বিশ্বব্যাপী খাদ্য সংকটে সাড়া দিতে আইএফসি অর্থায়ন প্ল্যাটফর্ম চালু

3

ক্রমবর্ধমান খাদ্য নিরাপত্তাহীনতার প্রতিক্রিয়ায় ইন্টারন্যাশনাল ফাইন্যান্স করপোরেশন (আইএফসি) সংকটে সাড়া দিতে এবং খাদ্য উৎপাদনে সহায়তা করার জন্য বেসরকারি খাতের সক্ষমতা জোরদারে ৬ বিলিয়ন ডলারের একটি নতুন অর্থায়ন সুবিধা চালু করেছে।
ইউক্রেনের যুদ্ধ এবং কোভিড-১৯ মহামারি থেকে একটি অসম বৈশ্বিক পুনরুদ্ধার ক্ষুধা ও অপুষ্টির ক্রমবর্ধমান মাত্রা যোগ করেছে, যা ইতিমধ্যে জলবায়ু পরিবর্তন এবং ক্রমবর্ধমান বৈরী আবহাওয়ার ঘটনাগুলোর দ্বারা আরো খারাপ হয়েছে, যা ফসলের ক্ষতি করছে এবং ফলন হ্রাস করছে।
আইএফসির এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে মঙ্গলবার একথা বলা হয়েছে।
অর্থায়নের একটি মূল অংশ, যা নতুন গ্লোবাল ফুড সিকিউরিটি প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে সরবরাহ করা হবে, টেকসই উৎপাদন এবং খাদ্য অস্থিতিশীলতা দ্বারা ক্ষতিগ্রস্ত দেশগুলোতে খাদ্য মজুত সরবরাহকে সহায়তা করবে।
সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে ‘সমর্থনের লক্ষ্য হবে খাদ্যপণ্যের বাণিজ্য সহজতর করা, কৃষকদের কাছে ইনপুট সরবরাহ করা, ইউক্রেনসহ প্রধান উৎসগুলোতে দক্ষ উৎপাদন সমর্থন করা এবং গন্তব্য দেশগুলোতে খাদ্যপণ্যের কার্যকর বিতরণ করা।’
বৈশ্বিক খাদ্য ব্যবস্থার প্রতিকূলতা মোকাবিলায় সক্ষমতা উন্নত করতে এবং এর জলবায়ু এবং পরিবেশগত পদচিহ্ন অনুসরণ করে দীর্ঘমেয়াদি কার্যক্রমে অর্থায়নে গুরুত্ব দেয়া হবে। এর মধ্যে রয়েছে শস্য উৎপাদনে দক্ষতা বৃদ্ধি, সারের প্রাপ্তি সহজতর করা, সার উৎপাদন ও ব্যবহারকে ঝুঁকিমুক্ত করা, ফসলের ক্ষতি এবং খাদ্যের অপচয় কমানো, সরবরাহ শৃঙ্খলের দক্ষতা উন্নত করা এবং অবকাঠামোগত প্রতিবন্ধকতা প্রশমন করা।
কৃষি ব্যবসা, উৎপাদন, অবকাঠামো এবং প্রযুক্তির পাশাপাশি আর্থিক খাত এবং বাণিজ্য অর্থায়নে আইএফসির সেক্টরাল দক্ষতার ব্যবহার করে খাদ্যমূল্য শৃঙ্খল বরাবর বেসরকারি খাতের কোম্পানিগুলোকে সহায়তা করতে ৬ বিলিয়ন ডলার ব্যবহার করা হবে।
‘খাদ্য নিরাপত্তাহীনতা দূর করতে এবং দীর্ঘস্থায়ী সমাধান তৈরিতে বেসরকারি খাতের অপরিহার্য ভূমিকা রয়েছে। সাপ্লাই চেইনকে শক্তিশালী করার মাধ্যমে এবং মানুষের সাশ্রয়ী মূল্যের খাবারের যে সুবিধা রয়েছে তা বৃদ্ধি ও নিশ্চিত করার মাধ্যমে এই উদ্যোগটি সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ অঞ্চলে স্থিতিস্থাপক খাদ্য ব্যবস্থা গড়ে তুলতে অবদান রাখবে,’ বলেছেন আইএফসির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মাখতার দিওপ।
এই প্ল্যাটফর্মটি খাদ্য সংকট মোকাবিলায় বিশ্বব্যাংকের ৩০ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের প্রতিশ্রুতির পরিপূরক হবে।
আইএফসি বিশ্বব্যাপী খাদ্য নিরাপত্তা চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় সম্মিলিত পদক্ষেপ গ্রহণের লক্ষে উন্নয়ন আর্থিক প্রতিষ্ঠান, ফাউন্ডেশন, ব্যাংকের পাশাপাশি বিভিন্ন বেসরকারি কোম্পানি ও অন্য অংশীদারদের সাথেও সম্পৃক্ততা বাড়াচ্ছে।