সব সংস্করণ মিলিয়ে সবচেয়ে শক্তিশালী দল নিউ জিল্যান্ড

7

কোনো আসর শুরুর আগে টপ ফেবারিট হিসেবে নিউ জিল্যান্ডের নাম আসে কম সময়ই। কিন্তু বিশ্বসেরার মঞ্চে তাদের ধারাবাহিকতার তুলনা পাওয়া কঠিন। গায়ের পোশাক সাদা হোক বা রঙিন, গত কয়েক বছরে নিউ জিল্যান্ড বরাবরই উজ্জ্বল। ধারাভাষ্যকার ও সাবেক ইংল্যান্ড অধিনায়ক মাইক আথারটনের মতে, কেন উইলিয়ামসনের দলই এই মুহূর্তে সব সংস্করণ মিলিয়ে সবচেয়ে শক্তিশালী দল। সাফল্যময় পথচলায় উইলিয়ামসনদের সবশেষ প্রাপ্তি প্রথমবার টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ফাইনালে ওঠা। আবু ধাবির জায়েদ স্টেডিয়ামে বুধবার প্রথম সেমি-ফাইনালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে নাটকীয় ম্যাচ তারা জিতে নেয় ৫ উইকেটে। এই নিয়ে তিন সংস্করণেই আইসিসির সবশেষ তিনটি আসরের ফাইনালে উঠল নিউ জিল্যান্ড। ২০১৯ সালের ওয়ানডে বিশ্বকাপ ফাইনালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচ টাই হওয়ার পর সুপার ওভারও টাই হওয়ায় ¯্রফে বাউন্ডারি সংখ্যায় পিছিয়ে থাকায় রানার্স-আপ হয় কিউইরা। এরপর গত জুনে ভারতকে হারিয়ে তারা চ্যাম্পিয়ন হয় টেস্ট চ্যাম্পিয়নশপের প্রথম আসরে। এখন প্রথম টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ জয় কেবল তাদের এক ধাপ দূরে।

এই তিন আসরের আগে ২০১৬ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে সেমি-ফাইনাল খেলে তারা, ২০১৫ ওয়ানডে বিশ্বকাপে খেলে ফাইনাল। এই বছরই আইসিসি টেস্ট র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষে ওঠার স্বাদ পায় কিউইরা নিজেদের ইতিহাসে প্রথমবার। নিউ জিল্যান্ডে ক্রিকেট খুব জনপ্রিয় নয়, শীর্ষ খেলার কাতারে নেই। তাদের সীমাবদ্ধতা আছে আরও অনেক। তার পরও এমন সাফল্য তাদের জন্য অসাধারণ অর্জন, স্কাই স্পোর্টসে আলাপচারিতায় বললেন আথারটন। “তারা সত্যিই একটি অসাধারণ দল, ক্রিকেটের সব সংস্করণেই। তারা আরেকটি বিশ্বকাপের ফাইনালে উঠল, তারা ২০১৯ সালের (ওয়ানডে) বিশ্বকাপ জয়ের খুব কাছাকাছি ছিল, তারা বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের বিজয়ী দল।” “সব সংস্করণ মিলিয়ে, মানতেই হবে যে তারা এই মুহূর্তে সবচেয়ে শক্তিশালী দল। তাদেরকে অভিনন্দন। তাদের লোক সংখ্যা বেশি নয়, আর্থিক সামর্থ্য সীমিত। সবকিছু বিবেচনায় এটি দুর্দান্ত অর্জন এবং যা নিয়ে আমরা প্রায়ই কথা বলে থাকি।” বিশ্বকাপের দ্বিতীয় সেমি-ফাইনালে বৃহস্পতিবার মুখোমুখি হবে পাকিস্তান ও অস্ট্রেলিয়া। আসরের একমাত্র অপরাজিত দল পাকিস্তানকেই এই লড়াইয়ে এগিয়ে রাখছেন আথারটন। সাবেক ওপেনার তুলে ধরলেন নিজের ভাবনার পক্ষে যুক্তিও। “পাকিস্তানকে এগিয়ে রাখছি, আমি মনে করি তাদের বোলিং লাইন আপ এই টুর্নামেন্টের সবচেয়ে সেরা ও বৈচিত্র্যময়।” “এই বোলিং আক্রমণের কথা ভাবুন, শাহিন শাহ আফ্রিদি, হারিস রউফ, স্পিনাররা (ইমাদ ওয়াসিম ও সাদাব খান), তাদের যে কম্বিনেশন আছে, আমার মনে হয়, তাদের আক্রমণ সেরা এবং আমার ধারণা, তারা জিতবে।”