মালয়েশিয়ার দক্ষিণাঞ্চলে বন্যায় ৪ জনের মৃত্যু

11

কয়েকদিনের টানা বর্ষণে সৃষ্ট বন্যায় সিঙ্গাপুর সীমান্তবর্তী মালয়েশিয়ার দক্ষিণের রাজ্য জোহোরের প্রায় ৪০ হাজার মানুষ ঘর ছেড়ে অন্যত্র আশ্রয় নিতে বাধ্য হয়েছে বলে জানিয়েছেন সেখানকার কর্মকর্তারা। বৃষ্টি-বন্যায় গত এক সপ্তাহে রাজ্যটিতে অন্তত চারজনের মৃত্যুও হয়েছে, শনিবার বলেছেন তারা। “সাধারণত আমরা নভেম্বর-ডিসেম্বরের বর্ষাকালের জন্য প্রস্তুত থাকি। প্রতিটি পরিবারের একটি করে নৌকা থাকে। কিন্তু এখন যে অনিশ্চিত আবহাওয়া, মনে হচ্ছে, আমরা প্রস্তুত নই এবং পরিস্থিতি আরও বিশৃঙ্খল হয়ে উঠছে,” বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে এমনটাই বলেছেন জোহোরের বাটু পাহাট জেলার ইয়ং পেং শহরের ৫৭ বছর বয়সী বাসিন্দা মোহাম্মদ নুর।

বন্যায় ঘরছাড়াদের জন্য কর্তৃপক্ষ দুইশর বেশি আশ্রয় কেন্দ্র খুলেছে বলে জানিয়েছে মালয়েশিয়ার জাতীয় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা সংস্থা। অক্টোবর থেকে মার্চ পর্যন্ত বর্ষা মৌসুমে মালয়েশিয়ায় নিয়মিতই বন্যা দেখা যায়, কিন্তু গত এক সপ্তাহ ধরে যে বর্ষণ হচ্ছে তাতে জোহোরের অসংখ্য বাসিন্দাকে আশ্রয় কেন্দ্রগুলোতে ছুটতে হচ্ছে। জোহোর সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত রাজ্য হলেও, সাম্প্রতিক বন্যা মালয়েশিয়ার অন্য রাজ্যের বাসিন্দাদেরও বিপাকে ফেলেছে, সেসব রাজ্যের অনেকেও ঘর ছেড়ে অন্যত্র আশ্রয় খুঁজছেন। আসছে দিনগুলোতে মালয়েশিয়াজুড়ে আরও বৃষ্টি দেখা যাবে বলে সতর্ক করেছে দেশটির আবহাওয়া বিভাগ। বেশিরভাগ বৃষ্টিই হতে পারে দক্ষিণের রাজ্যগুলোতে, বলেছে তারা।