ভয়াল ২৯ এপ্রিল

176

ভয়াল ২৯ এপ্রিল । ১৯৯১ সালের এদিনে প্রলয়ঙ্করী ঘূর্ণিঝড় ও জলোচ্ছ্বাসে বাংলাদেশের দক্ষিণ-পূর্ব চট্টগ্রাম বিভাগের উপকূলীয় অঞ্চলের প্রায় ১ লাখ ৩৮ হাজার মানুষ নিহত এবং এক কোটি মানুষ তাদের সর্বস্ব হারান। নিহতের সংখ্যা বিচারে স্মরণকালের ভয়াবহতম ঘূর্ণিঝড়গুলোর মধ্যে ১৯৯১ এর এই ঘূর্ণিঝড় একটি।
১৯৯১ এর এই ভয়াল ঘটনা এখনো দুঃস্বপ্নের মতো তাড়িয়ে বেড়ায় উপকূলবাসীকে। ঘটনার এত বছর পরও স্মৃতি থেকে মুছে ফেলতে পারেন না সেই দুঃসহ সময়গুলো। গভীর রাতে ঘুম ভেঙে যায় জলোচ্ছ্বাস আর ঘূর্ণিঝড়ের কথা মনে হলে। নিহতদের লাশ, স্বজন হারানোদের আর্তচিৎকার আর বিলাপ ফিরে ফিরে আসে তাদের জীবনে।
পত্রপত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদ থেকে জানা গেছে, ঘূর্ণিঝড়টি ১৯৯১ সালের ২৯ এপ্রিল চট্টগ্রাম বিভাগের উপকূলীয় অঞ্চলে প্রায় ২৫০ কিলোমিটার / ঘণ্টা রেগে আঘাত করে। এই ঘূর্ণিঝড়ের ফলে ৬ মিটার (২০ ফুট) উচ্চতার জলোচ্ছ্বাস উপকূলীয় এলাকা প্লাবিত করে এবং এর ফলে প্রায় ১ লাখ ৩৮ হাজার মানুষ নিহত হন। এদের বেশিরভাগই নিহত হন চট্টগ্রাম জেলার উপকূল ও দ্বীপসমূহে। সন্দ¦ীপ, মহেশখালী, হাতীয়া দ্বীপে নিহতের সংখ্যা সর্বাধিক। এর মধ্যে শুধু সন্দ¦ীপে মারা যান প্রায় ২৩ হাজার লোক। খবর বাসস।
প্রতি বছরের মতো বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠন স্মরণ করবে এই দিনটিকে। ঢাকা সন্দ¦ীপ সমিতি এদিনে নিহতদের আত্মার মাগফিরাত কামনায় মিলাদ, দোয়া মাহফিল এবং আলোচনা সভার আয়োজন করেছে। আজ সোমবার বিকাল ৫টায় কাকরাইলে রূপালী লাইফ টাওয়ারে অনুষ্ঠিতব্য আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করবেন সংগঠনের সভাপতি মাহফুজুর রহমান মিতা এমপি।