রেকর্ড গড়লেন অস্ট্রেলিয়া

14

তিন বছরে হারের তেতো স্বাদ ভুলতে বসা অস্ট্রেলিয়ার নারী ক্রিকেট দল গড়েছে দুর্দান্ত এক কীর্তি। ওয়ানডেতে রিকি পন্টিংয়ের নেতৃত্বে প্রায় দুই দশক আগে দেশটির পুরুষ দলের গড়া টানা জয়ের রেকর্ড ভেঙে নতুন বিশ্বরেকর্ড গড়েছে মেগ ল্যানিংয়ের দল। মাউন্ট মঙ্গানুইয়ে রোববার নিউ জিল্যান্ডকে ৬ উইকেটে হারিয়ে ওয়ানডেতে টানা ২২ ম্যাচ জয়ের রেকর্ড গড়ে দলটি।

পুরুষ ও নারী ক্রিকেট মিলিয়ে সীমিত ওভারের এই সংস্করণে লাগাতার এত জয় নেই কোনো দলের। পন্টিংয়ের অস্ট্রেলিয়া দল আগের রেকর্ডটি গড়েছিল ২০০৩ সালে; ওই বছরের জানুয়ারি থেকে মে মাস পর্যন্ত টানা ২১ ওয়ানডে জিতেছিল তারা। রেকর্ড গড়ার ম্যাচে নিউ জিল্যান্ডের মেয়েদের ২১২ রানে গুটিয়ে দেয় অস্ট্রেলিয়া। রান তাড়ায় ৬৯ বল আগেই জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় তারা। ৬৫ রানের ইনিংস খেলেন অ্যালিসা হিলি। ম্যাচ শেষে অস্ট্রেলিয়ার এই কিপার-ব্যাটার জানান, পন্টিংয়ের রেকর্ড ভাঙতে পারা তাদের জন্য বিশেষ এক অর্জন। “এটা বিশেষ অনুভূতি। আমি মনে করি, মেয়েরা এই অর্জনকে হালকাভাবে নেবে না।

দুর্দান্ত একটি রেকর্ড ভেঙেছি আমরা।” “এটা বিশেষ একটি রেকর্ড। এই ড্রেসিং রুমের বেশ কয়েকজন ক্রিকেটার, বিশেষ করে আমি, রিকি পন্টিংকে আদর্শ মেনে বড় হয়েছি। আমি ঠিক তার মতো ব্যাটিং করতে এবং খেলায় আধিপত্য দেখাতে চাইতাম। তাই এতদিন তার দলের অধীনে থাকা রেকর্ডটি ভাঙতে পারা এই দলের জন্য বিশেষ কিছু।” অস্ট্রেলিয়ার মেয়েদের এই রেকর্ডের পথে চলা শুরু হয়েছিল ২০১৮ সালের মার্চে, ভারতকে হারিয়ে।

এরপর তারা পাকিস্তান, ওয়েস্ট ইন্ডিজ, ইংল্যান্ড, শ্রীলঙ্কা ও নিউ জিল্যান্ডকে হারিয়ে চলেছে। মেয়েদের ওয়ানডেতে টানা জয়ের তালিকায় পরের দুটি স্থানও অস্ট্রেলিয়ার, ১৭ ও ১৬ ম্যাচের। ভারত আছে এরপরে, তাদের জয় টানা ১৬টিতে। ছেলেদের ক্রিকেটের এই সংস্করণে অস্ট্রেলিয়া থেকে বেশ পিছিয়ে দ্বিতীয় স্থানে থাকা দক্ষিণ আফ্রিকা। ২০০৫ সালে টানা ১২ ম্যাচ জিতেছিল দলটি। ২০১৬ থেকে ২০১৭ সালেও লাগাতার ১২ ওয়ানডেতে জয় আছে তাদের। সমান সংখ্যক টানা জয় আছে পাকিস্তানেরও।