দৈনিক গৌড় বাংলা

শনিবার, ১৮ই মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৪ঠা জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১০ই জিলকদ, ১৪৪৫ হিজরি

ব্রাজিলে বন্যায় প্রাণহানি ১০০ ছাড়াল

ব্রাজিলের দক্ষিণাঞ্চলে প্রলয়ঙ্করী বন্যায় মৃতের সংখ্যা গত বুধবার ১০০ ছাড়িয়ে গেছে। এ ছাড়া নতুন করে সৃষ্টি হওয়া ঝড়ঝঞ্জার কারণে নিখোঁজ লোকজনকে খুঁজে বের করা সম্ভব হচ্ছে না বলে জানিয়েছে স্থানীয় কর্তৃপক্ষ। খবর এএফপির। রিও গ্রান্দে দো সুল রাজ্যের ইতিহাসে এ ধরনের প্রাকৃতিক দুর্যোগ আগে আর দেখা যায়নি। বন্যার কারণে রাজ্যটির প্রায় ৪০০ পৌর শহর ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। বন্যায় আহত হয়েছেন শতাধিক মানুষ আর বাড়িঘর ছাড়তে বাধ্য হয়েছেন এক লাখ ৬০ হাজার অধিবাসী। বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় অনেক মানুষ সুপেয় পানি ও বিদ্যুৎ সরবরাহ ব্যবস্থা থেকে বিচ্ছিন্ন রয়েছেন। টেলিফোন ও ইন্টারনেট সেবা বন্ধ থাকার কারণে তারা সাহায্য চেয়ে কারো সঙ্গে যোগাযোগও করতে পারছেন না।

গত মঙ্গলবার রাজ্যটির গভর্নর এদোয়ার্দো লেইটে হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেছেন, মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে। তার আশঙ্কা, রাজ্যটির রাজধানী পোর্টো আলেগ্রে ও অন্যান্য শহরগুলোতে বন্যা পরিস্থিতি আরও জটিল আকার ধারণ করায় হতাহতের সংখ্যা আরও বেড়ে যাবে। প্রায় ১৫ হাজার সৈন্য, দমকলকর্মী, পুলিশ ও স্বেচ্ছাসেবী আটকে পড়া লোকজনকে উদ্ধারে নৌকা নিয়ে তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে। তবে বৃষ্টির কারণে উদ্ধার তৎপরতায় বিঘœ ঘটছে। এ ছাড়া ঘণ্টায় ৮০ কিলোমিটার গতির ঝোড়ো হাওয়া ও বজ্রবৃষ্টির কারণে উদ্ধার অভিযান বন্ধ রাখতে হচ্ছে।

এদিকে কর্তৃপক্ষ আক্রান্ত লোকজনকে তাদের বাড়িঘরে ফিরতে নিষেধ করেছে, কেননা ওইসব এলাকা এখন ভূমিধস ও রোগবালাই প্রাদুর্ভাবের ঝুঁকিতে রয়েছে। রিও গ্রান্দে দো সুল রাজ্যের রাজধানী পোর্তো আলেগ্রের ভেতর দিয়ে প্রবাহিত গোয়াইবা নদীর পানি এতটাই বেড়ে গেছে, এখানকার পাঁচটি বাঁধে ফাটল দেখা দেওয়ার সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে এবং দুটি বাঁধ ভীষণ ঝুঁকির মুখে রয়েছে। ব্রাজিলের প্রলয়ঙ্করী এই বন্যায় উদ্বেগ ও সহানুভূতি প্রকাশ করেছেন জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেস। এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, এই ধরনের দুর্যোগ জীবন ও জীবিকার ওপর জলবায়ু সংকটের বিধ্বংসী প্রভাবের একটি অনুঘটক।

About The Author