ভারতের সংগীতশিল্পী সুমিত্রা সেন আর নেই

2

বছরের শুরুতেই সংগীত জগতে নক্ষত্র পতন। প্রয়াত হলেন সংগীতশিল্পী সুমিত্রা সেন। ব্রংকোনিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হয়েছিলেন তিনি। হাসপাতালেও ভর্তি করা হয়েছিল। সোমবারই ৮৯ বছরের শিল্পীকে বাড়িতে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানেই গতকাল মঙ্গলবার ভোরে শেষনিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। রবীন্দ্রসংগীতের অনুরাগী ছিলেন সুমিত্রা সেন। তার মাধ্যমেই শ্রোতাদের মন জয় করে নিয়েছেন। সংগীত জগতেই খ্যাতি অর্জন করেন শিল্পীর দুই মেয়ে ইন্দ্রাণী সেন ও শ্রাবণী সেন। মায়ের মতোই রবীন্দ্রসংগীতের জগতে নিজস্বতা অর্জন করেছেন শ্রাবণী সেন। ইন্দ্রাণী সেন রবীন্দ্রসংগীতের পাশাপাশি আধুনিক গানেও শ্রোতাদের মন জয় করেছেন। জানা গেছে, বেশ কিছুদিন ধরেই অসুস্থ ছিলেন বর্ষীয়ান শিল্পী। বার্ধক্যজনিত সমস্যা তো ছিলই পাশাপাশি ঠা-া লেগেছিল তার। পরিস্থিতির অবনতি হলে গত ২১ ডিসেম্বর কলকাতার বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয় সুমিত্রা সেনকে। সেখানেই শিল্পীর ব্রংকোনিউমোনিয়া ধরা পড়ে। ফুসফুসে নিউমোনিয়ার প্যাঁচও ছিল বলে শোনা গেছে। বর্ষীয়ান শিল্পীকে রাইলস টিউব দিয়ে খাওয়ানো হচ্ছিল। শ্বাসকষ্টেরও সমস্যা ছিল বলে খবর। নতুন বছরেও শিল্পীর শারীরিক অবস্থার বিশেষ উন্নতি হয়নি। তবে পরিস্থিতি বিবেচনা করেই সোমবার সুমিত্রা সেনকে বাড়ি নিয়ে যাওয়া হয়। জানা গেছে, মঙ্গলবার ভোর সাড়ে ৪টায় শিল্পী নিজের বাড়িতে শেষনিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। শিল্পীর প্রয়াণে শোকাহত সংগীত জগৎ। তাঁর রবিগান আজও শ্রোতাদের কাছে সম্পদ। সেই সম্পদ আগামী প্রজন্মের জন্য রেখেই না-ফেরার দেশে পাড়ি দিলেন সুমিত্রা সেন। ২০১২ সালে পশ্চিমবঙ্গ সরকার সুমিত্রা সেনকে ‘সংগীত মহাসম্মান’ প্রদান করে। এই গুণী শিল্পীর প্রয়াণে শোক জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর প্রয়াণে সংগীত জগতের এক অপূরণীয় ক্ষতি হলো, শোক প্রকাশ করে জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। শিল্পীর দুই কন্যা, অনুরাগীদের প্রতিও সমবেদনা জানিয়েছেন তিনি। সূত্র : সংবাদ প্রতিদিন