রোমাঞ্চিত সাবেক ভারত অধিনায়ক কোহলি

3

দক্ষিণ আফ্রিকা সফরেই ছুঁয়ে ফেলতে পারতেন মাইলফলকটা। চোটের জন্য সিরিজের দ্বিতীয় টেস্টে খেলতে না পারায় বেড়ে যায় অপেক্ষা। তাতে হয়তো কিছুটা ভালোই হয়েছে বিরাট কোহলির জন্য। ক্যারিয়ারের শততম টেস্ট ম্যাচটা যে এখন খেলতে পারছেন দেশের মাটিতে! স্বাভাবিকভাবে দারুণ রোমাঞ্চিত সাবেক ভারত অধিনায়ক। বললেন, কখনও ভাবতেই পারেননি এমন মুহূর্ত তার জীবনে আসবে। ২০১১ সালের জুনে কিংসটনে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে টেস্ট দিয়ে লাল বলের ক্রিকেটে পা রাখেন কোহলি। সময়ের পরিক্রমায় এখন তিনি টেস্ট খেলার সেঞ্চুরির দুয়ারে। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে শুক্রবার শুরু হতে যাওয়া মোহালি টেস্ট তার ক্যারিয়ারের ১০০তম টেস্ট। ভারতের দ্বাদশ খেলোয়াড় হিসেবে এই মাইলফলক ছুঁতে যাচ্ছেন তিনি। ম্যাচের আগের দিন বিসিসিআই টিভিকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে কোহলি ফিরে তাকালেন তার ক্যারিয়ারে। ৩৩ বছর বয়সী ব্যাটসম্যান বললেন, এটি তার নিজের, তার পরিবার ও তার কোচের জন্য বিশেষ মুহূর্ত হতে চলেছে। “সত্যি বলতে কখনও ভাবিনি আমি ১০০ টেস্ট খেলব। এ পর্যন্ত যাত্রাটা ছিল দীর্ঘ।

এই ১০০ টেস্টের মধ্যে আমরা অনেক ক্রিকেট খেলেছি। অনেক আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেছি। আমি কৃতজ্ঞ যে ১০০ টেস্ট খেলার সুযোগ পাচ্ছি। ঈশ্বরের আশীর্বাদ আছে।” “ফিটনেস নিয়ে আমি প্রচুর খেটেছি। এটা আমার নিজের, আমার পরিবার এবং আমার কোচের জন্য বড় একটা মুহূর্ত। যতটুকু জানি এই টেস্ট ম্যাচ নিয়ে তিনি (কোচ) খুব খুশি ও গর্বিত।” ৯৯ টেস্টে ৫০.৩৯ গড়ে কোহলির রান ৮ হাজারের কাছাকাছি। সেঞ্চুরি আছে ২৭টি। যার ৭টিই আবার ডাবল। গড়েছেন অনেক রেকর্ড। ডানহাতি এই ব্যাটসম্যান বললেন, সবসময় তার ভাবনা থাকে যতটা সম্ভব ইনিংস লম্বা করা। “সব সময় আমার ভাবনা ছিল ইনিংস বড় করা। প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে পৌঁছানোর আগে জুনিয়র ক্রিকেটে সাতটি-আটটি ডাবল সেঞ্চুরি করেছি। তাই আমার কাছে বিষয়টা ছিল, যতক্ষণ ব্যাট করা যায় ততক্ষণ ব্যাট করব। প্রথম ইনিংসে লিড নেওয়ার এবং দলকে জেতানোর লক্ষ্য থাকত।” টেস্টের অধিনায়কত্ব ছাড়ার পর এটিই হতে যাচ্ছে কোহলির প্রথম টেস্ট। আবার এই ম্যাচেই লাল বলের ক্রিকেটে নেতৃত্বের অভিষেক হতে যাচ্ছে রোহিত শর্মার। দুই জনের জন্যই তাই ম্যাচটা বিশেষ উপলক্ষ।