ভোলাহাটে ইউপি নির্বাচন : সংঘর্ষে আহত কয়েকজন ফল স্থগিত ৪ কেন্দ্রের

62

চাঁপাইনবাবগঞ্জের ভোলাহাট উপজেলার চারটি ইউনিয়নে গতকাল রবিবার সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। নির্বাচনে একটি কেন্দ্রে দুই পার্থীর সমর্থকদের মধ্যে মারামারির ঘটনা ঘটেছে। অন্যদিকে দুটি ইউনিয়নে অনিয়মের কারণে চারটি ভোট কেন্দ্রের ভোট স্থগিত করা হয়েছে।
পুলিশ ও নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, ভোটগ্রহণ শেষ হওয়ার এক ঘণ্টা আগে গোহালবাড়ী ইউনিয়নের খালেআলমপুর ভোট কেন্দ্রে দুই সাধারণ ওয়ার্ড সদস্য পদপার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে আহত হন বেশ কয়েকজন। আহতদের উদ্ধার করে ভোলাহাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এবং চারজনকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। রবিবার বিকেলে এই ঘটনা ঘটে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে চেষ্টা করলে পুলিশের ওপর ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করা হয়। এতে ৩ জন পুলিশ সদস্য আহত হন। পরিপ্রেক্ষিতে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে কয়েক রাউন্ড রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে।
চাঁপাইনবাবগঞ্জের পুলিশ সুপার এএইচএম আবদুর রকিব জানান, গোহালবাড়ী ইউনিয়নের খালেআলমপুর ভোট কেন্দ্রে দুই সাধারণ ওয়ার্ড সদস্য পদপার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সামান্য মারামারির ঘটনা ঘটেছে। তবে এতে আহত হয়েছে কিনা তা জানা যায়নি। তিনি জানান, পুলিশ রাবার বুলেট নিক্ষেপ করেছে। তবে কত রাউন্ড রাবার বুলেট নিক্ষেপ করা হয়েছে তা নিরূপণ করা হচ্ছে। বর্তমানে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।
এদিকে জেলা নির্বাচন অফিসার মো. মোতাওয়াক্কিল রহমান জানান, গোহালবাড়ী ইউনিয়নের খালেআলমপুর ভোট কেন্দ্রে এবং দলদলি ইউনিয়নের নজিরপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ময়ামারি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও আদাতলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রে জোর করে ব্যালট পেপারে সিল মারার ঘটনায় কেন্দ্রে বিশৃঙ্খল অবস্থার সৃষ্টি হয়। পরিপ্রেক্ষিতে দুপুর ২টার দিকে কেন্দ্র চারটিতে ভোট গ্রহণ স্থগিত করা হয়।
ভোলাহাট উপজেলায় ভোলাহাট সদর, দলদলি, গোহালবাড়ী ও জামবাড়িয়া ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ১৭ জন, সংরক্ষিত ওয়ার্ড সদস্য পদে ৬৯ জন এবং সাধারণ ওয়ার্ড সদস্য পদে ১৬৭ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। এই ৪ ইউনিয়নে মোট ভোটার ছিল ৭৯ হাজার ৫৫৪ জন। এর মধ্যে পুরুষ ৩৮ হাজার ৯৭০ জন এবং নারী ভোটার ৪০ হাজার ৫৮৪ জন। ভোট কেন্দ্র ৩৭টি, ভোটকক্ষ ২৪৩টি, অস্থায়ী ভোট কেন্দ্র ৪৭টি। প্রিজাইডিং অফিসার ৩৭ জন, সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার ২৪৩ জন এবং পোলিং অফিসার ছিলেন ৪৮৬ জন।
রাত সাড়ে ৮টায় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ভোট গণনা চলছিল।