বিশ্বজুড়ে করোনায় মৃত্যু কমেছে, শনাক্ত আড়াই লাখের বেশি

2

বিশ্বে ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ৫৬৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন ২ লাখ ৫৮ হাজার ৭৫৩ জন। এ ছাড়া সুস্থ হয়েছেন ৩ লাখ ৫০ হাজার ২৮৫ জন। বিশ্বজুড়ে একদিনে সবচেয়ে বেশি সংক্রমণ ও প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে তাইওয়ানে। গতকাল সোমবার সকাল ৯টায় আন্তর্জাতিক পরিসংখ্যানবিষয়ক ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটারস থেকে পাওয়া সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, এ নিয়ে করোনায় বিশ্বে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬৩ লাখ ৪০ হাজার ৭২৭ জনে। মহামারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫৪ কোটি ৪২ লাখ ৯৯ হাজার ২৯৬ জনে। এ ছাড়া করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন ৫১ কোটি ৯৫ লাখ ৬৫ হাজার ৯৭৭ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বে করোনায় সবচেয়ে বেশি সংক্রমণ ও প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে তাইওয়ানে। এই সময়ের মধ্যে দেশটিতে করোনায় মারা গেছেন ১৭২ জন এবং নতুন করে ভাইরাসে সংক্রমিত হয়েছেন ৫০ হাজার ৬৩৬ জন।

এ ছাড়া মহামারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত দেশটিতে মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ৩২ লাখ ৯৫ হাজার ৭৬ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ৫ হাজার ২২১ জনের।রাশিয়ায় গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৬২ জন এবং নতুন করে ভাইরাসে সংক্রমিত হয়েছেন ৩ হাজার ৮১ জন। এ ছাড়া মহামারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত দেশটিতে মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ১ কোটি ৮৩ লাখ ৯৮ হাজার ২৬০ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ৩ লাখ ৮০ হাজার ৪৬৩ জনের। এছাড়া করোনায় এখন পর্যন্ত সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দেশ যুক্তরাষ্ট্রে ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ১৭ হাজার ৯২৮ জন রোগী শনাক্ত হয়েছেন। একই সময়ে মারা গেছেন ৩০ জন।

ব্রাজিলে একদিনে মারা গেছেন ৪৭ জন, শনাক্ত হয়েছে ১০৬৯১ জনের। ইতালিতে করোনা শনাক্ত হয়েছে ৩০ হাজার ৫২৬ জনের, মারা গেছেন ১৮ জন। এ ছাড়া এসময়ে জাপানে ২০ জন, অস্ট্রেলিয়ায় ৪২ জন, মেক্সিকোতে ৩৯ জন এবং চিলিতে ২৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। উল্লেখ্য, ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনের উহানে প্রথম করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়। এরপর ২০২০ সালের ১১ মার্চ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) করোনাকে ‘বৈশ্বিক মহামারি’ হিসেবে ঘোষণা করে।