‘রিজার্ভ ডে’ না থাকায় দুই দলের আক্ষেপ

5

খেলা পরিত্যক্ত হওয়ার আনুষ্ঠানিক ঘোষণা যখন এলো, তখনও গ্যালারিতে ১৫ হাজারের চেয়ে বেশি দর্শক। বৃষ্টি ভেজা শরীর নিয়েও মনে ছিল আশা, যদি কয়েক ওভারও খেলা হয়! শেষ পর্যন্ত তাদের মাঠ ছাড়তে হয়েছে দীর্ঘশ্বাস ফেলে। টিভি পর্দার সামনে লাখো দর্শকেরও সঙ্গী ছিল হতাশা। একটি প্রশ্ন ছিল হয়তো সবারই, ফাইনালের ‘রিজার্ভ ডে’ কেন নেই! প্রশ্ন এবং আক্ষেপ ছিল দুই দলের ড্রেসিং রুমেও। দর্শকদের মতো খেলা শুরুর অপেক্ষায় ছিল ক্রিকেটাররাও। সমর্থকদের জন্য, দলের জন্য, খেলাটার জন্য মাঠে নামতে উদগ্রীব ছিল ক্রিকেটাররা। কিন্তু ঝিরঝির বৃষ্টির মধ্যে কিছুক্ষণ ফুটবল নিয়ে ছুটোছুটি করা ছাড়া আর কিছু করার সুযোগ হয়নি তাদের। ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশের প্রতিনিধি হয়ে আসা সিনিয়র ক্রিকেটার মাহমুদউল্লাহ জানালেন, বাড়তি একটি দিন রাখা হলে কতটা ভালো হতো। “একজন ক্রিকেটার হিসেবে আমি বলব যে রিজার্ভ ডে থাকলে ভালো হতো। ফাইনাল খেলতে পারতাম আমরা। ক্রিকেটের জন্যই ভালো হতো। রশিদ খানের কণ্ঠেও ছিল একই হতাশার সুর। আফগানিস্তান অধিনায়কের আশা, ভবিষ্যতে যেন এই ব্যাপার ভাবা হয়। “রিজার্ভ ডে থাকলে দারুণ হতো। ড্রেসিং রুমে আমরা এটা নিয়েই কথা বলছিলাম যে ফাইনালে রিজার্ভ ডে থাকলে কতই না ভালো হতো। ফাইনালের মতো বড় ম্যাচ বৃষ্টিতে ভেসে গেলে ক্রিকেটার হিসেবে সবসময়ই হতাশার। আশা করি, ভবিষ্যতে ফাইনালের জন্য রিজার্ভ ডে থাকবে।”