বাংলাদেশে ইন্টারনেট গ্রাহকের সংখ্যা ছয় কোটি ছাড়িয়ে

64

01-ষোল কোটি মানুষের বাংলাদেশে ইন্টারনেট গ্রাহকের সংখ্যা ছয় কোটি ছাড়িয়ে গেছে বলে জানিয়েছে টেলিযোগাযোগ খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থা- বিটিআরসি।
চলতি বছর মার্চ শেষের তথ্য হিসেবে করে বিটিআরসির প্রতিবেদনে জানানো হযেছে, বর্তমানে দেশে ইন্টারনেট গ্রাহকের সংখ্যা ৬ কোটি ১২ লাখ ৮৮ হাজার। ফেব্রুয়ারিতে এই সংখ্যা ছিল ৫ কোটি ৮৩ লাখ, আর জানুয়ারিতে ৫ কোটি ৬১ লাখ।
গতবছর মার্চে বাংলাদেশে ৪ কোটি ৪৪ লাখ ৬২ হাজার মানুষ ইন্টারনেট সেবা কিনতেন। এই হিসেবে দেশে ইন্টারনেট গ্রাহক বাড়ছে প্রায় ৩৮ শতাংশ।
বিটিআরসির তথ্যে দেখা যায়, দেশে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের বেশিরভাগই এ সেবা নিচ্ছেন মোবাইল ফোন নেটওয়ার্কের মাধ্যমে। সাম্প্রতিক সময়ে বিভিন্ন ইন্টারনেট সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান (আইএসপি) ও পাবলিক সুইচড টেলিফোন নেটওয়ার্কের (পিএসটিএন) ইন্টারনেট গ্রাহক বাড়লেও ওয়াইম্যাক্স ইন্টারনেটে আগ্রহ হারাচ্ছেন গ্রাহকরা।
বিটিআরসির সচিব মো. সারওয়ার আলম সোমবার বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “বাংলাদেশের মানুষের ডেটা ব্যবহারের আগ্রহ বাড়ছে। গ্রাহক সংখ্যা আগামীতে আরও বাড়বে বলে আমরা আশা করছি।”
মোবাইল ইন্টারনেটের গ্রাহক বাড়লেও দেশে মোবাইল ফোনের গ্রাহক সংখ্যা ১৩ কোটির ঘরে পৌঁছে একটু একটু করে কমতে শুরু করেছে। মার্চে দেশে ছয়টি মোবাইল ফোন অপারেটরের হাতে মোট ১৩ কোটি ৮ লাখ ৮১ হাজার গ্রাহক ছিল। অথচ গত ডিসেম্বরেও এই সংখ্যা ছিল ১৩ কোটি ৩৭ লাখ ২০ হাজার। বিটিআরসি অপারেটরগুলোর দেওয়া সিম বিক্রির তথ্য থেকে এই পরিসংখ্যান তৈরি করে। তবে গ্রাহকের হাতে থাকা সব সিমই সব সময় চালু থাকে না। দেশে মোট ১৩ কোটি সিমের মধ্যে আট কোটির মতো বর্তমানে চালু আছে বলে অপারেটরগুলোর ধারণা। বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে সিম নিবন্ধন শেষে অনিবন্ধিত সব সিম বন্ধ করে দেওয়া হবে বলে টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম হুঁশিয়ার করে আসছেন।