দৈনিক গৌড় বাংলা

শনিবার, ১৮ই মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৪ঠা জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১০ই জিলকদ, ১৪৪৫ হিজরি

সিনেমার সাফল্যে আবেগপ্রবণ পরিণীতি

প্রায় এক দশকের ক্যারিয়ার পরিণীতি চোপড়ার। তবে ২০১৪ সাল থেকে ডুবতে থাকে তার ক্যারিয়ার। পর পর সিনেমা ব্যর্থ হওয়ায় মানসিক অবসাদগ্রস্ত হয়ে পড়েন তিনি। অভিনয়ের পাশপাশি বিকল্প পেশা হিসেবে গানকে বেছে নেন। কিন্তু সেখানেও সমালোচনার মুখে পড়েন। অবশেষে ‘চমকিলা’ মুক্তি পেতেই যেন ঘুরে গেল ভাগ্যের চাকা। পাঞ্জাবি গায়ক ‘অমর সিং চমকিলা’কে নিয়ে তৈরি হয়েছে এই জীবনীচিত্র। মুখ্য চরিত্রে রয়েছেন দিলজিৎ দোসাঞ্জ। ছবিতে গায়কের স্ত্রী অমরজোৎ কউরের চরিত্রে দেখা গেছে পরিণীতিকে। গায়কের স্ত্রীর চরিত্রে নজর কেড়েছেন পরিণীতি।

সমালোচক থেকে দর্শক, সকলেরই প্রশংসা কুড়োচ্ছে এই সিনেমা।তবে অনেকেরই ধারণা, পরিণীতির যেন প্রত্যাবর্তন হল এই ছবির হাত ধরে। যারা ভেবেছিলেন, পরিণীতির ক্যারিয়ার শেষ, তাদের উদ্দেশে অভিনেত্রী বলেন, ‘হ্যাঁ আমি ফিরে এসেছি, আর কোথাও যাচ্ছি না।’পাশাপাশি অভিনেত্রী জানান, সকলের প্রশংসা ও রিভিউ পেয়ে তিনি আপ্লুত। কান্না থামছে না। অবশ্যই তা খুশির অশ্রু। যদিও এক সাক্ষাৎকারে অভিনেত্রী জানান, এই সিনেমার জন্য রাজি হয়েছিলেন গান গাইতে পারবেন বলেই। আসলে এই সিনেমাতে ১৫টির মতো গান রয়েছে।

উল্লেখ্য, ২০১১ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত ‘লেডিস ভার্সেস রিকি বহল’ সিনেমাতে পার্শ্বচরিত্রে অভিনয় করতে দেখা যায় পরিণীতিকে। বক্স অফিসে সিনেমাটি তেমন ব্যবসা করতে পারেনি। তার ঠিক পরের বছরই ২০১২ সালে যশরাজ ফিল্মসের প্রযোজনায় প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পায় ‘ইশকজাদে’। এতে মুখ্যচরিত্রে অভিনয়ের সুযোগ পান পরিণীতি। রাতারাতি প্রচারের আলোয় চলে আসেন। তার পর ‘শুদ্ধ দেশি রোম্যান্স’, ‘হাসে তো ফাঁসে’র মতো রোম্যান্টিক ঘরানার সিনেমাতে অভিনয় করেন পরিণীতি। দু’টি ছবিই ভাল ব্যবসা করে এবং পরিণীতির অভিনয় যথেষ্ট প্রশংসা পায়।

About The Author

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *