শীর্ষস্থান মজবুত করল রিয়াল

4

ছন্দে থাকা করিম বেনজেমাকে শুরুতে হারিয়ে প্রথমার্ধে আক্রমণে বেশ ভুগতে দেখা গেল রিয়াল মাদ্রিদকে। তবে বিরতির পর ফিরেই ১০ মিনিটে দুইবার জালে বল পাঠিয়ে ম্যাচের গতিপথ ঠিক করে ফেলল তারা। রিয়াল সোসিয়েদাদকে হারিয়ে লিগ টেবিলের শীর্ষস্থান আরও মজবুত করল কার্লো আনচেলত্তির দল। প্রতিপক্ষের মাঠে শনিবার রাতে লা লিগার ম্যাচটি ২-০ গোলে জিতেছে রিয়াল। ভিনিসিউস জুনিয়র দলকে এগিয়ে নেওয়ার পর ব্যবধান দ্বিগুণ করেন লুকা ইয়োভিচ। দুই বছরেও রিয়ালে জায়গা পাকা করতে না পারা ইয়োভিচ গোল করে ও করিয়ে ম্যাচটি স্মরণীয় করে রাখলেন। স্পেনের শীর্ষ লিগে এই নিয়ে টানা ৬ ম্যাচ জিতল মাদ্রিদের দলটি, অপরাজিত রইল টানা ৮ ম্যাচ। গত মৌসুমে দলটির সঙ্গে দুইবারের দেখায় একবারও জিততে পারেনি রিয়াল। সোসিয়েদাদের মাঠে প্রথম লেগে গোলশূন্য ড্রয়ের পর ফিরতি লেগে হারতে বসেছিল।

পিছিয়ে থেকে শেষ দিকে ভিনিসিউস জুনিয়রের গোলে ড্র করেছিল মাদ্রিদের দলটি। নতুন মৌসুমের প্রথম দেখায়ও শুরুতে তেমন সুবিধা করতে পারছিল না রিয়াল। উল্টো সপ্তদশ মিনিটে দারুণ ফর্মে থাকা বেনজেমাকে হারায় দলটি। পায়ে অস্বস্তি বোধ করায় নিজেই মাঠছাড়ার ইশারা করেন ফরাসি ফরোয়ার্ড। বদলি নামেন ইয়োভিচ। ধীরে ধীরে আক্রমণে চাপ বাড়ানো রিয়াল ২২তম মিনিটে একটি সুযোগ পায়। তবে রদ্রিগোর শট পাঞ্চ করে ফেরান গোলরক্ষক আলেক্স রেমিরো। ৩৯তম মিনিটে কয়েক সেকেন্ডের ব্যবধানে দুবার রিয়ালের রক্ষণে ভীতি ছড়ায় স্বাগতিকরা, দুবারই বিপদমুক্ত করেন ডিফেন্ডার এদের মিলিতাও। প্রথমার্ধে খুঁজে ফেরা ছন্দটা যেন বিরতির পর মাঠে নেমেই পেয়ে যায় রিয়াল। প্রথম মিনিটের সুযোগটা ভেস্তে গেলেও পরের মিনিটেই দারুণ নৈপুণ্যে দলকে এগিয়ে নেন ভিনিসিউস। বাঁ দিক দিয়ে আক্রমণে উঠে ডি-বক্সের লাইন ধরে একটু আড়াআড়ি গিয়ে ইয়োভিচকে পাস দিয়ে ভেতরে ঢুকে পড়েন ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড।

ফিরতি পাস পেয়ে প্রথম ছোঁয়ায় ডান পায়ের শটে গোলরক্ষককে পরাস্ত করেন তিনি। আসরে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ এই গোলদাতার গোল হলো ১০টি। চার মিনিট পর দ্বিতীয় গোল পেতে পারতেন ভিনিসিউস। কিন্তু এবার ফাঁকায় বল পেয়েও শট লক্ষ্যে রাখতে পারেননি তিনি। চাপ ধরে রেখে ৫৭তম মিনিটে ব্যবধান বাড়ায় তারা। কর্নার থেকে উড়ে আসা বলে হেড করে গোলমুখে বাড়ান কাসেমিরো। বল গোলরক্ষক বরাবর ছিল, শেষ মুহূর্তে নিচু হয়ে হেডেই লক্ষ্যভেদ করেন গত মৌসুমের শেষভাগ ধারে আইনট্রাখট ফ্রাঙ্কফুর্টে কাটিয়ে ফেরা সার্বিয়ান স্ট্রাইকার ইয়োভিচ। ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারির পর রিয়ালের জার্সিতে এটাই তার প্রথম গোল। ৭০ মিনিটের পর রিয়াল কিছুটা রক্ষণাত্মক হয়ে পড়ে। সেই সুযোগে চাপ বাড়ায় সোসিয়েদাদ।

যদিও তেমন কোনো সুযোগ তৈরি করতে পারেনি তারা। পুরো ম্যাচে গোলের উদ্দেশ্যে ১০টি শট নিয়েও একটিও লক্ষ্যে রাখতে পারেনি দলটি। নির্ধারিত সময় শেষের তিন মিনিট আগে ব্যবধান আরও বাড়াতে পারতেন ভিনিসিউস। নিজেদের ডি-বক্সের বাইরে থেকে মিলিতাওয়ে দারুণ থ্রু বল ধরে গতিতে সবাইকে পেছনে ফেলে সোসিয়েদাদের বক্সে ঢুকে ওয়ান-অন-ওয়ানে ব্যর্থ হন তিনি। পা বাড়িয়ে ঠেকিয়ে দেন গোলরক্ষক। ১৬ ম্যাচে ১২ জয় ও তিন ড্রয়ে ৩৯ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে রিয়াল। এক ম্যাচ কম খেলা সেভিয়া ৩১ পয়েন্ট নিয়ে দুইয়ে। ১৬ ম্যাচে ৩০ পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয় স্থানে রিয়াল বেতিস। আরেক ম্যাচে ঘরের মাঠে মায়োর্কার বিপক্ষে ২-১ গোলে হারা আতলেতিকো মাদ্রিদ ১৫ ম্যাচে ২৯ পয়েন্ট নিয়ে আছে চতুর্থ স্থানে। সমান পয়েন্ট নিয়ে তারপরেই ১৬ ম্যাচ খেলা সোসিয়েদাদ। ১৫ ম্যাচে ২৪ পয়েন্ট নিয়ে ছয় নম্বরে আছে রায়ো ভাইয়েকানো। দিনের প্রথম ম্যাচে রিয়াল বেতিসের বিপক্ষে ঘরের মাঠে ১-০ গোলে হারা বার্সেলোনা ২৩ পয়েন্ট নিয়ে আছে সাত নম্বরে। চাভির দলও খেলেছে ১৫ ম্যাচ।