সাম্প্রদায়িক হামলার প্রতিবাদে রাবিতে মানববন্ধন

169

rajসাম্প্রদায়িক হামলার সময় পুলিশের ভূমিকা বাংলা সিনেমার পুলিশের মতো বলে মন্তব্য করেছেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় শাখা বিপ্লবী ছাত্র মৈত্রীর সভাপতি প্রদীপ মার্ডি। তিনি বলেন, তাঁরাও হামলার পর ঘটনাস্থলে হাজির হয়। দেশের বিভিন্ন স্থানে হিন্দু সম্প্রদায়ের ওপর হমলা ও লুটপাটের প্রতিবাদ এবং দোষীদের বিচারের দাবিতে আয়োজিত এক মানববন্ধনে এ কথা বলেন প্রদীপ মার্ডি। শনিবার বেলা ১১টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেট ভবনের সামনে এ কর্মসূচি পালন করে রাবি শাখা ছাত্র ইউনিয়ন। এ সময় বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক ও রাজনৈতিক সংগঠন সংহতি জানিয়ে যোগ দেয়। প্রদীপ মার্ডি বলেন, সরকারের এক মন্ত্রী বলছেন, মালাউনের বাড়াবাড়ির কারণে এমনটা হয়েছে। সরকারের এমন মন্ত্রীদের পদত্যাগই সমস্যার সমাধান নয়। কারণ দুদিন পর আবার এ রকম আরেকটা মন্ত্রীর উদয় ঘটবে। তাই এদের সমূলে তুলে ফেলতে হবে। এজন্য তরুণদের দুর্বার আন্দোলনে নামতে হবে। এ সময় বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশনের রাবি শাখার সাধারণ সম্পাদক তমাশ্রী দাস বলেন, ২০১২ সালের রামুর হামলা বা বর্তমানে নাসিরনগরে হামলার কোনো বিচ্ছিন্ন ঘটনা নয়। বর্তমানে দেশের রাজনীতিতে যে গণতান্ত্রিকতা চর্চা হচ্ছে না এসব হামলা তারই নিদর্শন। তমাশ্রী দাস আরো বলেন, ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় যখন হামলা হয়েছে তখন ভুক্তভোগীদের ‘মালাউনের বাচ্চা’ বলেছেন সরকারের এক মন্ত্রী। এই বক্তব্য থেকে সরকারের অবস্থান বুঝতে কষ্ট হয় না। তিনি বলেন, তাই এগুলোকে রাজনৈতিক হামলা হিসেবে দেখে বর্তমান সরকারের গুম-খুন-হামলা, লুটপাটের বিরুদ্ধে আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি মিনহাজুল আবেদিনের সঞ্চলনায় মানববন্ধনে বক্তব্য দেন সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্টের সদস্য লিটন দাস, বাংলা বিভাগের শিক্ষার্থী হিরণময় কুমার হিরণ প্রমুখ।