মামলার প্রতিবাদে রহনপুর পৌর মেয়রের সংবাদ সম্মেলন

13

চাঁপাইনবাবগঞ্জের রহনপুর পৌর এলাকার এক নারীর করা মামলার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করেছে রহনপুর পৌর পরিষদ। সোমবার দুপুরে পৌর মেয়রের কার্যালয়ে এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।
পৌর পরিষদের পক্ষে লিখিত বক্তব্য দেন রহনপুর পৌর মেয়র মতিউর রহমান খান। লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, ২০২১ সাল হতে জনগণের ভোটে নির্বাচিত হবার পর থেকে এ পৌর পরিষদ সুষ্ঠুভাবে কাজ করে চলেছে। বিগত এক বছরে অতীতের চেয়ে বেশি উন্নয়নমূলক কাজ হয়েছে। তিনি বলেন, ইমারত নির্মাণ পৌরসভার নিয়মিত কাজের অংশ। স্থানীয় সরকার (পৌরসভা) আইন ২০০৯ এর ৩৫(১) অনুযায়ী পৌরসভা কর্তৃক ইমারতের জায়গা (সাইট) এবং ইমারতের নকশা অনুমোদিত না হওয়া পর্যন্ত কোনো ব্যক্তি ইমারত নির্মাণ অথবা পুনঃনির্মাণ করতে পারবেন না। কিন্তু বাদিনী নাজমা বেগমকে বারবার নোটিশ দেয়া সত্ত্বেও পৌর কর্তৃপক্ষকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে তিনি নির্মাণ কাজ চালিয়ে যান। ফলে পৌর কর্তৃপক্ষ পৌরসভার বিধি মোতাবেক নির্মাণ সামগ্রী (২৫৬টি ইট, ১০টি রড ও ১৫টি রডের বালা) জব্দ করে পৌরসভায় নিয়ে আসা হয়।
মেয়র বলেন, তার ইমারত ভেঙে ফেলা বা জখমের কোনো ঘটনা ঘটেনি। তারপরও বাদিনী নাজমা বেগম তাকেসহ ২৬ জনের বিরুদ্ধে মিথ্যা বানোয়াট, ভিত্তিহীন ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে মামলা দায়ের করেন। তিনি আরো বলেন, প্রাতিষ্ঠানিক দায়িত্ব পালন করতে এসে মামলার শিকার হতে হলো। তিনিসহ ২ জন কাউন্সিলর, তার ছোট ভাই, ভগ্নিপতি, ভাগ্নে, প্রধান শিক্ষক, গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও আত্মীয়স্বজনকে মামলায় আসামি করা হয়েছে; এটা মেনে নেয়া যায় না। এর প্রতিকার হওয়া আবশ্যক।
মেয়র মতি সকল বাধা দূর করে পৌরসভা আইনের বাস্তবায়নে সকলের সহযোগিতা চান।
সংবাদ সম্মেলন পৌর সচিব খাইরুল হকসহ পরিষদের সকল সদস্য, কর্মকর্তা-কর্মচারী উপস্থিত ছিলেন। এ সময় তারা মেয়রসহ ২৬ জনের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানান।
উল্লেখ্য, গত ৭ ফেব্রুয়ারি রহনপুর পৌর এলাকার নুনগোলা প্রসাদপুর মহল্লার মৃত আনোয়ারুল ইসলামের স্ত্রী নাজমা বেগমের দায়েরকৃত মামলায় মেয়রসহ ২৫ জন আদালতে জামিন চায়তে গেলে আদালত জামিন নামঞ্জুর করে জেল হাজতে পাঠিয়ে দেন। পরে গত বৃহস্পতিবার মেয়রসহ ২৫ জনকে আদালত জামিন দেন।