বিশ্ব পরিবেশ দিবস উদযাপন

20

চাঁপাইনবাবগঞ্জে বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্যদিয়ে বিশ্ব পরিবেশ দিবস উদযাপন হয়েছে। রবিবার সকাল ১০টায় জেলা প্রশাসকের কার্যালয় চত্বরে বেলুন উড়িয়ে কর্মসূচির উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক এ কে এম গালিভ খান।
পরে জেলা প্রশাসকের নেতৃত্বে একটি বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের হয়ে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। শোভাযাত্রায় অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট দেবেন্দ্র নাথ উরাঁও, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) জাকিউল ইসলাম, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) আহমেদ মাহবুব-উল-ইসলামসহ অন্যরা অংশগ্রহণ করেন।
পরে এ উপলক্ষে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে আলোচনা সভা অুনষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে আলোচনা করেন জেলা প্রশাসক এ কে এম গালিভ খান এবং বিশেষ অতিথি হিসেবে আলোচনা করেন পুলিশ সুপার এএইচএম আবদুর রকিব।
অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) জাকিউল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনায় আরো অংশগ্রহণ করেনÑ সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ইফফাত জাহান, জেলা সমাজসেবা অধিদপ্তরের উপপরিচালক উম্মে কুলসুম, জেলা পরিসংখ্যান ব্যুরোর উপপরিচালক উম্মে কুলসুম, প্রয়াস মানবিক উন্নয়ন সোসাইটির প্রোগ্রাম অফিসার ফারুক আহমেদ। অনুষ্ঠান সঞ্চলনা করেন জেলা পরিবেশ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক মিজানুর রহমান।
জেলা প্রশাসক বলেন, পরিবেশ আইন মোতাবেক সরকারের অনুমতি ছাড়া আমরা কোনো জলাধার বা পুকুর নষ্ট করতে পারি না, ফেলতে পারি না কোনো ঝুঁকিপূর্ণ বর্জ্য, পাহাড় কাটতে পারি না। এক কথায় আইনে সবই আছে। এখন কথা হচ্ছে পরিবেশ প্রতিবেশ সুরক্ষায় আমরা ব্যক্তিগত পর্যায় থেকে কীভাবে কাজ শুরু করতে পারি।
চাঁপাইনবাবগঞ্জের আমের উদাহরণ দিয়ে জেলা প্রশাসক বলেনÑ আমি আসার পর দেখছি প্রতিটি বাগানে মৌসুমজুড়ে গাছে গাছে আম ঝুলে থাকে, অথচ অন্য কেউ সেই আমে হাত দেয় না। অর্থাৎ প্রতিটি মানুষের মস্তিষ্কে রয়েছে এটির মালিক অন্য, তাই এটি পাড়া যাবে না। এটি একটি শিক্ষা। এমন ধারণা এমন শিক্ষা যদি পরিবেশ সংরক্ষণের ব্যাপারেও মানুষের মনে দেয়া যায় বিশেষ করে শিশুদের মনে দেয়া যায়, তাহলে তারা এমন কেনো কাজ করবে না যাতে পরিবেশ দূষণ হয়।
জেলা প্রশাসক বলেন, চাঁপাইনবাবগঞ্জের মানুষ অত্যন্ত মেধাবী। আমার বিশ্বাস তারা পারবে। তাই ব্যক্তি ও পরিবার থেকেই শুরু করতে হবে। প্রতিটি ওয়ার্ডে সভা করে শিশুসহ সাধারণ মানুষকে সচেতন করতে হবে। কেউ যেন যেখানে-সেখানে ময়লা আবর্জনা না ফেলে। অনেক শিক্ষিত মানুষকেও দেখা গেছে ড্রেনের মধ্যে ময়লা আবর্জনা ফেলছে। এটা দুঃখজনক। তাই আসুন, এই শহর আমার আপনার আমাদের সবার, এই শহরকে রক্ষা করি, গ্রামকে রক্ষা করি, পরিবেশের সুরক্ষায় আমরা সম্মিলিতভাবে কাজ করি। এসডিজি বাস্তবায়নে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা কাউকে পেছনে ফেলে নয়, সবাইকে নিয়ে উন্নয়ন অগ্রযাত্রায় অংশগ্রহণ করি।
শেষে দিবসটি উপলক্ষে অনুষ্ঠিত রচনা ও চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতার বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার, সনদপত্র ও গাছের চারা বিতরণ করা হয়। জেলা প্রশাসন ও জেলা পরিবেশ অধিদপ্তর আয়োজিত কর্মসূচিতে জেলা প্রশাসন, প্রয়াস মানবিক উন্নয়ন সোসাইটি, ব্র্যাকসহ স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন অংশগ্রহণ করে।
এদিকে দিবসটি উপলক্ষে জেলা ছাত্রলীগের উদ্যোগে শাহ নেয়ামতুল্লাহ কলেজে বিভিন্ন ধরনের গাছের চারা রোপণ করা হয়। এ সময় জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ডা. সাইফ জামান আনন্দসহ অন্য নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।