বিশ্বকাপ বাছাইয়ের প্লে-অফে কঠিন পরীক্ষার মুখোমুখি পর্তুগাল-ইতালি

3

আগামী সপ্তাহে বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের প্লে-অফের ফাইনালে কঠিন পরীক্ষায় একে অপরের মুখোমুখি হতে পারে গত দুই আসরের ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়ন পর্তুগাল ও ইতালি। সবকিছু ঠিক থাকলে পোর্তোর এই গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচটির দিকেই থাকবে পুরো ফুটবল বিশ্বের দৃষ্টি। ২০১৬ ইউরো বিজয়ী পর্তুগালকে নেতৃত্ব দিবেন সুপারস্টার ক্রিস্টিয়ানো রোনাল্ডো। অন্যদিকে গত বছর ইউরোপিয়ান আসরে সেরা আজ্জুরিদের ফর্ম বিবেচনায় ইতোমধ্যেই সম্ভাব্য এই ম্যাচটি নিয়ে ব্যপক আলোচনা শুরু হয়েছে। যদিও তার আগে প্লে-অফের সেমিফাইনালে দুই দলকে ভিন্ন দুটি দলের মোকাবেলা করতে হবে। সেমিফাইনালে পর্তুগাল আতিথ্য দিবে তুরষ্ককে আর ইতালির প্রতিপক্ষ নর্থ মেসেডোনিয়া। রাশিয়া বিশ্বকাপে খেলতে ব্যর্থ হওয়া আজ্জুরিরা এবার মূল পর্বে ফিরে আসার জন্য মুখিয়ে আছে। ১৯৫৮ সালের পর থেকে প্রতিটি বিশ্বকাপে খেলা ইতালি ২০১৮ রাশিয়া বিশ্বকাপে খেলতে না পারার দু:সহ স্মৃতি থেকে এখনো বেরিয়ে আসতে পারেনি। ঐ বছর প্লে-অফে সুইডেনের কাছে পরাজিত হয়ে বিদায় নিয়েছিল ইতালি।

যদিও কোচ রবার্তো মানচিনির অধীনে নিজেদের আবারো মাঠের লড়াইয়ে প্রমান করে চলেছে ইতালি। তারই ধারাবাহিকতায় ইউরো ২০২০ জয়সহ এখনো পর্যন্ত ৩৭ ম্যাচে অপরাজিত থাকার রেকর্ড গড়েছে। ইউরোপিয়ান অঞ্চলের বাছাইপর্বে তারা সুইজারল্যান্ডের কাছে দ্বিতীয় হয়ে গ্রুপ পর্ব শেষ করে। যে কারণে প্লে-অফে খেলতে বাধ্য হয়েছে। দোহায় আগামী ১ এপ্রিল মূল পর্বের ড্র’তে জায়গা করে নিতে হলে প্লে-অফের দুটি ম্যাচেই জেতার বিকল্প নেই। এ সম্পর্কে মানচিনি বলেছেন, ‘আমাদের লক্ষ্য হলো বিশ্বকাপ জয় করা। আর সেটা অর্জণ করতে হলে এই দুটি ম্যাচে জিততে হবে। এখানে আর কিছুই বলার নেই।’ পালেরমোতে আগামীকাল নর্থ মেসেডোনিয়াকে আতিথ্য দিবে ইতালি। দুই মিলিয়ন জনগনের ছোট্ট এই বালকানিয়ান রাষ্ট্রকে মোটেই খাটো করে দেখছে না আজ্জুরিরা।

