মাদকপাচারের অভিযোগে হন্ডুরাসের সাবেক প্রেসিডেন্ট গ্রেপ্তার

7

মাদকপাচারের অভিযোগে হন্ডুরাসের সাবেক প্রেসিডেন্ট জোয়ান অরল্যান্ডো হার্নান্দেজকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। বিবিসির খবরে বলা হয়েছে,গত মঙ্গলবার রাতে দেশটির রাজধানী তেগুচিগালপায় সাবেক এই প্রেসিডেন্টের বাড়ি ঘিরে ফেলে পুলিশ। সেখান থেকে হাতকড়া অবস্থায় হার্নান্দেজকে বের করে আনা হয়। এর আগে দেশটির আদালতের মুখপাত্র মেলভিন দুতার্তে জানান, হার্নান্দেজের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছে। এর আগে মাদকপাচারে জড়িত থাকার অভিযোগে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে তার প্রত্যর্পণের অনুরোধ জানানোর পর দেশটির আদালত তাকে গ্রেপ্তারের আদেশ দেন।

হার্নান্দেজ ২০১৪ সাল থেকে চলতি বছরের জানুয়ারি পর্যন্ত হন্ডুরাসের প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। তিনি মাদক পাচারকারীদের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগের মধ্যে পদত্যাগ করলে তার তার স্থলাভিষিক্ত হন বামপন্থী নেতা জিওমারা কাস্ত্রো যিনি দেশটির প্রথম নারী প্রেসিডেন্ট। অরল্যান্ডো হার্নান্দেজের বিরুদ্ধে মাদক পাচারকারী চক্রের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগ রয়েছে। এ চক্রের সদস্য তার ছোট ভাই টনি হার্নান্দেজকে গত বছর যুক্তরাষ্ট্রে যাবজ্জীবন কারাদ- দেওয়া হয়। দক্ষিণ আমেরিকা থেকে যুক্তরাষ্ট্রে অবৈধ মাদক চোরাচালানের জন্য হন্ডুরাসকে ট্রানজিট হিসেবে ব্যবহার করে আসছে অপরাধীরা।

দেশটিতে কোকেনও উৎপাদন হয়ে থাকে এমন অভিযোগও রয়েছে। ক্ষমতায় থাকার সময় জোয়ান অরল্যান্ডো মাদক চোরাচালান মোকাবিলায় যা যা করণীয় তার সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছেন বলে দাবি করেন। তৎকালীন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পও তার সরকারকে সমর্থন করেন। কিন্তু জো বাইডেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণের পর হন্ডুরাসের এই সাবেক প্রেসিডেন্টের সঙ্গে সম্পর্ক অবনতি হয়। গত সপ্তাহে মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তরের প্রকাশিত এক বিজ্ঞপ্তিতে হার্নান্দেজকে দুর্নীতিমূলক কর্মকা-ের জন্য যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়। মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টোনিও ব্লিঙ্কেন বলেন, আমাদের কাছে নির্ভরযোগ্য প্রতিবেদন রয়েছে যে হন্ডুরাসের এই নেতা দুর্নীতি ও মাদক পাচারের সঙ্গে জড়িত। এর মাধ্যমে অবৈধ অর্থ আয় করেছেন।