বিদায় নিলেন মারসেলো

6

এক বা দুই নয়, দীর্ঘ ১৬ বছরের অধিক সময় কাটিয়েছেন রিয়াল মাদ্রিদে। বিদায়টা তাই অশ্রুসিক্ত হলো মারসেলোর। কান্নাভেজা চোখে ১৬ বছরের সম্পর্কের ইতি টেনে রিয়াল মাদ্রিদকে বিদায় বললেন ৩৪ বছর বয়সী এই ফুটবলার। সান্তিয়াগো বের্নাব্যুতে গতকাল মঙ্গলবার আনুষ্ঠানিকভাবে রিয়াল ছাড়ার ঘোষণা দেন ব্রাজিলিয়ান এই লেফটব্যাক। রিয়ালকে বিদায় বললেও আবারও স্প্যানিশ ক্লাবটির প্রাঙ্গণে ফিরে আসার কথা জানান তিনি। ক্লাব সভাপতি ফ্লোরেন্তিনো পেরেজকে সামনে রেখে চোখের জল ফেলে মারসেলো বলেন, ‘রিয়াল মাদ্রিদ বিশ্বের সেরা ক্লাব। ‘ ব্রাজিলিয়ান এই ফুটবলার আরো বলেছেন, ‘আমি বিশ্বের সেরা ক্লাবে খেলেছি। আমার স্ত্রী ক্লারিসকে ধন্যবাদ জানাতে চাই, তাকে ছাড়া আমি এমন মানুষ হতে পারতাম না।

আর আমার ছেলেরা তাদের বাবাকে বিশ্বের সেরা ক্লাবের হয়ে খেলতে দেখেছে। ‘২০০৬ সালে মারসেলো যখন রিয়ালে যোগ দেন তখন ক্লাবটির অধিনায়ক ছিলেন রাউল গঞ্জালেস। তরুণ মারসেলোর ওপর আস্থা রেখেছিলেন রাউল, তাই তার প্রতি কৃতজ্ঞ এই ব্রাজিলিয়ান, ‘আমার অধিনায়ক হিসেবে রাউলকে ধন্যবাদ। আমার জন্য সে একটি উদাহরণ। সে যে আমার রোল মডেল সেটা আমি কখনো তাকে বলিনি। ধন্যবাদ। এটা আমার শেষবিদায় নয়, কারণ আমি অনুভব করছি যে, রিয়াল ছাড়ছি না। ‘ মারসেলোর বিদায়ে সেই রাউল গতকাল মঙ্গলবার সান্তিয়াগো বের্নাব্যুতে বসে চোখের জল ফেলেছেন। আবেগঘন অবস্থায় দেখা যায় কোচ কার্লো আনচেলোত্তিকেও। মারসেলোর বক্তব্যের আগে ক্লাব সভাপতি তাকে প্রশংসা করে বলেছেন, ‘আজ আমাদের মহান অধিনায়ককে ধন্যবাদ জানাই, আমাদের অন্যতম কিংবদন্তি।

রিয়াল মাদ্রিদের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি শিরোপাধারী খেলোয়াড়। ‘ পেরেজ আরো বলেছেন, ‘প্রিয় মারসেলো। ফুটবল এবং রিয়াল মাদ্রিদের ইতিহাসের অন্যতম সেরা লেফট ব্যাক। প্রিয় মারসেলো, ১৮ বছর বয়সে যখন এখানে আসো এরপর তোমার যত স্বপ্ন ছিল সব পূরণ করেছ। ২৫টি শিরোপা, ৫৬৪ ম্যাচ এবং ৩৮ গোল। রিয়াল মাদ্রিদ সর্বদা তোমার বাড়ি। ‘তবে এখনই ফুটবলকে বিদায় বলছেন না মারসেলো। রিয়াল থেকে ফ্রি ট্রান্সফারে যোগ দেবেন অন্য কোনো ক্লাবে। অবশ্য কোন ক্লাবে যাবেন সেটা এখনো চূড়ান্ত হয়নি। এ ব্যাপারে মারসেলোর বক্তব্য, ‘আমি অবসরে যাচ্ছি না এখন। আমি অনুভব করছি, এখনো খেলতে পারব। রিয়াল মাদ্রিদের বিপক্ষে খেলব? এটা সমস্যা হবে না। আমি মাদ্রিদিস্তা’ কিন্তু আমি একজন পেশাদার। ‘