মাঘের বৃষ্টি আমের জন্য আশীর্বাদ

17

আবহাওয়া অধিদপ্তর গত বৃহস্পতিবার জানিয়েছিল রংপুর, রাজশাহী, ময়মনসিংহ, সিলেট, খুলনা ও ঢাকা বিভাগে বৃষ্টি হতে পারে। সেকথা সত্যি হয়েছে। শুক্রবার ভোররাত থেকে তার নমুনা দেখে গেছে। চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলায় বাতাসের সঙ্গে শুরু হয় বৃষ্টি। বাতাসের ধরণ ছিল অনেকটা দমকা হাওয়ার মতো। ছুটির দিন হওয়ায় রাস্তাঘাটে মানুষজনকে তেমন দেখা যায় নি। তবে গতকাল শুক্রবার দুপুর থেকে বৃষ্টি হয় নি। সেই সঙ্গে বাতাসও বন্ধ হয়ে যায়।
এদিকে কৃষি অফিস বলছে মাঘের এই বৃষ্টি ডাল জাতীয় ফসল বিশেষ করে মুশুরের ব্যাপক ক্ষতি হবে। এবার জেলায় ১৮ হেক্টর জমিতে মুশুর আবাদ হয়েছে। অন্যদিকে আম ও বোরো আবাদসহ অন্যান্য ফসলের জন্য আশীর্বাদ হবে মাঘের এই বৃষ্টি। আম গাছগুলোর ময়লা ধুয়ে যাবে। এতে গাছগুলো মুকুলিত হবে সহজেই। অপর দিকে এখন চলছে বেরো আবাদ। সেচ নির্ভর বেরো আবাদ এই বৃষ্টির ফলে কিছুটা হলেও উপকৃত হবে। এমনটাই জানিয়েছেন চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মুহাম্মদ নজরুল ইসলাম।
অণ্যদিকে চাঁপাইনবাবগঞ্জ আঞ্চলিক উদ্যোনতত্ত্ব গবেষণা কেন্দ্রের মূখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মো. মোখলেসুর রহমান বলেন-মাঘের বৃষ্টি আমের জন্য আশীর্বাদ। কেননা এসময় আম চাষিদেও একটি সেচ লাগে সেটি লাগবে না। এছাড়া গাছগুলো ধুয়ে যাওয়ায় মুকুলায়ন হবে সহজেই। তবে যে সব আম চাষি এখনও প্রথম স্প্রেটি করেন নি তারা যেন দ্রুত স্প্রেটি করে ফেলেন। তিনি তাদের পরামর্শ দিয়ে বলেন-প্রতিলিটার পানিতে ২ গ্রাম হারে সালফার জাতীয় ছত্রাকনাশক যেমন কুমুলাস অথবা থিওভিট এবং এর সঙ্গে কীটনাশক সাইপারমেথ্রিন অথবা ইমিডাকল্লোপ্রিড ০.৫ মিলি মিশিয়ে স্পেটি করতে হবে।
এদিকে শৈত্যপ্রবাহ কেটে গেলেও বৃষ্টির সঙ্গে বাতাসের কারণে খেটে খাওয়া দরিদ্র মানুষকে বিপাকে পড়তে হয়।