লেখক পরিষদের আয়োজন: আমিনুল ইসলামের কবিতা পাঠ ও আলোচনা সভা শনিবার

44

‘শিকড় বৈভবের কবি’ আমিনুল ইসলামের লেখা কবিতা পাঠ ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে শনিবার। বিকেল সাড়ে ৩টায় চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে নিজেদের পথচলা উপলক্ষে এ কর্মসূচির আয়োজন করেছে লিখিয়েদের সংগঠন লেখক পরিষদ, চাঁপাইনবাবগঞ্জ। কবিতা পাঠ ও আলোচনা সভাটির সহযোগিতায় রয়েছে জেলা শিল্পকলা একাডেমি।
উল্লেখ্য, চাঁপাইনবাবগঞ্জের কৃতী সন্তান কবি আমিনুল ইসলাম জেলার পদ্মা-পাঙ্গাশমারী নদীবিধৌত টিকলীচর গ্রামে এক কৃষক পরিবারে ১৯৬৩ সালের ২৯ ডিসেম্বর জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা মো. বেলায়েত আলী মন্ডল; মাতা সাজেনুর নেসা। তিনি জনতা হাই স্কুল থেকে জুনিয়র স্কলারশিপ অর্জনসহ ৮ম শ্রেণি উত্তীর্ণ হোন। তিনি ১৯৭৮ সালে সুজন একাডেমি থেকে ১ম বিভাগে (মানবিক) এসএসসি পাস করেন। ১৯৮০ সালে রাজশাহী বোর্ডে মানবিক বিভাগে ৬ষ্ঠ স্থান দখল করে রাজশাহী কলেজ থেকে এইচএসসি পাস করেন। এরপর রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সমাজকর্ম বিষয়ে ১৯৮৩ সালে প্রথম স্থান অর্জন করে সম্মানসহ স্নাতক ডিগ্রি এবং ১৯৮৪ সালে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন। পরবর্তীতে তিনি গভর্নমেন্ট স্টাডিজ বিষয়ে প্রথম শ্রেণিসহ আরেকটি স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভ করেন।
আমিনুল ইসলামের জীবনসঙ্গিনী রোকশানা পারভীন লীনা রাজশাহীর মানুষ। মেয়ে ডালিয়া নওশিন লুবনা এবং ছেলে রাগীব ইশরাক সজন দুজনই প্রকৌশলী।
আমিনুল ইসলাম বিসিএস প্রশাসন ক্যাডারে ১৯৮৫ ব্যাচে মেধাতালিকায় ৬ষ্ঠ স্থান দখল করে ১৯৮৮ সালে সহকারী কমিশনার ও ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে চাকরিতে যোগদান করেন। তিনি প্রথম শ্রেণির ম্যাজিস্ট্রেট, এসি ল্যান্ড, আরডিসি, পৌরসভার প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা, উপজেলা নির্বাহী অফিসার এবং অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক হিসেবে প্রায় ১৬ বছর যশোর, বরিশাল, দিনাজপুর, রংপুর, কুড়িগ্রাম, লক্ষ্মীপুর, লালমনিরহাট, গাইবান্ধা, নওগাঁ প্রভৃতি জেলায় চাকরি করেন। তিনি সিনিয়র সহকারী সচির পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং উপসচিব হিসেবে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ে, বিনিয়োগ বোর্ডের পরিচালক, সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয় এবং প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব, সমবায় অধিদপ্তরের নিবন্ধক ও মহাপরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি বর্তমানে বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালকের দায়িত্ব পালন করছেন।
আমিনুল ইসলাম বর্তমান বাংলা সাহিত্যের এক সুপরিচিত কবি। জাতীয় দৈনিকের সাহিত্য পাতা, লিটল ম্যাগাজিন এবং সাহিত্য পত্রিকা সবখানেই আমিনুল ইসলামের কবিতা, ছড়া, প্রবন্ধ প্রায়শ চোখে পড়ে। তিনি এ সময়ের একজন বহুল আলোচিত কবি। আমিনুল ইসলাম ছাত্রজীবন থেকেই লেখালেখি করে আসছেন। তবে কবি-প্রাবন্ধিক হিসেবে আত্মপ্রকাশ নব্বই দশকে। এ যাবৎ প্রকাশিত গ্রন্থের সংখ্য ২৫টি।
আমিনুল ইসলাম সম্মাননা পুরস্কারও পেয়েছেন। এর মধ্যে রাজশাহী সাহিত্য পরিষদ সাংগঠনিক সম্মাননা ২০০৪; বগুড়া লেখক চক্র স্বীকৃতি পুরস্কার ২০১০; শিশুকবি রকি সাহিত্য পুরস্কার ২০১১; নজরুল সংগীত শিল্পী পরিষদ সম্মাননা ২০১৩; গাঙচিল সাহিত্য পুরস্কার ২০১৫ এবং মানুষ সাহিত্য পুরস্কার ২০১৭; দাগ সাহিত্য পুরস্কার ২০১৮; কবিকুঞ্জ পুরস্কার ২০২১ ও পূর্বপশ্চিম সাহিত্য পুরস্কার ২০২১ উল্লেখযোগ্য।