শর্ত সাপেক্ষে সিটিসেলের তরঙ্গ খুলে দেয়ার নির্দেশ

94

city-cellআগামী ১৯ নভেম্বরের মধ্যে ১০০ কোটি টাকা পরিশোধের শর্তে ‘অবিলম্বে’ দেশের প্রথম মোবাইল ফোন অপারেটর সিটিসেলের বন্ধ তরঙ্গ খুলে দিতে বলেছে সর্বোচ্চ আদালত। সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ বলেছে, সিটিসেল নির্ধারিত তারিখের মধ্যে টাকা পরিশোধ না করলে বিটিআরসি আবারও তরঙ্গ বন্ধ করে দিতে পারবে। তরঙ্গ বন্ধ রাখতে সরকারের আদেশ স্থগিত এবং আবার কার্যক্রম শুরুর জন্য সিটিসেলের এক আবেদনে প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহার নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগের চার সদস্যের বেঞ্চ গতকাল বৃহস্পতিবার এই আদেশ দেয়। ফলে সরকারের কাছে কয়েকশ কোটি টাকা দেনার দায়ে বন্ধ হওয়ার ১৩ দিনের মাথায় দেশের একমাত্র সিডিএমএ মোবাইল অপারেটরটি আবারও খোলার সুযোগ তৈরি হল। বকেয়া টাকা দুই দফায় পরিশোধের শর্তে সুপ্রিম কোর্ট এর আগে দুই মাস সময় দিলেও প্রথম কিস্তির পুরো অর্থ শোধ করতে ব্যর্থ হয় সিটিসেল। এই পরিপ্রেক্ষিতে ২০ অক্টোবর সিটিসেলের তরঙ্গ স্থগিত করা হয়। ওইদিন সন্ধ্যায় বিটিআরসির কর্মকর্তারা র‌্যাব-পুলিশ নিয়ে মহাখালীতে সিটিসেলের প্রধান কার্যালয়ে ঢুকে তরঙ্গ বন্ধের নির্দেশনা বাস্তবায়ন করেন। ১৯৮৯ সালে বাংলাদেশের প্রথম মোবাইল ফোন অপারেটর হিসেবে লাইসেন্স পায় বাংলাদেশ টেলিকম লিমিটেড (বিটিএল), যা পরে মালিকানার হাতবদলে সিটিসেলে পরিণত হয়। সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, এ কোম্পানির ৩৭ দশমিক ৯৫ শতাংশ শেয়ারের মালিক বিএনপি নেতা মোরশেদ খানের প্যাসিফিক মোটরস লিমিটেড। এছাড়া সিঙ্গাপুরের সিংটেল এশিয়া প্যাসিফিক ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড এর ৪৫ শতাংশ এবং ফার ইস্ট টেলিকম লিমিটেড ১৭ দশমিক ৫১ শতাংশ শেয়ারের মালিক।