দৈনিক গৌড় বাংলা

শনিবার, ১৮ই মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৪ঠা জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১০ই জিলকদ, ১৪৪৫ হিজরি

শিবগঞ্জে ডাকাতের কবলে পড়ে ইউপি সদস্যসহ আহত ৮

 

চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জে ডাকাতের কবলে পড়ে এক ইউপি সদস্যসহ ৮ জন আহত হয়েছেন। গুরুতর আহত হয়ে ওই ইউপি সদস্যসহ ৩ জনকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেছেন শিবগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্মরত চিকিৎসক।
ডাকাতদলের সদস্যরা মোটরসাইকেল আরোহীর মোবাইল সেট এবং নগদ টাকা কেড়ে নেয়। গত শনিবার রাত ১০টার দিকে উপজেলার মোবারকপুর ইউনিয়নের শিকারপুর গাইডহরার রাস্তায় এই ডাকাতির ঘটনা ঘটে।
শিবগঞ্জ থানা পুলিশের দাবি, আহত ইউপি সদস্যের সাথে পূর্বশত্রুতার জেরে এই ঘটনা ঘটে। তবে দুটো বিষয় নিয়েই ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে শিবগঞ্জ থানা।
আহতরা হলেনÑ দাইপুখুরিয়া ইউনিয়নের বিনোদনগড় গ্রামের নুর নবীর ছেলে ইউপি সদস্য মো. সাদ্দাম হোসেন (৩২), তার সঙ্গী একই গ্রামের মফিজুল ইসলামের ছেলে মো. দোয়েল (২৮), তোফিকুল ইসলামের ছেলে উসমান আলী (২৭), মোবারকপুর ইউনিয়নের ইদ্রিস আলীর ছেলে মো. আফসার আলী, তার ভাই মো. সাইদুল ইসলাম, সিদ্দিক আলীর ছেলে সুলতান আলী, ফতে মোহাম্মদের ছেলে আব্দুস সামাদ ও আলহাজ মো. ইউনুস আলীর ছেলে মো. সফিকুল ইসলাম।
জানা গেছে, ইউপি সদস্যসহ তিনজন আরোহী মোটরসাইকেলযোগে দাইপুখুরিয়া থেকে মোবারকপুর হয়ে কানসাটের উদ্দেশ্যে আসছিলেন। এমন সময় ৮-১০ জনের একটি ডাকাত দল রাস্তার ওপর তাদের পথরোধ করে ধরে নিয়ে গিয়ে আমবাগানে বেঁধে রাখে এবং তাদের ওপর বিভিন্ন ধারালো অস্ত্র দিয়ে বেধড়ক মারধর করে।
অন্যদিকে একই সময় টিকোরীবাজার থেকে শিকারপুর গ্রামে বাড়ি ফেরার পথে একই স্থানে ডাকাতের কবলে পড়েন দুই মোটরসাইকেলে থাকা ৫ আরোহী। ডাকাতদলের সদস্যরা তাদেরকে মারধর করে বলে জানান তারা। পরে তাদের চিৎকার শুনে এলাকাবাসী ছুটি আসলে ডাকাত দলের সদস্যরা পালিয়ে যায়।
স্থানীয়রা জানান, ৩ জন মোটরসাইকেলে করে যাওয়ার পথে ডাকাতদলের সদস্যরা পথ রোধ করে এলোপাথাড়ি কোপ দিয়ে আহত করে। স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। একই স্থানে আরো ৫ জন ডাকাতের কবলে পড়ে এবং তাদেরও মারধর করে ছেড়ে দেয়।
শিবগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত চিকিৎসক বলেন, ৩ জনকে আহত অবস্থায় চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। তার মধ্যে একজনের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে হস্তান্তর করা হয়েছে ।
এদিকে, আহত ইউপি সদস্য সাদ্দাম হোসেন বলেন, এটি ডাকাতি নয়, আমাকে পূর্বপরিকল্পিতভাবে হত্যার উদ্দেশ্যে পথরোধ করে আমার ওপর হামলা চালিয়েছে।
অপর আরেক আহত ব্যক্তি মো. আফসার আলী জানান, আমরা দুই ভাইসহ ৫ জন টিকোরীবাজার থেকে বাড়ি ফিরছিলাম। পথিমধ্যে ডাকাতদল আমাদের পথ আটকায় এবং মারধর করে। আমরা ভয়ে বিভিন্ন দিকে ছুটে পালাই এবং লোকজনকে খবর দেই।
এ ব্যাপারে মোবারকপুর ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ড সদস্য মো. আরিফুল ইসলাম কালু জানান, রাতেই শুনতে পাই শিকারপুর গাইডহরার রাস্তায় ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। শুনে খোঁজ নিয়ে জানতে পারি ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। আমার বাড়ির পাশে আফসার আলীসহ ৫ জনকে মারধর করেছে।
এ বিষয়ে শিবগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মো. সাজ্জাদ হোসেন জানান, শিকারপুর গাইডহরার রাস্তার ঘটনাটি ডাকাতি নয়। ইউপি সদস্যের ওপর যে হামলা হয়েছে তা পূর্বশত্রুতার জেরে। তবে, এই ঘটনার সাথে আরো যে ৫ জন আহত হয়েছেন তাদের কথার ভিত্তি হচ্ছে ডাকাতি। এ ঘটনায় অভিযোগ পেয়েছি। ডাকাতি না পূর্বশত্রুতা, দুটো বিষয়েই তদন্ত করা হচ্ছে। তদন্ত শেষে প্রয়োজনীয় আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।

About The Author