শেষ হলো দিনব্যাপী লার্নিং এন্ড আর্নিং মেলা

175

chapainawabganj-pic-02-12-16-abdur-rob-nahid‘আমরা হবো জয়ী, আমরা দুর্বার, ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে আইসিটি হবে হাতিয়ার’- প্রতিপাদ্যে চাঁপাইনবাবগঞ্জে শুক্রবার দিনব্যাপী ‘লার্নিং এন্ড আর্নিং মেলা’ অনুষ্ঠিত হয়েছে। নবাবগঞ্জ সরকারি কলেজ মাঠে সকাল ১০টায় প্রধান অতিথি হিসেবে মেলার উদ্বোধন করেন সদর আসনের সাংসদ আব্দুল ওদুদ। সরকারের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযক্তি মন্ত্রণালয়ের আইসিটি বিভাগ এ মেলার আয়োজন করে ।
চাঁপাইনবাবগঞ্জের জেলা প্রশাসক মাহমুদুল হাসানের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, নবাবগঞ্জ সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ একেএম মনজুর রেজা ও অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট এরশাদ হোসেন খান।
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি বলেন, বর্তমান সরকার তরুণদের বেকারত্ব দূর করার লক্ষে লার্নিং এন্ড আর্নিং কর্মসূচি হাতে নিয়েছে। এর মাধ্যমে তরুণরা নিজেদেরকে দক্ষ করে অনলাইনে বিভিন্ন ধরণের কাজ করে আয় করতে পারবে। তিনি লার্নিং এন্ড আর্নিং প্রকল্পের আওতায় ৫০ দিনের ট্রেনিং এ অংশগ্রহণকারীদের ভালোভাবে শিক্ষা গ্রহণের আহ্বান জানান।
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের শুরুতে মেলার উদ্দেশ্য সম্পর্কে সকলকে অবহিত করেন প্রকল্পের আ্যসিট্যান্ট ম্যানেজার নাঈন-আল-আমিন ও প্রকল্পের সমন্বয়কারী মাহবুবর রহমান শাকিল।
উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষে মেলায় আউটসোর্সিং বিষয়ে বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন সফল ফ্রিল্যান্সারা। মাঝে মাঝে চাঁপাইনবাবগঞ্জের ফ্রিল্যান্সাররা তাদের সফলতার গল্প তুলে ধরেন। বিকালে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে স্থায়ীয় শিল্পীরা অংশগ্রহণ করেন। সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় শুরু হয় পুরস্কার বিরতণ অনুষ্ঠান। এতে অংশগ্রহণকারী ৩২ জন চাঁপাইনবাবগঞ্জের ফ্রিল্যান্সারের মধ্য থেকে শ্রেষ্ঠ তিনজনকে ল্যাপটপ প্রদান করা হয়। শ্রেষ্ঠ তিন জনের একজন নারীও আছেন, তিনি হলেন মনিরা খাতুন। চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার মহারাজপুর ইউনিয়নের আকুন্দবাড়িয়া গ্রামের এই নারী বর্তমানে মাসে ফ্রিল্যান্সিং করে ৪০-৬০ হাজার টাকা আয় করেন। মেলায় ফ্রিল্যান্সিং এ আগ্রহী তরুণদের ছিল উপচেপড়া ভিড়।
২য় হন শ্রাবন ইসলাম শুভ ও আনোয়ার হোসেন। মেলায় ফ্রিল্যান্সিং এ আগ্রহী তরুনদের উপচে পড়া ভিড় লক্ষ করা যায়।