানবিক বিভাগ পেয়ে থাকেন। চলতি বছর থেকে শিক্ষার্থীদের জন্য পৃথক সুবিধা রাখা হচ্ছে। অষ্টম শ্রেণি থেকে পাস করার পর একজন শিক্ষার্থী যেকোনো বিভাগ থেকে রেজিস্ট্রেশন করলেও অন্য বিভাগ থেকে পরীক্ষা দেয়ার সুযোগ পাবে। এ বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশনা দেয়া আছে।
কারিগরি শিক্ষার্থীদের পরীক্ষায় বসতে হবে : মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষার্থীদের বার্ষিক পরীক্ষা বাতিল করা হলেও কারিগরির পরীক্ষা হবে। এ শিক্ষা হাতে-কলমে শিখতে হয় বলে তাদের পরীক্ষা দিয়ে পরবর্তী ক্লাসে উন্নীত করা হবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। শিক্ষামন্ত্রী বলেন, সাধারণ বিষয়ে পরীক্ষা ছাড়া ভিন্নভাবে মূল্যায়ন করা সম্ভব হলেও কারিগরি শিক্ষায় তা সম্ভব নয়। কারিগরি শিক্ষার্থীদের লেখার চেয়ে ব্যবহারিক পরীক্ষাকে বেশি গুরুত্ব দেয়া হয়। সেটি না শিখলে তাকে পরবর্তী ক্লাসে প্রমোশন দেয়া সম্ভব হবে না। এ কারণে বার্ষিক পরীক্ষার মাধ্যমে এ স্তরের শিক্ষার্থীদের পরবর্তী ক্লাসে প্রমোশন দেয়া হবে।
মন্ত্রী বলেন, কারিগরি স্তরে শিক্ষার্থীর সংখ্যা কম হওয়ায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে তাদের পরীক্ষা নেয়া সম্ভব। দ্রুততম সময়ের মধ্যে তাদের পরীক্ষা নেয়া বলে জানান তিনি। গত আট মাস ধরে কারিগরি-ডিপ্লোমা শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা স্থগিত হয়ে আছে উল্লেখ করে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেন, দ্রুততম সময়ের ডিপ্লোমা শিক্ষার্থীদের স্থগিত হওয়া পরীক্ষাগুলো নেয়া হবে। এরপর তাদের মৌখিক পরীক্ষা শেষ করে ফলাফল প্রকাশ হবে।
সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কারিগরি ও মাদরাসা বিভাগের সচিব মো. আমিনুল ইসলাম খান, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক গোলাম ফারুক চৌধুরী এবং শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যানরা উপস্থিত ছিলেন।