বাবুডাইং আলোর পাঠশালা দেখে গেলেন বিদেশী নাগরিক

47

‘এটি এমনই একটি জায়গা, যেখানে সাধারণ মানুষজনের মুখে সুন্দর হাসি লেগেই আছে। তাঁদের আছে বড় একটি হৃদয়। আমি এখানে সময় কাটিয়ে উপভোগ করেছি। এ বিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা খুব ভালো। তাঁদের আতিথেয়তা আমাদের মুগ্ধ করেছে। আমি কথা দিচ্ছি, আবারো এখানে ফিরে আসবো।’ এমনই আগ্রহের কথা জানিয়েছেন বিদেশী ২ নাগরিক। রবিবার রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার বাবুডাইং আলোর পাঠশালা ও গ্রাম ঘুরে এই আগ্রহ প্রকাশ করেন নেদারল্যান্ড-বেলজিয়াম দম্পতি রবার্ট ও সাবিন।
সকাল ১০টায় বাংলাদেশ ইকো অ্যাডভেঞ্চার দলের তত্ত্বাবধানে চাঁপাইনবাবগঞ্জ ভ্রমণে আসেন বেলজিয়াম ও নেদারল্যান্ডের দুটি পর্যটক দল। প্রথমেই তাঁরা চাঁপাইনবাবগঞ্জ শহর থেকে প্রায় ১৩ কিলোমিটার দূরে আলোর পাঠশালা ও কোল ক্ষুদ্র জাতিসত্তার গ্রাম বাবুডাইং ঘুরতে আসেন। এসময় তাঁদের নেতৃত্ব দিচ্ছিলেন দলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আফ্রিদি।
পর্যটকদের মধ্যে ছিলেন বেলজিয়ামের নাগরিক রিচার্ড, নেদারল্যান্ডের নাগরিক লেলে, দম্পতি বার্ট ও জেমি।
গ্রাম ঘুরে আলোর পাঠশালার সীমানায় পৌঁছুলে শিক্ষার্থীরা তাঁদের শাপলা ফুলের মালা পরিয়ে বরণ করে নেয়। বেলা সোয়া ১১টায় অ্যাসেম্বলিতে অংশ নেয় শিক্ষার্থীরা। জাতীয় সংগীতের পর শিক্ষার্থীরা অতিথিদের আটটি পিটি দেখায়। তা দেখে মুগ্ধ হন অতিথিরা। এরপর শ্রেণিকক্ষগুলোতে গিয়ে পাঠদান দেখেন তাঁরা। পরে কোল ক্ষুদ্র জাতিসত্তার শিক্ষার্থীরা তাদের ঐতিহ্যবাহী নাচ-গান পরিবেশন করে।
বেলজিয়াম নাগরিক রিচার্ড পিতাহীন তৃতীয় শ্রেণির শিক্ষার্থী জীবন টুডুর জীবন সংগ্রামের গল্প শুনে বলেন, এত ছোট বয়সেই সংসারে অর্থের যোগান দেয়ার বিষয়টি খুবই দুঃখজনক। সে এই বয়স থেকেই পড়ালেখার পাশাপাশি অর্থ উপার্জন করে সংসার পরিচালনায় যে ভূমিকা রেখেছে তা আমাদের কাছে অকল্পনীয়। আমরা তার উন্নত ভবিষ্যত কামনা করি।