সোনামসজিদ বন্দর দিয়ে বন্ধ পেঁয়াজ আমদানি, দাম চড়া বাজারে

16

চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ সোনামসজিদ স্থলবন্দর দিয়ে ভারতীয় পেঁয়াজ আমদানি বন্ধ হয়ে গেছে। সোমবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত ১০টি পেঁয়াজভর্তি ট্রাক আমদানি হওয়ার পর তা বন্ধ হয়ে যায়। এর ফলে স্থানীয় বাজারগুলোতে পেঁয়াজের দাম বেড়ে গেছে।

সোনামসজিদ স্থলবন্দর সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট অ্যাসোসিয়শনের সাধারণ সম্পাদক মো. মেসবাউল হক জানান, ভারতের অভ্যন্তরীণ বাজারে পেঁয়াজের মূল্য বৃদ্ধির কারণে দাম নিয়ন্ত্রণে রাখতে এবার পণ্যটি রপ্তানির ওপর অনির্দিষ্টকালের জন্য নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে ভারত সরকার। রবিবার দেশটির কেন্দ্রীয় বাণিজ্য ও শিল্প মন্ত্রণালয় এ সংক্রান্ত নিষেধাজ্ঞাটি আরোপ করে, যা তাৎক্ষণিকভাবে কার্যকর হয়। তিনি বলেন, ভারতের বাজারে পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় সরকারের পক্ষ থেকে সিদ্ধান্তটি নেয়া হয়েছে। সে কারণে দুপুর থেকে এ বন্দর দিয়ে সব ধরনের পেঁয়াজ রপ্তানি পুরোপুরি বন্ধ হয়ে যায়।
জানা গেছে, ভারতের যেসব অঞ্চলে পেঁয়াজ বেশি পরিমাণে উৎপন্ন হয়, সেসব রাজ্যে মাত্রাতিরিক্ত বৃষ্টিপাতের কারণে রাজধানী নয়াদিল্লি ও মুম্বাইয়ের বাজারে পেঁয়াজের দাম কেজিপ্রতি ৭০-৮০ রুপিতে গিয়ে ঠেকেছে। একই সঙ্গে চেন্নাই ও বেঙ্গালুরুতে পেঁয়াজের দাম অনেকটাই বাড়তি। এসব স্থানে প্রতি কেজি পেঁয়াজের দাম ৫৫-৬০ রুপি পর্যন্ত উঠেছে। অন্যান্য অঞ্চলেও পেঁয়াজের দাম ক্রমশ বৃদ্ধি পাচ্ছে।
মো. মেসবাউল হক আরো জানান, তিনি প্রায় সাড়ে ৩০০ মেট্রিক টন পেঁয়াজ আমদানির জন্য এলসি খুলেন। কিন্তু হঠাৎ করেই পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ হয়ে যাওয়ায় বড় ধরনের ক্ষতির মুখে পড়তে হবে তাদের।
এরই মধ্যে এর প্রভাব জেলার খুচরা বাজারে পড়তে শুরু করেছে। খুচরা বাজারে পেঁয়াজের দাম কেজিপ্রতি ১০-১৫ টাকা করে বেড়ে গেছে।
পেঁয়াজ বিক্রেতা মঈন আলী জানান, রবিবার ভারতীয় পেঁয়াজ আমদানি বন্ধের খবর পেয়ে পাইকারি বাজারে গেলেও তিনি কোনো পেঁয়াজ কিনতে পারেননি।