যারা এ দেশের স্বাধীনতা চায়নি তারাই বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেছে : খাদ্যমন্ত্রী

84

খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার এমপি বলেছেন, যারা এ দেশের স্বাধীনতা চায়নি, যারা এ দেশের উন্নয়ন চায়নি, তারাই হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যা করেছিল। বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে বঙ্গবন্ধুর নাম চিরদিনের মতো মুছে দিতে চেয়েছিল। কিন্তু জীবিত বঙ্গবন্ধুর চেয়ে মৃত বঙ্গবন্ধু আরো বেশি শক্তিশালী হয়েছেন। আরো বেশি এ দেশের আপামর জনসাধারণের মনে জায়গা করে নিয়েছেন।

মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে নিয়ামতপুর উপজেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে খাদ্যমন্ত্রী এসব কথা বলেন। রবিবার বেলা ৪টায় জেলা পরিষদ অডিটোরিয়ামে এ আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।
খাদ্যমন্ত্রী বলেন, আজ বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যা বাংলাদেশের সফল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশকে যখন উন্নয়নের চরম শেখরে পৌঁছে দিচ্ছেন, ঠিক তখনই ৭১ এর সেই পরাজিত শক্তি আবার সেই রূপ ধারণ করে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভাঙচুর করছে, দেশে অরাজকতা সৃষ্টির চেষ্টা করছে। তারা জানে না শেখ হাসিনা মানে বাংলাদেশ, শেখ হাসিনা মানে বাংলাদেশের উন্নয়ন। শেখ হাসিনা ছাড়া বাংলাদেশের উন্নয়ন সম্ভব নয়।
উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি বাবু ঈশ্বর চন্দ্র বর্মনের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন- উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহসভাপতি খালেকুজ্জামান তোতা, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ফরিদ আহম্মেদ, উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহনাজ পারভীন।
উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ আবুল কালাম আজাদের সঞ্চালনায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ও নওগাঁ জেলা পরিষদের সদস্য সিরাজুল ইসলাম, নওগাঁ জেলা আওয়ামী লীগের কোষাধ্যক্ষ আব্দুল খালেক, প্রচার সম্পাদক রঞ্জিত কুমার, অন্যতম সদস্য আবেদ হোসেন মিলন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আলহাজ আইয়ুব হোসাইন, উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নাদিরা বেগমসহ অন্য নেতৃবৃন্দ।
আলোচনা শেষে প্রধানমন্ত্রীর কল্যাণ তহবিল হতে দুস্থ ও অসুস্থদের মধ্যে চিকিৎসার জন্য চেক ও শীতবস্ত্র বিতরণ করা হয়।