দৈনিক গৌড় বাংলা

শনিবার, ১৮ই মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৪ঠা জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১০ই জিলকদ, ১৪৪৫ হিজরি

শিবগঞ্জে ইস্তেসকার নামাজ আদায়
বৃষ্টির জন্য কাঁদলেন মুসুল্লিরা

সারা দেশের মতো তীব্রতাপদাহে পুড়ছে চাঁপাইনাববগঞ্জ। জেলা জুড়েই চলছে তাপপ্রবাহ। প্রচণ্ড খরায় ঝরে পড়ছে আমের গুটি। মাঠে থাকা বোরো ধানে সেচ দিতে হিমসিম খাচ্ছেন কৃষকরা। বৃষ্টির পানির অভাবে খালবিলে পানি কমে গেছে, নেমে গেছে ভূগর্ভস্থ পানির স্তর। জেলার বিভিন্ন স্থানে অগভীর নলকুপগুলো অকেজ হয়ে পড়ছে। কোনো স্থানে খাবার পানির সমস্যাও দেখা দিচ্ছে। তাই পরমকরুণাময় আল্লাহ কাছে রহমতের বৃষ্টির পানি চেয়ে ইস্তেসকার নামাজ আদায় করেছেন চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জের মুসুল্লিরা। নামাজ শেষে আল্লাহর কাছে বৃষ্টি চেয়ে কেঁদেছেন নামাজে অংশ নেয়া সহস্রাধিক মানুষ।
বুধবার সকাল ১০ টায় স্থানীয় তরুণ যুব সমাজের আয়োজনে শিবগঞ্জ উপজেলার শাহবাজপুর ইউনিয়নের ঐতিহাসিক সোনামসজিদ প্রাঙ্গনে এ নামাজ ও দোয়া অনুষ্ঠিত হয়।
নামাজ শেষে গরম থেকে মুক্তি, ফসল রক্ষা ও বৃষ্টির জন্য মহান আল্লাহপাকের রহমত কামনা করে দোয়া করা হয়। এতে হাফিজিয়া মাদ্রাসার ছাত্র ও শিক্ষকসহ শাহবাজপুর এলাকার সাধারণ মানুষ অংশগ্রহণ করেন।
মাওলানার মো. হুমায়ুন কবিরেরর ইমামতিতে ইস্তেসকার দু-রাকাত নামজ আদায় শেষে বৃষ্টির জন্য মুসল্লিদের নিয়ে সৃষ্টিকর্তার দরবারে দু’হাত তুলে মোনাজাত পরিচালনা করেন। সে সঙ্গে পৃথিবীর সকল মুসলমান যাতে ভালো থাকে সে জন্যও দোয়া করা হয়।
ঐতিহাসিক সোনামসজিদের ঈমাম মাওলানা মোহাম্মদ হিজবুল্লাহ জানান, আমাদের শেষ নবী হজরত মুহাম্মদ (সা.) বৃষ্টির জন্য আল্লাহর কাছে ইস্তেসকার নামাজ পড়ে যেমন দোয়া করেছেন আমরাও তা অনুসরণ করছি। আমাদের বিশ^াস আল্লাহ বৃষ্টি দিয়ে শীতল ও বরকতময় করে দিবেন। এ জন্যই আজকের নামাজের এ উদ্যোগ।

About The Author