বিশেষ করে গত বছর বাছাইপর্বে জার্মানীর মত দলকে পরাজিত করার পর থেকেই তাদের নিয়ে মাতামাতি শুরু হয়েছে। প্রথমবারের মত ইউরো ২০২০’এও খেলার সুযোগ লাভ করে। গত বিশ্বকাপে তুরিনের বাছাইপর্বে তারা ইতালির সাথে ড্র করেছিল। নর্থ মেসেডোনিয়ার গর্বিত কোচ ববি মিলেভস্কি বলেছেন, ‘আমরা শুধুমাত্র পর্যটক হিসেবে ইতালিতে যাচ্ছিনা। সেখানে জেতার লক্ষ্য নিয়ে যাচ্ছি।’ পর্তুগাল অধিনায়ক রোনাল্ডোর বয়স ২০২৬ বিশ্বকাপের সময় হবে ৪১। যে কারণে ধরেই নেয়া যায় কাতার বিশ্বকাপই তার সামনে বিশ্বকাপ জয়ের শেষ সুযোগ। ১১৫ গোল করে আন্তর্জাতিক ফুটবলে সর্বকালের সর্বোচ্চ গোলদাতা হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করা রোনাল্ডো স্বাভাবিক ভাবেই এই সুযোগ হাতছাড়া করতে চাইবে না।

এ সপ্তাহে ইনস্টাগ্রামে রোনাল্ডো পোস্ট করেছেন, ‘আমরা জানি পথটা মোটেই সহজ নয়। প্রতিপক্ষের প্রতি আমাদের পূর্ণ শ্রদ্ধা আছে। তাদেরও আমাদের প্রতি অনুভূতিটা অভিন্ন। কিন্তু মাঠের লড়াইয়ে পর্তুগালকে বিজয়ী করেই আমরা মাঠ ছাড়তে চাই।’ বিশ্ব র‌্যাঙ্কিংয়ে আট নম্বরে থাকা পর্তুগাল ইতালির থেকে দুই অবস্থান পিছিয়ে রয়েছে। প্লে-অফের ফাইনালে পৌঁছাতে হলে তাদেরকে আগে তুরষ্ককে পরাজিত করতে হবে। এই ম্যাচে ঘরের মাঠের সুবিধাটা পুরোপুরি কাজে লাগাতে চায় পর্তুগাল। যদিও তাদের মূল দলের দুই সেন্টার ব্যাক এই ম্যাচ থেকে ছিটকে গেছেন। ম্যানচেস্টার সিটির রুবেন ডায়াস ইনজুরির কারণে ও ৩৯ বছর বয়সী অভিজ্ঞ পেপে কোভিড-১৯ পজিটিভ হওয়ায় এই ম্যাচটিতে খেলতে পারছেন না। ইউরোপীয়ান অঞ্চল থেকে ইতোমধ্যেই ১০টি দল বিশ্বকাপে জায়গা করে নিয়েছে, বাকি আছে আরো তিনটি দল।

২০১৮ বিশ্বকাপের স্বাগতিক রাশিয়াকে ইউক্রেন আগ্রাসনের কারণে ফিফা ও উয়েফা আন্তর্জাতিক ফুটবল থেকে নিষিদ্ধ করেছে। এর অর্থ হচ্ছে তাদের বিপক্ষে প্লে-অফের সেমিফাইনালে খেলতে যাওয়া পোল্যান্ড ওয়াক ওভার পেয়েছে। ফাইনালে তাদের প্রতিপক্ষ সুইডেন ও চেক প্রজাতন্ত্রের মধ্যকার বিজয়ী দল। গ্লাসগোতে স্কটল্যান্ডের আতিথ্য নেবার কথা ছিল ইউক্রেনের। কিন্তু প্লে-অফের সেই ম্যাচটি জুন পর্যন্ত স্থগিত হয়ে গেছে। এ কারণে আরেক সেমিফাইনালে ওয়েলস ও অস্ট্রিয়ার মধ্যকার বিজয়ী দলকে কাতারের টিকিটের জন্য জুন পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। শেষ দুটি ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নশীপে নিজেদের প্রমান করলেও ১৯৫৮ সালের পর থেকে বিশ্বকাপে খেলার সুযোগ পায়নি ওয়েলস। বিশ্বের এক নম্বর দল বেলজিয়ামের পরে দ্বিতীয় স্থানে থেকে ওয়েলস বাছাইয়ের গ্রুপ পর্ব শেষ করেছে।