সাগরে ড্রেজার ডুবে ৮ শ্রমিক নিখোঁজ

7

ঘূর্ণিঝড় সিত্রাংয়ের প্রভাবে চট্টগ্রামের মীরসরাইয়ে বঙ্গোপসাগরে জোয়ারের পানিতে বালু উত্তোলনের ড্রেজার ডুবে ৮ শ্রমিক নিখোঁজ হয়েছেন। মঙ্গলবার সকালে মীরসরাই থানার ওসি মো. কবির হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
উপজেলার ১৬ নম্বর সাহেরখালি ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের ৩নং বসুন্ধরা এলাকায় বেড়িবাঁধ সংলগ্ন সাগরে বালু উত্তোলনের জন্য ওই ড্রেজার মেশিন রাখা ছিল। বেড়িবাঁধ থেকে আনুমানিক এক হাজার ফুট দূরত্বে ছিল ড্রেজারটি।
এর আগে সোমবার দিবাগত রাত ১০টার দিকে এই দুর্ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে মীরসরাই ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা মঙ্গলবার সকাল থেকে উদ্ধার কাজ চালাচ্ছেন।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ঘূর্ণিঝড় সিত্রাংয়ের প্রভাবে সাগরের জোয়ারের পানির উচ্চতা বৃদ্ধির পাশাপাশি ঝড়ো হাওয়ায় ওই স্থানে রাখা ড্রেজার মেশিন ‘সৈকত-২’ পানিতে ভেসে গিয়ে ডুবে যায়। ওই সময় ড্রেজারে থাকা শ্রমিক শাহীন মোল্লা (৩৮), ড্রেজার চালক ইমাম মোল্লা (৩২), মাহমুদ মোল্লা (৩২), আলামিন (২১), তারেক ও বশর (৪৫)সহ আটজন নিখোঁজ হন। তাদের সবার বাড়ি পটুয়াখালীর জৈনকাঠি ও মোল্লাবাড়ি থানায়।
মঙ্গলবার সন্ধ্যায় এ প্রতিবেদন তৈরি পর্যন্ত তাদের সন্ধান মেলেনি।
বালু উত্তোলনের কাজে নিয়োজিত ড্রেজারে থাকা শ্রমিক আব্দুস সালাম বলেন, ‘ড্রেজারে আমিসহ ৯ জন ছিলাম। প্রাকৃতিক দুর্যোগের কথা শুনে সন্ধ্যা ৭টার দিকে আমি ড্রেজার থেকে নেমে আসি। তবে বাকিরা সেখানেই ছিল।’
ড্রেজার ম্যানেজার রেজাউল করিম বলেন, ঘটনাস্থলে আরো ছয়টি ড্রেজার রাখা ছিল। সতর্কতা সংকেত পেয়ে অন্য সব শ্রমিক নিরাপদ স্থানে চলে গেলেও দুর্ঘটনায় পতিত ড্রেজারের আট শ্রমিক আসেনি। উত্তোলনকারী শ্রমিকরা সাধারণত সবসময় ড্রেজারেই অবস্থান করে। সেখানে খাওয়া-দাওয়া ও ঘুমের ব্যবস্থা রয়েছে।
সাহেরখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কামরুল হায়দার চৌধুরী বলেন, সোমবার বিকেলে ইউনিয়ন পরিষদের পক্ষ থেকে সবাইকে সতর্ক অবস্থানে চলে যেতে মাইকিং করা হয়েছে। তারপরও তারা কেন নিরাপদ আশ্রয়ে গেল না, বুঝতে পারছি না।
মীরসরাই থানার ওসি মো. কবির হোসেন বলেন, ঘূর্ণিঝড় সিত্রাংয়ের প্রভাবে সাগরের জোয়ারের পানির উচ্চতা বৃদ্ধির পাশাপাশি ঝড়ো হাওয়ায় বালু উত্তোলনের ড্রেজার মেশিন সৈকত-২ পানিতে ভেসে গিয়ে ডুবে যায়। ড্রেজারে থাকা ৯ শ্রমিকের মধ্যে একজন নিরাপদ স্থানে চলে গেলেও বাকিরা সেখানে অবস্থান করছিল। নিখোঁজদের উদ্ধারে ফায়ার সার্ভিস ও কোস্টগার্ড চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে বলে তিনি জানান।
মীরসরাই ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্স স্টেশনের কর্মকর্তা ইমাম হোসেন পাটোয়ারি বলেন, খবর পেয়ে মঙ্গলবার সকালে ঘটনাস্থলে পৌঁছে উদ্ধার তৎপরতা অব্যাহত রেখেছি। তবে এখন পর্যন্ত কাউকে উদ্ধার করা যায়নি।