মেসি ম্যাজিকে টাইব্রেকারে জিতলো মায়ামি

5

ইন্টার মায়ামির জার্সি গায়ে প্রতিপক্ষের মাঠে প্রথম ম্যাচ। সেই ম্যাচে মাঠে নেমেই বাজিমাত করলেন বিশ্বকাপজয়ী আর্জেন্টাঈন কিংবদন্তি লিওনেল মেসি। মায়ামির জার্সি গায়ে ইতোমধ্যেই ৩ ম্যাচ খেলেই ৫ গোল করে ফেলা মেসি এই প্রথমবার গিয়েছিলেন প্রতিপক্ষের মাঠে। এফসি ডালাসের বিপক্ষে লিগ কাপের সেই ম্যাচে মেসির খেলা দেখতে ১০ মিনিটেই বিক্রি হয়ে গিয়েছিলো সব টিকিট। ভক্তদের এই উন্মাদনা বৃথা যায়নি। পুরো ম্যাচজুড়ে মেসি ম্যাজিকে বুঁদ হয়ে থেকেছেন তারা। ডালাসের কাছে হারতে বসা ম্যাচে মেসির জাদুতেই সমতায় ফেরে মায়ামি, পরে টাইব্রেকারে জিতে কোয়ার্টার ফাইনালও নিশ্চিত করেছে ডেভিড বেকহ্যামের দল।

সোমবার প্রতিপক্ষের মাঠে প্রথমবার খেলতে নেমে ম্যাচের শুরুতেই গোলের দেখা পেয়ে যায় মেসি। এই নিয়ে মায়ামির জার্সিতে তিন ম্যাচে শুরুর একাদশে থেকে তিন ম্যাচেই ১০ মিনিটের মধ্যেই গোলের দেখা পেলেন আর্জেন্টাইন জাদুকর। ডালাসের মাঠে ম্যাচের ৬ মিনিটেই জর্ডি আলবার পাস থেকে গোল করে দলকে এগিয়ে নেন মেসি। মায়ামির জার্সিতে এদিনই প্রথম একসঙ্গে মাঠে নেমেছিলেন সাবেক তিন বার্সেলোনা সতীর্থ মেসি-বুসকেটস-আলবা। ম্যাচের শুরুতেই মেসি -আলবার সেই পুরোনো রসায়নেই ডালাসের বিপক্ষে লিড নেয় মায়ামি। ম্যাচের শুরুতেই গোল খেয়ে নিজেদের খেলার ধরণ পালটে কাউন্টার অ্যাটাক ফুটবল খেলতে থাক ডালাস। তাতে বেশ সফলও হয় তারা। মেসির গোলে এগিয়ে গেলেও প্রথমার্ধেই দুই গোল খেয়ে উল্টো ২-১ গোলে পিছিয়ে পড়ে মায়ামি। দ্বিতীয়ার্ধে খেলতে নেমে বিপদ আরও বাড়ে মায়ামির।

৬৩ মিনিটে ডালাসের হয়ে আরেকটি গোল করে ৩-১ গোলে দলকে এগিয়ে নেন অ্যালান ভেলাসকো। ৬৫ মিনিটেই অবশ্য আলবার অ্যাসিস্টে মায়ামির হয়ে ব্যবধান কমিয়েছিলেন বেঞ্জামিন ক্রেমাশ্চি। তবে তার মিনিট তিনেক পরেই আবারও বাড়ে বিপদ। কাউন্টার অ্যাটাক থেকে আসা বল ক্লিয়ার করতে গিয়ে উল্টো নিজেদের জালেই বল জড়িয়ে ফেলেন মায়ামির ফরোয়ার্ড রবার্ট টেইলর। ৪-২ গোলে পিছিয়ে পড়ার পর অনেকেরই মনে হয়েছিলো লিগ কাপ থেকে বাদই পড়তে যাচ্ছে মায়ামি। তবে তখনও মাঠে ছিলেন একজন মেসি, তাই তো হাল ছাড়েনি মায়ামি। হাতের আর্মব্যান্ডটা যেন আরেকটু শক্ত করেই আবার শুরু করলেন নতুন করে।

আর মেসি যখন তার জাদু দেখানো শুরু করে তখন প্রতিপক্ষের তা অবাক হয়ে দেখা ছাড়া কোনো উপায় থাকে না। ম্যাচের শেষভাগে এসে মেসির দুই ফ্রি কিক থেকে দুই গোল। অবশ্য একটি ছিলো আত্মঘাতী। ম্যাচের ৮০ মিনিটে মেসির ফ্রিকিকে নিজেদের জালে বল জড়িয়ে দেন ডালাস লেফটব্যাক মার্কো ফারফামিনিটে। আর ঠিক পাঁচ মিনিট পর দুর্দান্ত এক ফ্রি কিকে নিজেই৮ ডালাসের জালে বল জড়িয়ে মায়ামিকে সমতায় ফেরান মেসি। মেসি জাদুতে অবিশ্বাস্য এক প্রত্যাবর্তনের গল্প লিখেই সেন হারতে বসা ম্যাচকে টাইব্রেকারে নিয়ে যায় মায়ামি। সেখানে ৫-৩ গোলে ডালাসকে হারিয়ে লিগ কাপের কোয়ার্টার ফাইনালে চলে গেলো মায়ামি। মায়ামির হয়ে এখন পর্যন্ত ৪ ম্যাচে মাঠে নেমেই ৭ গোল করে দলকে টানা চতুর্থ জয় এনে দিয়েছেন মেসি।